ঢাকা, রোববার 19 November 2017, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২8, ২৯ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সুন্দরবন সুরক্ষায় মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কিনেছে অয়েল সুইপিং জাহাজ

খুলনা অফিস : মংলা বন্দর প্রতিষ্ঠার ৬৬ বছর পর সুন্দরবনের প্রাণ-প্রকৃতি সুরক্ষায় এবার এগিয়ে এসেছে মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ। ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সুন্দরবনের বুক চিরে বয়ে চলা বন্দরের ১৩১ কিলোমিটার দীর্ঘ পশুর চ্যানেলে জাহাজ থেকে ছড়িয়ে পড়া তেলজাতীয় পদার্থ অপসারণ ও সুন্দরবন সুরক্ষায় বন্দর কর্তৃপক্ষ কিনেছে একটি অয়েল সুইপিং জাহাজ। আগামী মাসের তৃতীয় সপ্তাহে জাহাজটি মংলা বন্দরে এসে পৌঁছাবার কথা রয়েছে। বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাস্টার এম ওয়ালিউল্লাহ এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ফিনল্যান্ডে তৈরি সাড়ে ১৪ মিটার দৈর্ঘ্য ও ঘণ্টায় ১৮ নটিক্যাল মাইল গতিবেগে চলাচল উপযোগী এই অয়েল সুইপিং জাহাজটির নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যেই শেষ হয়েছে। মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমোডর একেএম ফারুক হাসান ও হারবার মাস্টার এম ওয়ালিউল্লাহ’ ফিনল্যান্ডে গিয়ে গত ৮ অক্টোবর জাহাজটির নৌপথে চলাচল ও পানির উপরে ছড়িয়ে পড়া অয়েল সুইপিং’এর (টেস্ট ট্রায়াল) প্রাথমিক পরীক্ষা প্রত্যক্ষ করেন। টেস্ট ট্রায়াল সফলতার পর ফিনল্যান্ড থেকে মংলা বন্দরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা অয়েল সুইপিং জাহাজটি বুধবার ব্রাজিলের একটি বন্দরে নোঙ্গর করেছে। আগামী মাসের তৃতীয় সপ্তাহে জাহাজটি মংলা বন্দরে এসে পৌঁছাবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষে প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. জহিরুল হক জানান, মংলা বন্দর ১৯৫০ সালে প্রতিষ্ঠার পর এই প্রথম একটি অয়েল সুইপিং জাহাজ কেনা হলো। অনেক আগে থেকেই প্রয়োজন ছিলো এই অয়েল সুইপিং জলযান সংগ্রহের। ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সুন্দরবনের বুক চিরে বয়ে চলা বন্দরের ১৩১ কিলোমিটার দীর্ঘ পশুর চ্যানেলে কখনো-কখনো জাহাজ থেকে ছড়িয়ে পড়া তেলজাতীয় পদার্থ দ্রুত অপসারণ জরুরি হয়ে দাঁড়ায়। বিগত ২০১৪ সালের ৯ ডিসেম্বর সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে ফার্নেস অয়েল বোঝাই এমভি সাউদান স্টার সেভেন নামের একটি অয়েল ট্যাঙ্কার ডুবে সুন্দরবনে তেল ছড়িয়ে পড়ে। এতে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য এতোটাই হুমকির মধ্যে পড়ে যে, ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সুন্দরবনকে বাঁচাতে ছুটে আসতে হয় খোদ জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের। এই অবস্থায় জাহাজ থেকে ছড়িয়ে পড়া তেলজাতীয় পদার্থ অপসারণ করতে অয়েল সুইপিং জলযান কেনা হয়েছে। মাত্র সাড়ে ১৪ মিটার দৈর্ঘ্যের জলযানটি প্রয়োজনে সুন্দরবনের ছোট-ছোট খালে গিয়েও পানিতে ছড়িয়ে পড়া তেলজাতীয় পদার্থ সুইপিং করতে পারবে। বন্দরের পশুর চ্যানেলের পানি সুরক্ষার পাশাপাশি এই অয়েল সুইপিং জলযান সুন্দরবনের প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায়ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
মংলা বন্দরের অয়েল সুইপিং জলযান সংগ্রহকে স্বাগত জানিয়ে পরিবেশবাদী সংগঠন সেভ দ্যা সুন্দরবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম বলেন, এত করে বিশে^র বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ এই জলাভূমির বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির ইরাবতিসহ ৬ প্রজাতির ডলফিন, ২৩৪ প্রজাতির মাছ, ১৪ প্রজাতির কাঁকড়া, ৪৩ প্রজাতির মালাস্কা, ১ প্রজাতির লবস্টার, রয়েল বেঙ্গল টাইগারসহ ৩৭৫ প্রজাতির বন্যপ্রাণি ও সুন্দরীসহ ১৮৪ প্রজাতির উদ্ভিদরাজি রক্ষায় সহায়ক হবে। নানা কারণে অস্তিত্ব সংকটে থাকা সুন্দরবন পানি দূষণের হাত থেকে রক্ষা পাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ