ঢাকা, সোমবার 27 November 2017, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ব্যয় মেটাতেই হিমশিম খাচ্ছে নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’

খুলনা অফিস : এক সময় খাদ্যের চাহিদা মিটিয়ে যেসব পরিবার ছেলে মেয়ের লেখাপড়ায় অর্থ ও সময় ব্যয় করার স্বপ্ন দেখতো। পরিবারের সদস্যদের মুখে ঠিকমত খাদ্যের যোগান দেয়াই এখন তাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বলছিলেন, একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক আব্দুল হক। চাল পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রির রেকর্ড মূল্যবৃদ্ধির সাথে নতুন করে আবারও বিদ্যুতের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ বলে মনে করেন তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নতুন করে খরচ বেড়েছে জীবন যাত্রার সর্বক্ষেত্রেই। চাল পেয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রির দফায় দফায় মূল্য বৃদ্ধিতে সরাসরি এর প্রভাব পড়েছে পরিবারগুলোর উপর। এতে বিনোদনতো দূরের কথা পরিবারের সদস্যদের খাদ্যের চাহিদা মেটাতেই হিমশিম খাচ্ছে মধ্য ও নিম্নবিত্ত পরিবারগুলো। এরই মাঝে আবার বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির ঘোষণা এসব পরিবারকে নতুন করে বিপাকে ফেলেছে।

কনজুমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর দেয়া তথ্য মতে, গত এক বছরে ব্যয় বেড়েছে ৩০ শতাংশের বেশি অথচ সে তুলনায় আয় বাড়েনি। বাড়ি ভাড়া, পোশাক, পরিবহন, গৃহস্থলি পণ্য, প্রসাধন, পরিবহন, শিক্ষা বিনোদনসহ ১৬০ ধরণের পন্যের ব্যয় বেড়েছে সব থেকে বেশি। নতুন করে আবার বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ফলে নাভিশ^াস উঠেছে মধ্য ও নিম্নবিত্ত পরিবারগুলোতে।

নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পেঁয়াজের মূল্য আবারো বৃদ্ধি পেয়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে কেজি প্রতি ৫ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে এখন ৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। স্বর্ণা চাল ৪৮ টাকা, মিনিকেট ৬০ টাকা আর বালাম বিক্রি হচ্ছে ৫৮ টাকায়। এছাড়া মশুর ডালের কেজি দেশি ১১০,ভারতীয় ৭০ টাকা, মুগ ডাল ১২০ টাকা ও বুটের ডাল বিক্রি হয়েছে ৪২ টাকায়। এদিকে ভরা মওসুমেও কমছেনা শীতকালীন সবজির দাম। কেজি প্রতি ৪০ টাকার উপরে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি। এরই মাঝে বিদ্যুতের ইউনিট প্রতি ৩৫ পয়সা বৃদ্ধিতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষ। বিদ্যুতের এ মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণায় নতুন করে নিত্যপণ্যের মুল্য বৃদ্ধির আশঙ্কায় দিন কাটছে তাদের।

সরকারি কর্মচারী মো. মিজানুর রহমান বললেন, সংসারের ব্যয় মেটাতে খাদ্য তালিকা থেকে প্রয়োজনীয় আমিষ বাদ দিয়েছি অনেক আগেই। যে পথ রিকশায় চলতাম তা এখন হেঁটে চলি। আগে সন্ধায় ছেলেমেয়েদের পড়াতে বসতাম আর এখন বাইরে টিউশনি করি। পরিবার চালাতে যখন হিমশিম খাচ্ছি ঠিক তখন আবারও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধিতে দিশেহারা আমার মত সাধারণ মানুষ।

কনজুমারস এসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ক্যাব) খুলনার সদস্য সচিব নাজমুল হাসান ডেভিট জানান, যেখানে বিশ্ববাজারে বিদ্যুৎসহ বিদ্যুৎ উৎপাদনের জ্বালানির মূল্য দিন দিন কমছে সেখানে শুধুমাত্র বিদেশিদের খুশি করতে বিদ্যুতের অতিরিক্ত মূল্য জণগনের উপর চাপিয়ে দিয়েছে সরকার। এতে নিত্যপণ্যসহ বিশেষ করে খাদ্য জাতীয় পণ্যের মূল্য নিশ্চিত বৃদ্ধি পাবে। ফলে জীবন যাপনের সব ক্ষেত্রেই ব্যয় বৃদ্ধি পাবে।

জনউদ্যোগ খুলনার আহ্বায়ক মো. কুদরত-ই-খুদা বলেন, এই মুহূর্তে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি সম্পূর্ণ অযৌক্তিক ও অগণতান্ত্রিক। সাধারণ মানুষের উপর অন্যায়ভাবে এ দাম চাপিয়ে দেয়া হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ