ঢাকা, বুধবার 25 October 2017, ১০ কার্তিক ১৪২8, ৪ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গুম খুন আটক অবস্থায় হত্যা বন্ধসহ অস্বাভাবিক দ্রব্যমূল্য হ্রাসের আহ্বান

স্টাফ রিপোর্টার: চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে মূল্যহ্রাসের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। সোমবার দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে অনুষ্ঠিত সিদ্ধান্তে সরকারের কাছে এই দাবি জানানো হয়।

গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৩ অক্টোবর সোমবার বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন-বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। সভায় বেগম খালেদা জিয়া চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে আসায় পরম করুণাময় আল্লাহ’র নিকট শুকরিয়া আদায় করা হয়।

এছাড়া সম্প্রতি চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। সরকারের ভ্রান্ত নীতিকে এই মূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী করে অবিলম্বে মূল্যহ্রাসের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানানো হয়। সম্প্রতি দেশের উত্তরাঞ্চলসহ কয়েকটি জেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের প্রতি সমবেদনা এবং প্রয়োজনীয় ত্রাণ সরবরাহের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। সভায় বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করায় তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানানো হয়। অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানসহ সকল সিনিয়র নেতৃবৃন্দ, নেতৃবৃন্দ ও কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা এবং কারাবন্দীদের মুক্তি প্রদানের দাবী জানানো হয়।

সভায় সম্প্রতি ২০ দলীয় জোটের শরীক বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এম এম আমিনুর রহমান এবং বিএনপি নেতা শাহাদাত এর গুম হওয়ার বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় এবং অবিলম্বে তাদের খুঁজে বের করে পরিবারের নিকট হস্তান্তরের দাবী জানানো হয়। সারাদেশে গুম, খুন, আটক অবস্থায় হত্যা বন্ধ করার দাবী জানানো হয়। সভায় মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনীর অবর্ণনীয় নির্যাতন, গণহত্যা, ধর্ষণ ও গৃহে অগ্নি সংযোগের কারণে নিজ ভূমি ছেড়ে প্রায় ১০ লক্ষ রোহিঙ্গা জাতিভুক্ত মানুষের বাংলাদেশের কক্সবাজারে আশ্রয় গ্রহণের ফলে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। বিতাড়িত রোহিঙ্গা অসহায় শিশু, নারী, পুরুষদের সাময়িকভাবে আশ্রয়, খাদ্য ও চিকিৎসা প্রদানের জন্য সরকার এবং জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হয়। যত দ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে নিরাপদে নাগরিকত্ব প্রদান করে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য মিয়ানমার সরকারকে বাধ্য করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য দেশগুলোকে মিয়ানমার সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে সকল ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারকে সম্ভাব্য সকল উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানানো হয়। একই সঙ্গে এই সংকট মোকাবেলার জন্য জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করা জরুরী বলে এই সভা মনে করে। সভা এই সমস্যা সমাধানে সরকারের উদ্যোগ যথেষ্ট নয় বলে মনে করে। শরণার্থী রোহিঙ্গা জনগণের অমানবিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন আগামী সপ্তাহে উখিয়া যাবেন বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। আগামী ৭ নভেম্বর ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি’ দিবস যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে পালনের জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ