ঢাকা, বৃহস্পতিবার 2 November 2017, ১৮ কার্তিক ১৪২8, ১২ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সাতক্ষীরায় ইউপি চেয়ারম্যানের স্ত্রী স্বামীর বিচার দাবিতে দ্বারে দ্বারে

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা : স্ত্রীর অধিকার পেতে সাতক্ষীরার তালা উপজেলার সরুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। ক্ষমতাসীন সরকারের প্রভাব খাটিয়ে তিনি নারী নির্যাতন করছে বলে অভিযোগ করেছে তার স্ত্রী। দ্বিতীয় স্ত্রী শাহিনাকে হত্যার হুমকিসহ নগদ ১০ লাখ টাকা ও ১৪ ভরি স্বর্ণালংকার হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বর্তমানে বিচারের দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের দ্বিতীয় স্ত্রী শাহিনা বেগম।
চেয়ারম্যানের অত্যাচারের হাত থেকে রক্ষা পেতে পাটকেলঘাটা থানায় সাধারণ ডায়েরিও করেছেন শাহিনা বেগম। যার নং- ৫১০।
শাহিনা বেগম জানান, পাটকেলঘাটা বাজারের বিক্রমপুর টেইলার্সের মালিক সিদ্দীকুর রহমানের সঙ্গে বিয়ের পর পাটকেলঘাটার শাঁকদাহ গ্রামে বসবাস শুরু করেন তারা। তাদের সংসারে দুটি সন্তান রয়েছে। বড় ছেলে সাব্বির আহম্মেদ বর্তমানে খুলনায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ছে। আর ছোট ছেলে তানভির আহমেদ সাতক্ষীরার একটি হাফিজিয়া মাদরাসায় লেখাপড়া করছে। কিন্তু কিছুদিন পর বিভিন্ন কারণে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে।
এ সময় হঠাৎ করেই পরিচয় হয় চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমানের সঙ্গে। চেয়ারম্যান যাতায়াত শুরু করে তার বাড়িতে। এক পর্যায়ে ২০১৩ সালে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের আগের শাহিনার দুই সন্তানকে লালন পালন ও সুশিক্ষিত করার দায়ভারও গ্রহণ করেন চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান। বিয়ের কিছুদিন ভালোভাবে কাটলেও তা বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। সুচতুর মতিয়ার রহমানের নজর পড়ে তার রক্ষিত অলঙ্কার ও অর্থের দিকে। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তাকে নানাভাবে শারিরিক মানসিক নির্যাতন শুরু করে ও তার ভরণ-পোষণ ও বাচ্চাদের খরচ বন্ধ করে দেয়।
এসবের প্রতিবাদ করলে পেটুয়া বাহিনীর প্রধান হাফিজুর রহমান ও বড়বিলা গ্রামের মাহাফুজুর রহমান মধুর নেতৃত্বে গত ৯ ফেব্রুয়ারি ভয়ভীতি দেখিয়ে বাসায় হামলা চালিয়ে জোরপূর্বক তালাকের কাগজে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়। এ ঘটনায় পাটকেলঘাটা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন শাহিনা। বর্তমানে তাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। ২০ অক্টোবর চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করতে গেলে থানার ওসি জাকির হোসেন কোনো আইনি সহায়তা দেননি বলে অভিযোগ করেন শাহিনা বেগম। এসব অভিযোগে সাতক্ষীরা প্রসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে শাহিনা বেগম।
তবে অভিযুক্ত সরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান বলেন, আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আমার কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করে আসছে শাহিনা। রাস্তাঘাটে আমাকে সামাজিকভাবে হেয় করার চেষ্টা করছে। এ নিয়ে আমি পাটকেলঘাটা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছি। আমি তাকে বিয়ে করলেও পরবর্তীতে তালাক দিয়েছি ও দেনমোহরের টাকা পরিশোধ করেছি। বর্তমানে সে আমার কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করছে। আমার মান সম্মান নিয়ে খেলছে।
এ বিষয়ে পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)জাকির হোসেন বলেন, ওই নারী মোটেও সুবিধার না। বেশ কয়েকটি বিয়ে করেছে সে। চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমানের সঙ্গে বিয়ে করেছে আবার তালাকও দিয়েছে। এখন টাকা দাবি করে। টাকা দিলে আবার সব ঠিক হয়ে যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ