ঢাকা, বুধবার 25 October 2017, ১০ কার্তিক ১৪২8, ৪ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বুড়িগঙ্গা সেতু টোলমুক্ত করার দাবী

এইচএম এরশাদ কেরানীগঞ্জ: কেরানীগঞ্জ এর ইকুরিয়া হাসনাবাদ ও পোস্তগোলা বুড়িগঙ্গা নদীর উপর ব্রীজকে টোল মুক্ত করা এলাকাবাসীর প্রাণের দাবি। এদিকে বাবুবাজার বুড়িগঙ্গা ২য় ব্রিজ মহাসড়কের কেরানীগঞ্জের কদমতলীতে চার লেনের  কাজ চলার কারনে ১মাস ব্রিজ বন্ধ করে দেয় কর্তপক্ষ। এ কারনে ভারি ও মাঝারি বাস ট্রাক সহ সকল গাড়ি চলাচলের কারনে ৩০০ ফুট সড়ক ও ঢাকা মাওয়া মহাসড়ক হাইওয়েতে, ২৪ঘন্টা ভয়াবহ যানজট হয় টোল বক্সের কারণে।
একদিকে জানজট অন্যদিকে ব্রিজের বেহাল অবস্থায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে। এমনিতেই ব্রিজটির বয়স ২৭ বছর এবং পুরানোর কারনে, যান চলাচলের সময় ব্রিজ থরথর করে কাপেঁ। ব্রিজটির লোহার জয়েন্ট এর অনেক জায়গার লোহা চুরি হওয়ার কারনে ব্রিজটি মেরামতের কোন উদ্যেগ চোখে পড়েনি । যেকোন সময় দুর্ঘটনার শঙ্কা থাকলেও সেতুটি মেরামত করা হয় না। অথচ সেতুর টোলের টাকায় কর্মকর্তাদের পকেট ভারি হচ্ছে। এই টাকা মাসোহারা হিসেবে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের  অনেক নেতার পকেটেও। 
জানা যায়, সেতু মেরামত না করায় প্রায়ই যানবাহন উল্টে বন্ধ হয়ে যায় চলাচল। এছাড়া টোল আদায় ধীরগতির কারনে সেতুর দু’পাড়ে সৃষ্টি হয় যানজট ভোগান্তি পড়েন যানবাহন ও যাত্রীরা। শিক্ষার্থী এলাকাবাসীর দূর্ভোগ চরমে পৌছে। ঐতিয্যবাহী পোস্তগোলা, জুরাইন,শ্যামপুর, ওয়ারী, যাত্রাবাড়ী হাসনাবাদ বাজারের পড়েছেন ক্ষতির মুখে। অভিযোগ উঠেছে অতিরিক্ত টোল আদায়ের কারণে প্রায়ই আদায়কারীদের সঙ্গে হাতা খাচা খাচির মত ঘটনা ঘটে। চালকরা জানান সেতু মেরামতের কোন খবর নেই। সেতুর পলেস্তার উঠে সুষ্টি হয়েছে গর্ত।এই সহরের মানুষের পন্য পরিবহনে পার হতেই ঘন্টার পর ঘন্ট লেগে যায়। ৩০০ফুট সড়ক সংলগ্ন কেরানীগঞ্জের মানুষের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে এবংমহাসড়ক যানজটমুক্ত করতে নতুন করে টোল ইজারা না দিয়ে টোল একেবারে মুক্ত করে দেয়ার দাবী উঠেছে।
১৯৮৯ সালে বুড়িগঙ্গাা নদীর ওপর পোস্তগোলা-কেরানীগঞ্জ হাসনাবাদের দুই পাড়ে নির্মান করা হয় ‘বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু‘। সেতুটি উদ্বোধন করেন তৎকালিন প্রেসিডেন্ট হুসেইন মো: এরশাদ। শুরু থেকে সেতুর ওপর দিয়ে চলাচলরত যানবাহনভেদে ১৩ ও ২০টাকা হারে টোল নেওয়া হতো। এরপর এটা বৃদ্ধি করা হয় ২০ ও ৩০টাকায়। কিন্ত হঠাৎ ২০১৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে  যানবাহনভেদে টোল বৃদ্ধি করা হয় ২ থেকে ৩ গুন। সেসঙ্গে টোলের আওতায় আনা হয় ছোট ছোট যানবাহনগুলোকে। ফলে অতিরিক্ত টোলের হার কমানো ও টোল ফ্রি করার দাবিতে আন্দোলন করেন বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনগুলো। আন্দোলনকারিরা টানা কয়েকদিন বন্ধ করে দেয় যান চলাচল। ফলে কর্তৃপক্ষ ছোট হালকা যানবাহনের টোল মুক্ত ও বর্ধিত ভাড়া কার্যকর স্থগিত করেন।
এ অবস্থায় টেন্ডার খেকে বিরত থাকেন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো। প্রকৌশলী মো: কামরুজ্জামান জানান, আমাদের জনবল কম ও একাজে তেমন পারদর্শী নয়। এছাড়া দীর্ঘদিন একাজ করতে করতে অনেকটা হাঁপিয়ে উঠেছে তারা।
অভিযোগ রয়েছে আদায়কৃত অর্থের পুরোভাগ জমা হয়না সরকারি কোষাগারে। অনেক যানবাহনের কাছ থেকে অর্থ নিলেও দেওয়া হচ্ছেনা টিকেট। গত ৪ নভেম্বর (শুক্রবার) রাত পেনে আটটায় মাত্র দশ মিনিটে কয়েকটি বড় যানকে টিকেট না দিয়েই টাকা নেওয়ার  দৃশ্য চোখে পড়ে।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন গড়ে ২০-৩০ হাজার টাকা সরকার এখান থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সওজ-এর তথ্যানুযায়ী ২০-২৬ নভেম্বর‘১৬ তারিখ পর্যন্ত সাত দিনে টোল আদায়ের পরিমান ৯ লক্ষ ৮হাজার ৮শত টাকা। যার দৈনিক গড় টোল আদায়ের পরিমান ১ লক্ষ ২৯হাজার  ৮শত আটাশ টাকা। বার্ষিক আদায়কৃত অর্থের পরিমান প্রায়  ৪ কোটি ৭৩লক্ষ ৮৭ হাজার  ২ শত ২০টাকা। এদিকে কেরানীগঞ্জ সড়ক বিভাগের উপ-সহকারি প্রকৌশলী আনিসুর রহমানের মৌখিক হিসাব অনুযায়ী গত ১ বছরে টোল থেকে অর্থ আদায় হয় ৫ কোটি ৮ লাখ টাকা। কিন্ত লিখিত কোন হিসাব দিতে তালবাহানা করেন সংশ্লিষ্ট কয়েকজন কর্তৃপক্ষ। সূত্র মতে সর্বশেষ বাৎসরিক ইজারার পরিমান ছিল ৪ কোটি ২০ লক্ষ টাকা।
তখন টানা তিন মাস হরতাল অবরোধ থাকায় যানবাহন চলাচল কম থাকলেও বিগত এক বছরে এর সংখ্যা বেড়েছে কয়েক গুন। কিন্ত সে তুলনায় বাড়িয়ে টোল আদায়ের অর্থ। এব্যাপারে সড়ক ও জনপথ ঢাকা বিভাগীয় নির্বাহী প্রকৌশলী মামুনুর রশীদ জানান, আমাদের জনবল কম। এছাড়া বাবুবাজার ব্রিজ বন্ধ থাকায় গাড়ির চাপ আগের তুলনায় তিন গুন বেড়েছে যে কারনে টোল আদায় করতে অনেক সময় লেগে যায়। এজন্য যানজট ও লেগে ভয়াবহ আকার ধারন করে।  একাজে প্রায় ২৪জন স্টাফ সম্পৃক্ত থাকায় অন্য কাজে ব্যাঘাত ঘটছে।
এ সেতুতে চলাচল কারী এলাকাবাসী দাবী ২৭ বছর অতিবাহিত হওয়ার পর টোল থাকতে পারে না।
তারা দেশ নায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা ও মাননীয় মন্ত্রী মহোদ্বয়ের দৃষ্টি আকর্ষন কামনা করছেন। এবং বুড়িগঙ্গা ১ম সেতু কে টোল মুক্ত করে জন মনে সস্তি ফিরিয়ে দেয়ার আহবান জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ