ঢাকা, শুক্রবার 3 November 2017, ১৯ কার্তিক ১৪২8, ১৩ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য সোচ্চার হওয়ার আহবান

সংসদ রিপোর্টার: জাতীয় সংসদের স্পিকার ও সিপিএ নির্বাহী কমিটির চেয়ারপারসন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য সোচ্চার হোন। বিভিন্ন গ্লোবাল ফোরামে বিষয়টি উত্থাপন করুন।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে হোটেল রেডিশন ব্লুতে সিপিএ’র ৩৬তম স্মল ব্রাঞ্চেস কনফারেন্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। এটি স্মল ব্রাঞ্চের ৩৬তম সম্মেলন। পাঁচ লাখের নিচে জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত দেশগুলো নিয়ে কমনওয়েলথভুক্ত দেশসমূহ নিয়ে গঠিত এই স্মল ব্রাঞ্চ।

সিপিএ স্মল ব্রাঞ্চ চেয়ারপারসন ও মাল্টা সংসদের স্পিকার এঞ্জেলো ফারুগিয়া (অহমবষড় ঋধৎৎঁমরধ) অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। এ ছাড়া সিপিএ সেক্রেটারি জেনারেল আকবর খান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

স্পিকার বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের চর্চা ও বিকাশে স্মল ব্রাঞ্চেস দেশগুলোর সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে সিপিএ। তরুণ প্রজন্মকে রাজনীতিতে আগ্রহী করে তুলতে ও সংসদীয় রীতিনীতিতে তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সিপিএ বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এ জন্য বিভিন্ন সময় ইয়ংদের নিয়ে রোড শো করা হয়। রাজনীতিতে তরুণদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশন (সিপিএ) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

তিনি বলেন, তরুণ প্রজন্ম রাজনীতিতে আসলে আইন প্রণয়ন ও নীতি নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। স্মল ব্রাঞ্চেস দেশগুলো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা, পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে বৃহত্তর স্বার্থে সিপিএ কাজ করবে। তিনি সিপিএ স্মল ব্রাঞ্চেস’র প্রথম নির্বাচিত চেয়ারপারসন ও মাল্টা সংসদের স্পিকার এঞ্জেলো ফারুগিয়াকে অভিনন্দন জানান। বলেন, তিন বছর সিপিএ’র দায়িত্ব পালনকালে তিনি সংস্থার উন্নয়নে সব সময় কাজ করেছেন।

স্পিকার বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন জীবনযাত্রাকে পরিবর্তন করে দিচ্ছে। বাংলাদেশ জলবায়ুর পরিবর্তন জনিত কারণে ক্ষতির হুমকিতে থাকা দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। প্যারিস চুক্তির আলোকে জলবায়ুর অভিঘাত ও ক্ষতি মোকাবেলায় উন্নত দেশগুলোকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

শিরীন শারমিন বলেন, এ কনফারেন্সের মাধ্যমে স্মল ব্রাঞ্চের দেশগুলোর একত্র হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। এর মাধ্যমে ব্রাঞ্চের দেশগুলোর মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ও অভিজ্ঞতা বিনিময় সম্ভব হবে যা পরবর্তীতে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিনি আরও বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে পার্লামেন্টের ভূমিকা রয়েছে। জনগণের ক্ষমতায়ন নিশ্চিতকরণে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার পাশাপাশি সুশাসন নিশ্চিত করতে সিপিএ’র পার্লামেন্টসমূহ কাজ করছে।

এদিকে রাজধানীর হোটেল রেডিসন ব্লুতে স্মল ব্রাঞ্চের বৈঠক শেষে সিপিএ স্মল ব্রাঞ্চের চেয়ারপারসন ও মাল্টা সংসদের স্পিকার এঞ্জেলো ফারুগিয়া বলেছেন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং উপযুক্ত দিক নির্দেশনার অভাবে যুবারা রাজনীতিতে আসতে নিরুৎসাহিত হচ্ছে। এ সব কারণে আমার তাদেরকে রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করাতে পারছি না।

তিনি বলেন, সিপিএ অন্তর্ভুক্ত ৪৩টি দেশ রয়েছে যাদের জনসংখ্যা ৫ লাখের নিচে। এ সব দেশকে সিপিএ’র ‘স্মল ব্রাঞ্চ’ হিসেবে গণ্য করা হয়।

তিনি বলেন, তরুণ প্রজন্ম রাজনীতিতে আসলে আইন প্রণয়ন ও নীতি নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে।

এঞ্জেলো ফারুগিয়া বলেন, স্মল ব্রাঞ্চের দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সেমিনারে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। এর মধ্যে তিনটি ইস্যু গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত হয়। এগুলো হচ্ছে, নারীদের জন্য সমান সুযোগ সৃ্ষ্িট করা, জলবায়ু পরিবর্তন, রাজনীতিতে তরুণ প্রজন্মের অংশগ্রহণ ও প্রতিবন্ধি জনগোষ্ঠীদের সমাজের মূল স্রোতে আনা।

তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ভৌগলিকভাবে জীবনযাত্রা পরিবর্তিত হচ্ছে। ক্ষতি মোকাবেলায় উন্নত দেশগুলোকে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে। সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

৬৩টি দেশ সিপিএ অন্তর্ভুক্ত হলেও ৪৩টি দেশ স্মল ব্রাঞ্চের অন্তর্ভুক্ত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ