ঢাকা, সোমবার 23 October 2017, ৮ কার্তিক ১৪২8, ২ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আওয়ামী সরকার গোটা দেশটাকেই সন্ত্রাসের বেড়াজালে আবদ্ধ করে ফেলেছে -মির্জা ফখরুল

 

স্টাফ রিপোর্টার: বর্তমান আওয়ামী সরকার গোটা দেশটাকেই সন্ত্রাসের বেড়াজালে আবদ্ধ করে ফেলেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ইতিহাসে বর্তমান দুঃশাসনের সঙ্গে তুলনীয় কোন ঘটনা নেই। মহিলা রাজনীতিকেরও নির্বিঘেœ রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার কোন সুযোগ বা অধিকার নেই। সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি রুমানা মাহমুদ এর ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলায় আবারো প্রমাণিত হলো-সারাদেশটা এখন নিরাপত্তাহীনতার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। 

বিবৃতিতে বলা হয়, গতকাল রোববার সিরাজগঞ্জ জেলাধীন কামারখন্দ উপজেলায় কর্মিসভা শেষে ফেরার পথে কড্ডার মোড়ে আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য রুমানা মাহমুদ এর গাড়ীবহরে হামলা চালিয়ে রুমানা মাহমুদসহ নেতাকর্মীদের আহত করেছে। সন্ত্রাসীরা বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে রুমানা মাহমুদকে আহত এবং গাড়ীবহরের গাড়ীগুলো ভাংচুরের মাধ্যমে ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে। এই ধরনের কাপুরুষোচিত ও ন্যক্কারজনক ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, একজন সাবেক মহিলা সংসদ সদস্যের ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের এধরনের বর্বরোচিত ও কাপুরুষোচিত হামলা নজীরবিহীন। কেবলমাত্র আওয়ামী লীগের পক্ষেই এই সহিংস সন্ত্রাস করা সম্ভব। বর্তমান আওয়ামী সরকার গোটা দেশটাকেই সন্ত্রাসের বেড়াজালে আবদ্ধ করে ফেলেছে। ইতিহাসে বর্তমান দু:শাসনের সঙ্গে তুলনীয় কোন ঘটনা নেই। মহিলা রাজনীতিকেরও নির্বিঘেœ রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার কোন সুযোগ বা অধিকার নেই। সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি রুমানা মাহমুদ এর ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলায় আবারো প্রমাণিত হলো-সারাদেশটা এখন নিরাপত্তাহীনতার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। 

মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশে মানুষের জানমাল ও চলাচলের নিরাপত্তাকে ভয়ঙ্কর অবস্থায় নিয়ে গিয়ে বর্তমান শাসকগোষ্ঠী রাষ্ট্রক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করার নীলনকশা বাস্তবায়নের পথে অতি দ্রুততার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের বৃহত্তম ও সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর সকল অধিকার হরণের মাধ্যমে দেশকে বিরোধী দলমুক্ত করে আওয়ামী একচ্ছত্র শাসন দীর্ঘমেয়াদে ভোগ করতেই বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছে। শাসকগোষ্ঠীর প্রত্যক্ষ মদদ না থাকলে একজন মহিলা এমপি’র ওপর এধরণের ন্যক্কারজনক হামলা সংঘটিত করতে সন্ত্রাসীরা সাহস পেতো না। ধারাবাহিকভাবে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলা এবং এর লাগাম টেনে ধরতে সরকারের অনিচ্ছাই সন্ত্রাসীদেরকে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালাতে আরো উৎসাহিত করছে। আমি রুমানা মাহমুদ এর ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ