ঢাকা, বুধবার 25 October 2017, ১০ কার্তিক ১৪২8, ৪ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কৃত্রিম জলাবদ্ধতায় ডুমুরিয়ার জাগরনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়

খুলনা অফিস: খুলনার ডুমুরিয়ার জাবড়া এলাকায় স্থানীয় প্রভাবশালীরা সরকারি খাস খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে তলিয়ে গেছে পল্লী জাগরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠ ও এর আশপাশ এলাকা। বিদ্যালয়ে যাতায়াতের এক মাত্র রাস্তা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যাবহারের টয়লেটও। তলিয়ে যাওয়া পানিতে রয়েছে অসংখ্য জোঁক। যার ভয়ে লাফিয়ে লাফিয়ে হাঁটু পানি ঠেলে কাদা-পানি পাড়ি দিয়ে শ্রেণি কক্ষে যেতে হচ্ছে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের। চলতি বর্ষা মওসুমের শুরু থেকে এ সমস্যা সৃষ্টির হলেও আজও এর কোন সমাধান না হওয়ায় অবশেষে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিলের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের শরণাপন্ন হয়েছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। তবে তদন্ত সাপেক্ষে আশু সমাধান করা হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।
উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে দায়েরকৃত অভিযোগ ও এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা যায়, ১৯৯৩ সালে উপজেলার ভান্ডারপাড়া ইউনিয়নের জাবড়া এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয় পল্লী জাগরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়। যার বর্তমান ছাত্র-ছাত্রী আড়াই শতাধিক। কিন্ত সম্প্রতি সম্মানীয় প্রভাবশালী সুদেব ঢালী, নীতিষ ঢালীসহ আরো অনেকে অত্র এলাকার পানি নিস্কাশনের একমাত্র সরকারি কিচিমিচি খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে তলিয়ে গেছে স্কুল মাঠ সহ ফসলী জমি। স্কুলে যাতায়াতের এক মাত্র রাস্তা ও বাথরুম তলিয়ে যাওয়ায় সীমাহীন দূর্ভোগে পড়েছে শিক্ষার্থী ও শিক্ষক-শিক্ষিকা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অশোক কুমার বিশ্বাস জানান, সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের জন্য স্থানীয় ইউপি সদস্যকে সাথে নিয়ে বহুবার বসে এ সমস্যার সমাধান করতে চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছি। কিন্তু কতিপয় ব্যক্তি তাদের ব্যক্তি স্বার্থ হাসিল করতে এলাকার সাধারণ মানুষ ও স্কুলটি ভোগান্তিতে ফেলেছে। এ অবস্থায় ছাত্র-ছাত্রীরা নিয়মিত স্কুলে আসছে না। পানিতে তলিয়ে বাথরুম ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় ভোগান্তির পাশাপাশি পানিতে অসংখ্য জোঁক থাকায় ভোগান্তির শেষ নেই। সবমিলে পানি নিষ্কাশন ছাড়া শিক্ষার পরিবেশ ও এলাকা বাসির স্বস্তির কোন উপায় নেই।
এ ব্যাপারে ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আশেক হাসান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি শীঘ্রই তদন্ত সাপেক্ষে পানি নিষ্কাশনের মাধ্যমে এলাকার সাধারণ মানুষ ও শিক্ষার্থীদের মুক্ত করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ