ঢাকা, সোমবার 30 October 2017, ১৫ কার্তিক ১৪২8, ৯ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কুষ্টিয়া সিটি কলেজে গোপনে আবারও নির্বাচনের পাঁয়তারা ॥ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকমহলে হতাশা

কুমারখালী (কুষ্টিয়া): কুষ্টিয়া সিটি কলেজ -সংগ্রাম

কুমারখালী (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা: উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার প্রদত্ত নির্বাচনী তফ্সিল সম্পূর্ণরূপে গোপনীয়তা অবলম্বণের মধ্যদিয়ে বিনা-প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পছন্দের ব্যক্তিদেরকে নির্বাচিত করতে আবারও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড যশোরের প্রবিধানমালা লঙ্ঘন করে কুষ্টিয়া সিটি কলেজ পরিচালনা-পর্ষদ গঠনের প্রক্রিয়া ইতোমধ্যেই সম্পন্ন করার অপপ্রয়াস অব্যাহত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ৩১মে’র অনিয়মতান্ত্রিক নির্বাচন বাতিল হওয়ার প্রেক্ষাপটে এবারও হতাশা বিরাজ করছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকমহলে।
উল্লেখ্য যে, কুষ্টিয়া-রাজবাড়ি সড়ক পার্শ্ববর্তী নির্মাণাধীন কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ সংলগ্নে অবস্থিত কুষ্টিয়া সিটি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আন্তাজ উদ্দিন নিজ স্বার্থ-চরিতার্থ করতে কুটকৌশলে বিনা-প্রতিদ্বন্দিতায় পছন্দের ব্যক্তিদেরকে নির্বাচিত করার লক্ষ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড যশোরের প্রবিধানমালার ২০০৯এর ১২ (৩) ও (৬) ধারা, ২০(১) ও (২) ধারা, ১৬(ঘ) ধারা, ১৭(২) ধারা, ৪(ঘ) ও (ঙ) ধারা এবং ২(চ) এর (আ) ধারা লঙ্ঘন করে কলেজ পরিচালনা-পর্ষদ গঠনের প্রক্রিয়া কাগজে-কলমে সম্পন্ন করে অনুমোদনের জন্য বোর্ডে পাঠায়। ন্যাক্কারজনক এই অনিয়মের খবর কয়েকটি স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিক সংগ্রামে গত ৫ই জুন প্রকাশ পায়। প্রেক্ষিতে, গভর্নিং বডি গঠনে প্রবিধানমালার ২০০৯ এর ৪(ঘ) ধারা সুস্পষ্টভাবে লঙ্ঘনের অভিযোগে দাখিলকৃত ওই গভর্নিং বডি বাতিল করে বিধি মোতাবেক পরবর্তী পরিচালনা পর্ষদ গঠনের লক্ষ্যে এডহক কমিটি গঠনের অনুমতি প্রদান করে যশোর বোর্ড কর্তৃপক্ষ। পরে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক জহির রায়হানকে সভাপতি করে ৪ সদস্যের একটি এ্যাডহক কমিটি গঠন করা হয়। এবার কুষ্টিয়া সিটি কলেজের নির্বাচনী তফ্সিল তৈরীর পর ঘোষণা না করে আবারও সম্পূর্ণরূপে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে গোপনীয়তা অবলম্বণের মধ্যদিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড যশোর’র প্রবিধানমালা লঙ্ঘনের অপপ্রয়াসে মত্ত খোদ সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফজলুল হক।
শিক্ষার্থীরা বলছে, কলেজে নির্বাচন প্রসঙ্গে আমরা কিছু শুনিনাই এবং নোটিস বোর্ডেও তেমন কিছুই আমরা দেখিনি। তবে, গোপনভাবে নির্বাচন সম্পন্ন হলে অবশ্যই কলেজের ভবিষ্যৎ ক্ষতিগ্রস্থ হবে। এজন্য পূর্বের মতো এবারও এই নির্বাচন বাতিল করা জরুরি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজের একাদশ শ্রেণীর একাধিক অভিভাবক বলেন, একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেলাম গোপনে কুষ্টিয়া সিটি কলেজের গভর্ণিং বডি গঠনের প্রক্রিয়া চলছে। কলেজের নোটিস বোর্ডে তফসিলসহ নির্বাচনসংক্রান্ত কোনো কিছুই দেখতে পাইনি আমাদের ছেলেমেয়েরা। একইসাথে সদস্যপদে নির্বাচনে অংশগ্রহণের আশায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়েও নির্বাচনী তফ্সিল দেখতে না পেয়ে আমরা দারুণভাবে হতবাক হয়েছি। এ অবস্থায় ৭-৮দিন অতিবাহিত হয়ে গেল। হয়তো এরই মধ্যে কাগজে-কলমে গভর্নিং বডি তৈরী করে অনুমোদনের জন্য বোর্ডে পাঠিয়ে দিতেও পারে এমন আশংকা করে সম্পূর্ণরুপে অনিয়মতান্ত্রিক এই নির্বাচন যেন পূর্বের মতোই অনুমোদন না দিয়ে যথাযথ ও বোর্ডের প্রবিধানসম্মত নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা দাবি করেন তাঁরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ