ঢাকা, শুক্রবার 27 October 2017, ১২ কার্তিক ১৪২8, ৬ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

“টেকসই উন্নয়নের জন্য ‘গ্রীন প্ল্যানিং’-এর বিকল্প নেই” ---চুয়েট ভিসি

 

চট্টগ্রাম অফিস-চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) -এ জমকালো আয়োজনে নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা (আরবান এন্ড রিজিওনাল প্ল্যানিং-ইউআরপি) বিভাগের আয়োজনে ‘ইউআরপি ডে-২০১৭’ উদ্যাপিত হয়েছে। ২৬ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) দুপুরে ইউআরপি বিভাগের সামনে থেকে আনন্দর‌্যালীর মাধ্যমে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এবারের ইউআরপি ডে’র শ্লোগান নির্ধারণ করা হয়েছে- ‘প্ল্যানিং ফর বেটার ফিউচার’। এ উপলক্ষে উক্ত শিরোনামে ইউআরপি বিভাগ একটি স্যুভেনিয়র প্রকাশ করে। দিবসটি উদ্যাপন উপলক্ষে দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিভাগটি। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল- সেমিনার, টেকনিক্যাল পেপার উপস্থাপন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কনসার্ট প্রভৃতি। এর আগে দিবসটি উপলক্ষে সকাল সাড়ে ১০টায় ইউআরপি বিভাগের সেমিনার কক্ষে ‘চট্টগ্রামের সাম্প্রতিক জলাবদ্ধতা ও পরিবহণ সমস্যা’ বিষয়ে একটি গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।এ উপলক্ষে কেন্দ্রীয় অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, বর্তমান নগরায়নের যুুগে টেকসই উন্নয়নের জন্য সুষ্ঠু পরিকল্পনার বিকল্প নেই। আগামী ৫০ বছর কিংবা ১০০ বছরের পরিকল্পনা মাথায় রেখেই আমাদের দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। সেক্ষেত্রে আমাদের সাসটেইনেবল প্ল্যানিং কিংবা গ্রীন প্ল্যানিং এর প্রতি তরুণ পরিকল্পনাবিদদের মনযোগ দিতে হবে। তবেই দেশ এগিয়ে যাবে।নগর ও অঞ্চল বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. আসিফুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থাপত্য ও পরিকল্পনা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স এর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোঃ আকতার মাহমুদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী, ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হক প্রমুখ। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইউআরপি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক দেবাশীষ রায় রাজা। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন ইউআরপি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এটিএম শাহজাহান এবং প্রভাষক মিসেস খাতুন-ই-জান্নাত। পুরো আয়োজনে স্পন্সর হিসেবে ছিল ওভারসীজ মার্কেটিং কর্পোরেশন (ওএমসি), ইস্টার্ন হাউজিং লিমিটেড (ইএইচএল) এবং রয়েল সিমেন্ট লিমিটেড।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ