ঢাকা, শনিবার 18 November 2017, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২8, ২৮ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শিশুশিক্ষা বিষয়ক পদ্ধতি ও কিছুকথা

আমানুল্লাহ : প্রতিটি শিশুর প্রাথমিক শিক্ষাটা শুরু হয় পরিবার থেকে। মায়ের কাছেই শিশুর লেখাপড়ার হাতেখড়ি হয়ে থাকে। তবে পড়তে কিংবা লিখতে শেখার শুরুতে শিশুকে নিয়ে নানারকম ঝামেলা পোহাতে হয় কমবেশি সব বাবা-মাকেই। তাই একটু ধৈর্য ধরে আর খানিকটা কৌশলে পড়াতে হবে শিশুকে। শিশুর সাথে আচরণে সহনশীল ও মার্জিত হতে হবে। শিশুর সামনে এমন কিছু কথা বলা যাবে না যা তার মুখ থেকে শুনলে আপনি অবাক হবেন। কারণ শিশুরা অনুকরণীয়।
শুদ্ধ বাংলা শেখানো : বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। স্বাভাবিকভাবেই সন্তানকে শুদ্ধ বাংলাটা শেখানো প্রতিটি পরিবারের দায়িত্ব। জীবনের প্রয়োজনে ইংরেজিটা শিখতে হবে সত্য, কিন্তু রক্ত দিয়ে অর্জন করা এ বাংলাভাষার প্রতি গুরুত্ব দেয়াটা খুব জরুরি। মাকে সহনশীল হতে হবে: বাচ্চার লেখাপড়ার শুরুর দিকে মাকে অবশ্যই সহনশীল হতে হবে। বাচ্চা পড়তে না চাইলে, কাঁদলে বা বিরক্ত করলে মাকে ধৈর্য অবলম্বন করতে হবে। দেখা যায় যে শিশুটি দিব্যি মনের আনন্দে আর স্বাভাবিক চঞ্চলতা নিয়েই ঘুরে বেড়াচ্ছে সারাদিন। অথচ পড়তে বসলে সেই শিশুর মাথাতেই কোথা থেকে যেন ভর করে রাজ্যের দুষ্টুমি। কখনও ঘুমের ভান করে আবার কখনও বা টিভি দেখার বায়না ধরে আপনার লক্ষ্মী ছেলে-মেয়েটিই। শিশুর এই শিশুতোষ গোলমালে হুট করেই মেজাজ হারিয়ে ফেলা যাবে না কখনোই। অনেককেই দেখা যায় অহেতুক শাসনের পাশাপাশি গায়ে হাত পর্যন্ত তোলেন যার বাস্তবিক অর্থে কোনো ফলাফল নেই। পড়াশোনা শুরু করার এই প্রাথমিক ধাপটা আনন্দদায়ক করার দায়িত্ব অবশ্যই পিতামাতার। উপযুক্ত পরিবেশ: সাধারণত তিন থেকে পাঁচ বছর বয়সেই অধিকাংশ শিশুর লেখাপড়ায় হাতেখড়িটা আরম্ভ হয়। শিশুর লেখাপড়া শেখার জন্য পরিবেশও অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অনুকরণ-প্রিয় শিশুরা তাদের আশপাশের অনেক কিছু দেখে শিখতে থাকে। শিশুর শিক্ষার পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে বাবা-মাকেই। অনেক সময় দেখা যায় আপনি তাকে পড়তে বলে নিজে টিভি দেখতে বসে যান, যা শিশুর পড়াশোনায় অনীহার সৃষ্টি করে। শিশুর বই পড়ার সময়টা শিশুর পাশে থেকে তাকে বোঝান যে পড়ালেখার এই সময়টাকে আপনিও গুরুত্বের সঙ্গেই নিচ্ছেন। সম্ভব হলে শিশুর জন্য আলাদা একটি পড়ার রুমের ব্যবস্থা করুন। আপনি ইচ্ছে করলে শিশু যে রুমে ঘুমায়, সেই রুমের কোনায় একটি পড়ার টেবিল দিয়ে দিন।
কৌশলে পড়াশোনায় আগ্রহী করা : যে বয়সে শিশুর খেলাধুলা করার কথা ওই বয়সে পড়তে বসালে শিশুদের বিরক্ত হওয়াটাই স্বাভাবিক। কাজেই শিশুর আনুষ্ঠানিক পড়াশোনা শুরুর বেশ অনেকদিন আগে থেকেই তাকে একটু একটু করে পড়াশোনার বিভিন্ন বিষয়গুলোর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে হবে। খেলার ছলে শিশুকে বিভিন্ন ছড়া শোনানোর মাধ্যমে তাকে বিষয়গুলোর প্রতি আগ্রহী করে তুলতে হবে। শিশুর মাঝে যদি গল্প শোনার ঝোঁক থাকে তাহলে তাকে পাশে নিয়ে কোনো একটি বই থেকে শিশুকে মজার মজার গল্প পড়ে শোনান। এক্ষেত্রে গল্পগুলো যদি শিশুর ভালো লাগে তাহলে সে নিজেও গল্প পড়ার জন্য কীভাবে বানান করে পড়তে হয় তা শিখতে আগ্রহী হবে। এভাবে শিশুকে আনুষ্ঠানিক শিক্ষাদানের আগে তৈরি করে নিতে হবে। সৎসঙ্গ ও ভালো পরিবেশ দান: কথায় আছে সৎসঙ্গে স্বর্গবাস আর অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ। তাই শিশুর মধ্যে বাল্যকাল থেকে ভালো অভ্যাসগুলো গড়ে তুলতে অবশ্যই সঙ্গী নির্বাচনে নির্ভুল হতে হবে। মা-বাবাকে এ ব্যাপারে সন্তানকে স্কুলে ভর্তির সময় থেকে সাবধান ও সচেতন করতে হবে। যেসব ছাত্র লেখাপড়ায় ভালো, নিয়মিত ক্লাস করে, মেধাবী হিসেবে পরিচিত, আচার-আচরণ ভালো, খেলাধুলা করে, লেখাপড়ার পাশাপাশি উন্নয়নমূলক চর্চা করে এমন ভালো ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে বাচ্চাকে মিশতে উদ্বুদ্ধ করুন। সন্তানের খোঁজ-খবর: সন্তানের খোঁজ-খবর নিতে প্রতিদিন সন্ধায় পড়তে বসলো কিনা, প্রতিদিনের ক্লাসের পড়া সময় বন্টন করে পড়ছে কিনা এবং  অন্তত সপ্তাহে একবার হলেও স্কুলে গিয়ে দেখে আসবেন আপনার সন্তানের অবস্থা। শিক্ষকবৃন্দের সাথে শিশুর ভাল-মন্দ নিয়ে কিছু জানুন এবং প্রয়োজনে শিক্ষকদের কাছ থেকে পরামর্শ নিন। আজকের শিশুরাই হবে আগামী প্রজন্মের মহানায়ক। আমাদের শিশুরা অনেক বড় হবে। স্বপ্ন কমবেশি সবাই দেখে। স্বপ্নের পিছু ছুটতে গিয়ে আমরা বোধহয় ভুলে যাই ছোট্ট সোনামণিরা আমাদের মতোই মানুষ। অবুঝ শিশু অবুঝ প্রাণির মতো অরক্ষিত, নির্ভরশীল। তাদের চলমান পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মেলানোর জন্য সবচেয়ে শক্তিশালী হাতিয়ার হচ্ছে শিক্ষা। শিশুর খাবার: শিশুর খাবার হতে হবে পুষ্টিকর। প্রতিদিন নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার দিতে হবে। প্রয়োজন মাফিক খাবার খাওয়াতে হবে। শিশুর ক্ষুধা নেই, খাবার সামনে আনলে মুখ ফিরিয়ে নেয়, অনেক সময় একই খাবার খেতে খেতে বিরক্তি প্রকাশ করে, জোর করে খাওয়ালে বমি করে বা খাবার ফেলে দেয়, তবুও মেরে মেরে খাওয়ানো হয়, যা সঠিক নয়। অভিভাবকদের বলতে শোনা যায়, ‘খা, খাবি না কেন? এত কম খেলে কেমনে বড় হবি?’ আমরা বড়রা বুঝতে চাই না, শিশুর খাবারের থলি কত বড়। বয়সভিত্তিক পড়তে আগ্রহী করা: শিশুর প্রথম পাঠ বর্ণমালা হওয়ায় সে লেখাপড়ায় আনন্দ অনুভব করে না। ফলে লেখাপড়ায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। দুই বছরের শিশু প্রথমে ধীরে ধীরে বিভিন্ন বস্তুর নাম বলবে। অনেক সময় নাম না বলতে পারলেও কিছু জিনিস চিনতে শেখে। অভিভাবকদের ফরমায়েশ পালনের মাধ্যমে অনেক জিনিস চিনতে ও নাম বলতে শেখে। তিন বছরের শিশুর ক্ষেত্রে ছোট ছড়া, গান, অভিনয় ও আনন্দের মাধ্যমে শিক্ষা শুরু করতে হবে। এ বয়সে শিশুরা রঙিন ছবিযুক্ত বই নাড়া-চাড়া করতে ভালোবাসে। ছবি দেখিয়ে পরিচিত জিনিসের নাম সম্পর্কে ধারণা দেয়া যায়। চারপাশের পরিবেশের বাস্তব জিনিস দেখিয়ে ধারণা দিতে হবে। পরিবেশের রঙ, ফুল-ফল, গাছ, তরকারি, ঘরের আসবাব, দৈনন্দিন সামগ্রীর নাম শেখানো যেতে পারে। মা-বাবা ও আত্মীয়স্বজনের নাম, বাসস্থানের অবস্থান, আশপাশের এলাকার নাম শেখাতে হবে। নিজের হাতে খাওয়ার কৌশল, নিরাপদ থাকা, খোলা বা বাসি খাবারের খারাপ দিক সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে। আগুন, পানি, বিদ্যুৎ, ধারালো বস্তু, ধুলাবালি থেকে নিরাপদ দূরত্বে রাখার কারণ ব্যাখ্যা করতে হবে। রাস্তায় চলাচলের নিয়ম সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে। খাওয়া, গল্প, খেলা কিংবা বেড়াতে যাওয়ার সময় শিশুকে ফল-ফুল, মাছ-তরকারিসহ বিভিন্ন জিনিসের নাম ও ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে। কোনো অবস্থাতেই কোনো কিছুর নাম মুখস্থ না করিয়ে ছবি দেখিয়ে শেখাতে হবে। দৈনন্দিন ছোটখাটো ফরমায়েশ আদর বা অনুরোধের সুরে করাতে হবে। শিশুকে বেশি বেশি কার্টুন, গল্প, ছড়া, কবিতা, অভিনয় ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে আনন্দময় পরিবেশে শেখাতে হবে। শিশুর ভালো কাজে উৎসাহ দান: শিশুরা সবকিছু পারিবারিক পরিবেশ থেকে শেখে।
এজন্য অভিভাবকদের খারাপ অভ্যাসগুলো বর্জন করতে হবে। শিশুরা যেকোনো বিষয়ে কৌতূহল প্রিয়। যেকোনো বিষয় তারা নিজেরাই দেখতে, ধরতে ও শুনতে পছন্দ করে। এসব ক্ষেত্রে শিশুদের যদি উৎসাহ দেয়া যায়, তবে তার নিজস্ব জ্ঞানের পরিধি বাড়ে। যেমন- বাহবা দেয়া, তালি দেয়া, প্রশংসামূলক বাক্য বলা। এতে শিশুদের স্বাধীন ও মুক্তচিন্তা প্রকাশের সুযোগ লক্ষ্য করা যায়। সাধারণত শিশুরা যেকোনো ছন্দ সহজেই মনে রাখতে পারে। তাই তাদের ভালো লাগার জন্য ছন্দের সুরে, তালে তালে তাদের সহজেই যেকোনো বিষয় জানানো সম্ভব হয়। এক্ষেত্রে শিশুদের নৈতিক বিষয়াদি সম্পর্কে বাস্তবতার আলোকে জানানো যায়। যেমন- বড়দের সালাম দেয়া, কিছু না বলে অন্যের জিনিস না ধরা, কুশল বিনিময় করা, সদা সত্য বলা, জায়গামতো জিনিস গুছিয়ে রাখা ইত্যাদি। শারীরিক শাস্তি শিশুর মেধা বিকাশের পথে বাধা সৃষ্টি করে। শিশুদের আচরণ সহনশীলতা, সহিষ্ণুতা, পরম ধৈর্য, ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টি, আন্তরিকতা ও ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে দেখতে হবে। অভিভাবক, শিক্ষক, প্রতিবেশীদের যৌথ ভূমিকায় তাদের আগামীর সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ