ঢাকা, বুধবার 22 November 2017, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২8, ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে হামলার নেপথ্য নায়ক নিজাম হাজারী

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ফেনীতে সংসদ সদস্য নিজাম হাজারীর অপকর্ম এবং প্রশাসনকে ব্যবহার করে দলীয় নেতাকর্মী হত্যা, নির্যাতনের প্রতিবাদে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন সাবেক যুবনেতা এম আজহারুল হক আরজু -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেখতে কক্সবাজার যাওয়ার পথে ফেনীতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার নেপথ্য নায়ক ছিলেন ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী। নিজ দলীয় নেতার বিরুদ্ধেই সাংবাদিক সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেছেন ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য আজহারুল হক। আর এই হামলার ঘটনা সম্পূর্ণ পরিকল্পিত ছিল বলেও সাংবাদিকদের জানান তিনি। গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে আজহারুল হক এসব কথা বলেন। লিখিত বক্তব্যে আজহারুল হক বলেন, সম্প্রতি ফেনীতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে যে হামলার ঘটনা ঘটে, সেটিও ছিল পূর্বপরিকল্পিত। কারণ সেদিন বেছে বেছে ডিবিসি, চ্যানেল আই, একাত্তর, বৈশাখী টেলিভিশন ছাড়াও প্রথম আলো ও ডেইলি স্টারের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এ পুরো ঘটনার ‘ নেপথ্য’ নায়ক নিজাম হাজারী। বিভিন্ন গণমাধ্যমেও এ সংক্রান্ত সংবাদ এসেছে। মূলত তাঁর বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের প্রতিশোধ হিসেবেই নিজাম হাজারী ক্যাডারদের দিয়ে ওই সব গাড়িতে হামলা চালায়। সাংবাদিক সম্মেলনে জেলার আওয়ামী লীগ নেতা আজহারুল হক সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারীর বিরুদ্ধে খুন, দুর্নীতি, বিদেশে অর্থপাচার, প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও হামলার অভিযোগও আনেন। তিনি অভিযোগ করেন, সাংসদের ব্যক্তিগত আক্রোশ ও রোষানলের কারণে তিনিসহ এলাকার অনেক নেতা কর্মী এখন এলাকা ছাড়া। নিজাম উদ্দিনের বিরুদ্ধে সরকারি অফিস থেকে ‘কমিশন’ ও বিভিন্ন টার্মিনাল থেকে ‘ টোল’ আদায়ের অভিযোগ করে আজহারুল হক বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি), সড়ক ও জনপথ (সওজ), গণপূর্ত, পৌরসভা, জেলা পরিষদ ও বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) থেকে বিভিন্ন হারে কমিশন নেন সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী। এ ছাড়া তাঁর নামে বিভিন্ন টার্মিনাল থেকে টোল আদায় করা হয়। সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী ও অপর এক ব্যক্তির ইশারায় ফেনীতে এসব অপকর্ম করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন আজহারুল হক। এ সময় সাংবাদিকেরা অপর ওই ব্যক্তির নাম জানতে চাইলে আজহারুল হক বলেন, ‘ওই ব্যক্তির নাম বলা যাবে না। তাঁর নাম বললে আমি বাড়ি পর্যন্ত যেতে পারব কিনা সন্দেহ আছে।’ এ কথা বলার পর সাংবাদিকেরা নামটি বলে ফেলার কথা বললে তিনি বলেন, দ্বিতীয় ওই ব্যক্তির নাম আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী (নাসিম)। লিখিত বক্তব্যে আজহারুল হক অভিযোগ করেন, নিজাম উদ্দিন হাজারীর বিরুদ্ধে একটি অস্ত্র মামলা ছিল। সেই মামলায় তিনি নির্দিষ্ট মেয়াদের কম সময় সাজা খাটেন। এ ঘটনায় একটি রিট করেন জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন। এলাকায় আজহারুলের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত সাখাওয়াত। রিট করার কারণে সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী তাঁর বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনসহ বিভিন্ন ধারায় অন্তত নয়টি মামলা করেছেন। একজন সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনের আগে বিষয়টি দলীয় ফোরামে জানানো হয়েছিল কি না, সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে আজহারুল হক বলেন, দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গত সোমবার ফেনীতে ফ্লাইওভার নির্মাণকাজ দেখতে গিয়েছিলেন। সেখানেও তাঁর সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়েছে। দলের সাধারণ সম্পাদক বিষয়টি সুরাহা করে দেওয়ার কথা বলেছেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এনামুল হক শামীম ও মহিবুল হাসান চৌধুরীর কাছেও সাংসদের বিষয়ে জানিয়েছেন বলে জানান তিনি। ফেনী জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, জেলা তাঁতী লীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান, জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল হুদা, জেলা তাঁতী লীগের উপদেষ্টা কাজী ফারুক প্রমুখ সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ