ঢাকা, রোববার 29 October 2017, ১৪ কার্তিক ১৪২8, ৮ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কৃষি ঋণের টাকা যাচ্ছে অন্য খাতে একবছরে খেলাপি পাঁচশ’ ৮৪ কোটি টাকা

শাহেদ মতিউর রহমান : কৃষিখাতের সহজ ঋণ নিয়ে এই অর্থ ব্যয় হচেছ অন্যখাতে। ফলে কৃষি খাতেও এখন খেলাপী ঋণ বেড়েছে অন্য সময়ের চেয়ে অনেকগুণ বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এক বছরে কৃষিখাতেই খেলাপি ঋণ বেড়েছে পাঁচশ’ ৮৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, খেলাপি ঋণে এখন জর্জরিত এখন ব্যাংক খাত। বড় ঋণের পাশাপাশি কৃষি খাতের ঋণেও বাড়ছে  খেলাপি। এক বছরের ব্যবধানে এ খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৫৮৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। চলতি অর্থবছরের সেপ্টেম্বর শেষে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ১১২ কোটি ৭০ লাখ টাকা; যা গত অর্থবছরে ছিল ৪ হাজার ৫২৯ কোটি ৭২ লাখ টাকা।
এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে দেখা গেছে, কৃষি ঋণে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোই খেলাপির শীর্ষে রয়েছে। ঋণে মোট খেলাপির ৪ হাজার ৯৪০ কোটি ১২ লাখ টাকাই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের। এছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে খেলাপির শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। বিশেষায়িত এই ব্যাংকটির খেলাপির পরিমাণ ২ হাজার ৩০৫ কোটি ২৫ লাখ টাকা। এরপরেই রয়েছে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড। ব্যাংকটির খেলাপির পরিমাণ ১ হাজার ৩৩০ কোটি ৪৫ লাখ টাকা এবং রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ৮৩৩ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।
বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, বিভিন্ন সময় অনিয়মের মাধ্যমে দেওয়া ঋণগুলো খেলাপি হচ্ছে। তবে বেসরকারি অনেক ব্যাংক এখন কৃষি ঋণ বিতরণে মনোযোগ দিয়েছে। এছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোও লক্ষ্যমাত্রার আলোকে ঋণ বিতরণ করছে। ফলে আগের চেয়ে কৃষি ঋণ বিতরণের হার অনেক বেড়েছে। এ ঋণ বিতরণে দুয়েকটা অনিয়ম হলেও গুণগত মান আগের চেয়ে বেড়েছে বলে মনে করেন তারা। অভিযোগ উঠেছে শহজ শর্তের কৃষি ঋণ নিয়ে এই অর্থ চলে যাচ্ছে অন্যখাতে। ফলে কৃষিতেও খেলাপি ঋণ বাড়ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) দেশের ব্যাংকগুলো মোট কৃষি ঋণ বিতরণ করেছে ৪ হাজার ২৩৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। অর্থবছরের তিন মাসেই লক্ষ্যমাত্রার ২০ দশমিক ৭৬ শতাংশ কৃষি ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। পুরো অর্থবছরের জন্য কৃষি ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২০ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। গত ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের একই সময়ে ৩ হাজার ৪৪৩ কোটি ৮৫ লাখ টাকা কৃষি ঋণ বিতরণ করেছিল ব্যাংকগুলো।
প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের তিন মাসে বিতরণ করা ৪ হাজার ২৩৫ কোটি টাকার মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বিশেষায়িত ব্যাংকগুলো বিতরণ করেছে প্রায় ১ হাজারা ৪৭৫ কোটি টাকা। এছাড়া বেসরকারি ও বিদেশী ব্যাংকগুলো বিতরণ করেছে ২ হাজার ৭৬০ কোটি টাকা।
কৃষি ঋণ বিতরণে শীর্ষে রয়েছে সরকারি খাতের বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে বিশেষায়িত এ ব্যাংকটি ৯০৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকার কৃষি ঋণ বিতরণ করেছে। যা মোট লক্ষ্যমাত্রার ১৮ দশমিক ৪৭ শতাংশ। পুরো অর্থবছরের জন্য এ ব্যাংকের ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ৪ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। এরপরেই রয়েছে বেসরকারি খাতের ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। ব্যাংকটি তিন মাসে প্রায় ৩৪৩ কোটি টাকার কৃষি ঋণ বিতরণ করেছে। যা লক্ষ্যমাত্রার ২৯ দশমিক ৬২ শতাংশ। কৃষি ঋণ বিতরণে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড। ব্যাংকটি প্রায় ২৫৮ কোটি টাকার কৃষি ঋণ বিতরণ করেছে। অর্থবছরের তিন মাসেই লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১১ দশমিক ৬০ শতাংশ বেশি ঋণ বিতরণ করেছে ব্যাংকটি। পুরো অর্থবছরের জন্য ব্যাংকটির লক্ষ্যমাত্রা ২৩১ কোটি টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ