ঢাকা, সোমবার 30 October 2017, ১৫ কার্তিক ১৪২8, ৯ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কাতালোনিয়া ইস্যুতে সংকটে ইউরোপও

২৯ অক্টোবর, বিবিসি : কাতালোনিয়া অঞ্চলের স্বাধীনতা ঘোষণাকে কেন্দ্র করে স্পেনে উত্তেজনা বাড়ছে। স্পেনের সরকার কাতালান আঞ্চলিক সরকার ভেঙে দিয়ে পুজডেমনকে তার পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে। কিন্তু তারপরও তিনি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেতে পারবেন বলে মনে করছেন স্পেনের একজন কর্মকর্তা।অন্যদিকে কাতালান সরকার পুজডেমন কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে এক গণতান্ত্রিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার ডাক দিয়েছেন। কাতালান স্বাধীনতার বিপক্ষে সমাবেশ করেছে স্পেনের জনগণ। এই সংকটে আইনগত নিষ্পত্তি কিভাবে হতে পারে? এ সম্পর্কে বিবিসির তাকে বলা হয় এটা স্পেনের জন্য বিশাল একটা সংকট বলা যায়, কারণ শুধু স্পেন না ইউরোপের ইউনিয়নের জন্যও সংকট। এই প্রথম একটি দেশের একটা অঞ্চল আলাদাভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করল। এটা সাংবিধানিকভাবে সংকট এবং ইউরোপের ক্ষেত্রে সংকট।
নতুন নির্বাচন দিয়ে এর সমাধান কী হতে পারে বা কাতালোনিয়ারা যদি নির্বাচন বয়কট করে তাহলে কী হতে পারে?এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নতুন নির্বাচন দিয়ে সংকট হবে কি হবে না সেটা নির্ভর করছে, আসলে কী পরিমাণ লোক নতুন নির্বাচনের পক্ষে বা বিপক্ষে রয়েছে, কিভাবে তারা অংশ গ্রহণ করে। ব্যাপক আকারে না কি নেতারা যেভাবে এর আগে গণভোট হয়েছে, সে গণভোটের যে ব্যাপারটা সেই একই দৃষ্টিভঙ্গিতে তারা এই ভোটটা নেয়। এখনো পর্যন্ত পরিষ্কার করে বলা যাবে না। এটা এমনো হতে পারে এই সংকটটা আরো ঘণিভূত করতে পারে। তাদের যদি সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ কাতালোনিয়াকেই ভোটটা দেয়। কারণ তারা অনেক বিরক্ত আসলে বলা যায় স্পেনের ব্যাপারে অনেকেই। এটা এই মুহূর্তে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাবে না। এই নির্বাচনের বাইরে মাদ্রিদের কাছে আর কী বিকল্প রয়েছে?
তিনি বলেন, মাদ্রিদের শাসনতন্ত্রের যে ক্ষমতা আছে, সেটা তারা সরাসরি কন্ট্রোল করে নিয়েছে। তারা সেখানকার প্রেসিডেন্ট এবং সংসদ, মন্ত্রিসভা সবগুলোকে বাতিল করেছে। এই প্রথম তারা এটি করল। স্পেনের আইনের সংবিধানে এটা সম্ভব। কিন্তু কখনো স্পেন এই আইনটি প্রয়োগ করে নাই। এবার তারা আইনটি প্রয়োগ করেছে। এটা মাদ্রিদের জন্য সাংবিধানিক দিক থেকে যে রকম চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার।
আজ সোমবারে যখন অফিস খুলবে তখন কোন সরকার ঐখানে বসবে। কোন অথরিটিস ওই অঞ্চলটার দায়িত্বে থাকবে। এটা আজ থেকেই বোঝা যাবে যে এটা কি স্পেনের আইন চলছে সেখানে, নাকি কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা তারা এটার দায়িত্বে থাকবে।এখন মাদ্রিদ সরকার যদি শক্তি প্রয়োগ করে কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে যায়। তাহলে আন্তর্জাতিক বা ইউরোপি আইনে সেটি কি বৈধতা পাবে?এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই পর্যন্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের যে মতামত সেটা হচ্ছে যে, এটা স্পেনের অভ্যন্তরীণ একটা ব্যাপার কাজে তারা এই মুহূর্তে আনুষ্ঠানিক কোনো পদক্ষেপ তার নিচ্ছে না। যুক্তরাষ্ট্রেরও একই রকম পদক্ষেপ। কিন্তু কিছু দিন পরে তাদেরকে এ সম্পর্কের বিষয়ে একটা সিদ্ধান্তে আসতে হবে তাদেরকে। যদি সামরিক শক্তি প্রয়োগ করতে হয়। স্পেনিশ মিলিটারী যারা রয়েছে, তারা যদি গিয়ে সরাসরি এই কর্তৃত্ব বহাল রাখার চেষ্টা করে এবং সেখানে যদি কোনো ধরণের সংঘর্ষ হয়। যেমন ভোটের সময় সংঘর্ষ হয়েছে তাহলে ঘটনাগুলো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে। তবে কেউই হয়তো আশা করছে না কারণ এতো সমৃদ্ধশালী একটা এলাকা সেখানে এই ধরনের সশস্ত্র, সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপ প্রত্যাশা করছে না।
কিন্তু এটা সম্ভব।কাতালোনিয়ানদের বিশেষ করে পুজডেমনের আইনি কাঠামোর ভেতরে থেকে কিছু করার রয়েছে? কাতালোনিয়ারাতো বলছে,তারা স্পেনের আইনি কাঠামোর ভেতরে নেই।এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,পুজডেমনের সংসদ যে স্বাধীনতা ঘোষণা করে দিল অথাৎ তারা এক স্পেনের সংবিধানকে তারা অস্বীকার করছে নিজেরা। স্বতন্ত্র প্রজাতন্ত্র হয়ে গেল তারা। কাজেই তারা এখন আর স্পেনের সংবিধানের ভেতরে নেই বা স্পেনের সাথে নেই। এই ঘোষণাটা হলো প্রথম সংবিধান এই ঘোষণার বিভিত্তে পরবর্তীতে ধাপগুলো চালানো কথা তাদের। সেকশনাল ব্যাপার কিন্তু রিয়ালিটি অনেকটু নির্ভর করে তারা। এটা কি ধরে রাখতে পারবে নাকি পারবে না তারা। স্পেন তার অধিকার এবং ক্ষমতা বল প্রয়োগে হোক আর যেভাবেই হোক তারা তাদের অধিকারকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে পারবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ