ঢাকা, সোমবার 30 October 2017, ১৫ কার্তিক ১৪২8, ৯ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ওয়ার্ল্ড সিক্সেস টুর্নামেন্টে অস্ট্রেলিয়া ও এমসিসির কাছে হারল বাংলাদেশ

স্পোর্টস রিপোর্টার : হংকং ওয়ার্ল্ড সিক্সেস টুর্নামেন্টে এবার অস্ট্রেলিয়া ও এমসিসির কাছে হারল বাংলাদেশ। প্রথম দিন তিন ম্যাচের দুটিতেই জিতেছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশ হারিয়েছিল শ্রীলংকা ও অস্ট্রেলিয়াকে। তবে গতকাল দ্বিতীয় দিনে পারল না বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৪ উইকেটে হারের পর প্লেট সেমিইনালে এমসিসির কাছেও হেরেছে একই ব্যবধানে। গতকাল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আগে ব্যাট করতে নেমে মাহিদুল ইসলাম অঙ্কনের ৩০ ও আফিফ হোসেনের ১৪ রানের সুবাদে নির্ধারিত ৫ ওভারে ৮৪ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। জবাবে ৪ উইকেট আর ৪ বল বাকি থাকতেই জয় পায় জন হ্যাস্টিংয়ের অস্ট্রেলিয়া।
নাথান রিয়ারডন অপরাজিত ৩১ ও মাথু শর্ট ৩১ ও অ্যালেক্স গ্রেগ্ররি করেন অপরাজিত ১৭ রান। বাংলাদেশের হয়ে একমাত্র উইকেটটি নেন মনিরুল ইসলাম। দ্বিতীয় প্লেট সেমিফাইনালে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের (এমসিসি) বিপক্ষেও আগে ব্যাট করতে নেমেছিল বাংলাদেশ। তবে নির্ধারিত ৫ ওভারে ২ উইকেটে ৭৩ রানের বেশি করতে পারেনি। সর্বোচ্চ ৩১ রান করেন আফিফ। অঙ্কন করেন অপরাজিত ১৮ রান। বাংলাদেশের সেই রান এমসিসি পেরিয়ে যায় ১০ বল বাকি থাকতেই। এমসিসির সামিত প্যাটেল ২৭ ও ড্যারেন স্টিভেনস ২১ রানে অপরাজিত ছিলেন। বাংলাদেশের হয়ে একমাত্র উইকেটটা নেন আফিফ। দুই দিনের এই টুর্নামেন্টে আজ চ্যাম্পিয়নশিপও নির্ধারণ হয়ে গেছে। ফাইনালে পাকিস্তানকে ২ উইকেটে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। আগে ব্যাট করতে নেমে সোহেল খানের ১৪ বলে ৪৬ রানে এক বল বাকি থাকতে অলআউট হওয়ার আগে ১২৩ রান করেছিল পাকিস্তান। লক্ষ্য তাড়ায় শেষ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন ছিল ১৭, যেটি শেষ বলে দাঁড়ায় ৪ রানে। শেষ বলে চার হাঁকিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে জয় এনে দেন অব্রে সোয়ানপয়েল। ৯ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় সোয়ানপয়েল ৩৮ রানে অপরাজিত ছিলেন। টুর্নামেন্টটা অবশ্য জাতীয় দলের নয়। তবে টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছিল টেস্ট খেলুড়ে ছয় দল। জাতীয় দলের বর্তমান ও প্রাক্তন খেলোয়াড় এবং বয়সভিত্তিক দলের ক্রিকেটারই খেলেছেন। মোট আটটি দল দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে খেলেছে। টেস্ট খেলুড়ে ছয় দল অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, দক্ষিণ আফ্রিকা ও বাংলাদেশের সঙ্গে ছিল স্বাগতিক হংকং ও এমসিসি। প্রতি দলে খেলেছে ছয়জন করে। সাইফের নেতৃত্বে বাংলাদেশের হয়ে খেলা ছয়জনই অনূর্ধ্ব-১৯ দলের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ