ঢাকা, বৃহস্পতিবার 2 November 2017, ১৮ কার্তিক ১৪২8, ১২ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হেলিকপ্টার কিনতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে নতুন চুক্তি করছে পাকিস্তান

১ নভেম্বর, এক্সপ্রেস ট্রিবিউন, সাউথ এশিয়ান মনিটর: কেন্দ্রশাসিত উপজাতীয় এলাকা (ফাটা) ও বেলুচিস্তানে মাদক-বিরোধী অপারেশনে ব্যবহারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে অজ্ঞাত সংখ্যক হেলিকপ্টার কেনার জন্য চুক্তি স্বাক্ষরের চেষ্টা করছে পাকিস্তান। ২০০২ সালে এক চুক্তিবলে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে পাকিস্তান যে নয়টি হুয়ে-২ হেলিকপ্টার পেয়েছিলো সেগুলোর চারটি অক্টোবরের প্রথম দিকে এবং বাকি পাঁচটি ৩১ অক্টোবর ফেরত দেয়। ওই চুক্তি অনুযায়ী পাকিস্তান আরো তিনটি সেসনা বিমান পেয়েছিলো।  মূলত মাদক-পাচার রোধের কাজে এসব হেলিকপ্টার ও বিমান ব্যবহার করা হলেও সেগুলো ফাটা ও বেলুচিস্তান প্রদেশের সীমান্ত এলাকায় নজরদারির কাজেও ব্যবহার করা হয়।
চুক্তি অনুযায়ী মেয়াদ শেষে সরঞ্জামগুলো কিনে নেয়া বা ফেরত পাঠানোর অপশন ছিলো পাকিস্তানের জন্য। পাকিস্তান হেলিক্টারগুলো ফেরত পাঠালেও তিনটি সেসনা কিনে নেয়। যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে হেলিকপ্টারগুলো তৃতীয় পক্ষের কাছে বিক্রির নিন্দেশ দিয়েছে। তাই পাকিস্তান হেলিকপ্টার কেনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে নতুন চুক্তি করতে চাইছে।
সম্প্রতি পাকিস্তানের নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহসান ইকবাল তার মন্ত্রণালয়ের জন্য হেলিকপ্টার কিনতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা চালানোর জন্য ওয়াশিংটনে ইসলামাদ দূতাবাসকে বার্তা পাঠান। ইকবালের পূর্বসূরি চৌধুরি নিসার এ ধরনের চুক্তির বিপক্ষে থাকতেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ তিনি তার মন্ত্রণালয়ে অধিক বিদেশী চিহ্ন পচ্ছন্দ করতেন না।
ইকবাল মনে করেন নিরাপত্তা একটি সর্বব্যাপী ধারণা এবং মাদক ও সন্ত্রাসদমন লড়াইয়ের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। অন্যদিকে, হেলিকপ্টার কেনার ব্যাপারে ইকবালের আগ্রহকে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের সহযোগিতায় যে নতুন ঢেউ তৈরি হয়েছে তার অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।
তাই ওয়াশিংটন ও পাকিস্তানের মধ্যে অনেক মতভেদ থাকার পরও আফগান-পাক সীমান্ত থেকে সন্ত্রাসবাদ নির্মূল করতে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা জোরদারের বিষয়টি বিশ্লেষকদের নজর কেড়েছে। মাদক চোরাচালান বন্ধে কার্যকর আঘাত হানা গেলে এর রেশ হবে সুদূর প্রসারি।
মাদক চোরাচালান ও সন্ত্রাসী-অর্থায়নের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র ভালোভাবে অবগত থাকায় যুক্তরাষ্ট্র নিশ্চিতভাবে পাকিস্তানের সঙ্গে হেলিকপ্টার বিক্রি চুক্তি করবে বলে কূটনৈতিক সূত্রগুলো মনে করেন।
তল্লাসি ও উদ্ধার অভিযান চালানোর ক্ষেত্রে বেল হেলি-২ হেলিকপ্টারগুলো আদর্শ। এগুলো বিভিন্ন অপারেশনের উপযুক্ত করে সজ্জিত হওয়ায় অন্যান্য কাজেও ব্যবহার করা যায়।
মাদক-বিরোধী অপারেশন পরিচালনার জন্য যুক্তরাষ্ট্র মক্সিকোর কাছে ২৪টি বেল হেলিকপ্টার বিক্রি করেছে। দেশটির পার্বত্য এলাকায় মারিজুয়ানা ও পপির ক্ষেতগুলো চিহ্নিত, সেগুলোর ওপর রাসায়নিক পদার্থ ছিটানো ও ধ্বংস করার কাজে এগুলো ব্যবহার করা হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ