ঢাকা, রোববার 22 October 2017, ৭ কার্তিক ১৪২8, ১ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রাজধানীতে খালে পড়ে  যাওয়ার ৭ দিন পর লাশ  হয়ে ফিরল হৃদয়

 

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর মুগদা এলাকায় খালে পড়ে যাওয়া শিশু হৃদয়ের লাশ পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে তিন বছর বয়সী শিশুটিকে উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী দল।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণকক্ষের কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ১৫ অক্টোবর বিকেলে সাঁকো দিয়ে খাল পার হতে গিয়ে পানিতে পড়ে যায় হৃদয়। ওই দিন সন্ধ্যা থেকে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাকে উদ্ধারে চেষ্টা চালান। ডুবুরিসহ ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী ইউনিট সাত দিন চেষ্টা চালিয়ে গতকাল দুপুরে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে। উদ্ধারের পর হৃদয়ের লাশ মুগদা থানা-পুলিশকে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

মুগদার মদিনাবাগ লাগোয়া খালের ওপর দিয়ে ১৫ অক্টোবর বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে সাঁকো পার হওয়ার সময় খালে পড়ে যায় হৃদয়। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করে। কিন্তু এর আগেই ময়লার নিচে পানিতে তলিয়ে যায় হৃদয়। ওই দিন সন্ধ্যা থেকে তাকে উদ্ধারে অভিযান শুরু করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

স্থানীয়রা জানান , দুই ভাই-বোন হৃদয় ও সাথী সেদিন বিকালে বাড়ির সামনে খেলছিল। এসময় ছোট ভাই হৃদয় পানি খেতে চায়। পাঁচ বছরের সাথী তাকে হাত ধরে পানি খাওয়ানোর জন্য ঘরের দিকে রওনা হয়। তাদের ঘরটিতে যেতে ১৫-২০ হাত লম্বা দুই ফুট প্রশস্ত একটি বাঁশের সাঁকো পার হতে হয়। সাঁকোটি আগে থেকেই একটু হেলানো ছিল। এর মাঝামাঝি যেতেই ভারসাম্য হারিয়ে নিচে খালের পানিতে পড়ে যায় তিন বছরের হৃদয়।

সাথী কূলকিনারা না পেয়ে দৌড়ে ঘরে গিয়ে বাবা কামাল উদ্দিনকে বিষয়টি জানায়। কামাল উদ্দিন তখন রান্না করছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে তিনি ঘর থেকে বেরিয়ে এসে লাফিয়ে পড়েন খালের পানিতে। প্রিয় সন্তানকে খুঁজতে থাকেন খালের বুকসমান পানিতে আর আহাজারি করতে থাকেন। ছুটে আসে এলাকাবাসী। খবর পৌঁছে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসেও। তারাও খুঁজতে থাকেন।

 লোকজন বাঁশ নিয়ে খালের পানিতে শিশুটিকে খুঁজেন এই কয়দিন ধরে । অবশেষে তার নিথর দেহ খুঁজে পেলেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ