ঢাকা, শুক্রবার 16 November 2018, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপিত

সংগ্রাম অনলাইন : যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য্য ও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে রাজধানীসহ সারাদেশে আজ পবিত্র ঈদ-ই মিলাদুন্নবী উদযাপিত হচ্ছে। বিশ্বমানবতার মুক্তির দিশারী মহানবী হযরত মুহম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও ওফাত দিবস উপলক্ষে (হিজরী-১২ রবিউল আওয়াল) দেশের মুসলিম সম্প্রদায় ঈদ-ই মিলাদুন্নবী উদযাপন করছে।

মুসলিম উম্মাহ মহানবীর জন্ম ও ওফাত দিবসকে পবিত্র ঈদ-ই মিলাদুন্নবী হিসেবে উদযাপন করে। বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায়ের পাশাপাশি শান্তিকামী প্রতিটি মানুষের কাছে এ দিনটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। 

বিশ্বব্যাপি মুসলিম উম্মাহ’র সাথে বাংলাদেশের মুসলমানরাও দিবসটি উদযাপন করছে। 

এ উপলক্ষে বিভিন্ন ধর্মীয়, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন তাদের নিজ-নিজ অবস্থান থেকে নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে ঈদ-ই মিলাদুন্নবী উদযাপন করছে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, মহানবী (সা.)-এর পূর্ণাঙ্গ জীবন নিয়ে আলোচনা, ধর্মীয় শোভাযাত্রা, সেমিনার, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত।

এদিকে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবীর তাৎপর্য তুলে ধরে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এ দিবসের প্রাক্কালে গতকাল শুক্রবার পৃথক বাণী প্রদান করেছেন। ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উপলক্ষে আজ শনিবার সরকারি ছুটি। 

বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক এ উপলক্ষে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন, বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ও বেসরকারি রেডিও দিবসটি উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা সম্প্রচার করছে। মালায় রয়েছে ওয়াজ মাহফিল, সেমিনার, ইসলামিক ক্যালিগ্রাফি ও মহানবী (সা.) জীবনভিত্তিক পোস্টার ও গ্রন্থ প্রদর্শনী, ইসলামী বইমেলা, ইসলামী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, ক্কিরাত ও হামদ-না’ত এবং রাসূল (সা.) শানে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর।

এ দিকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্মদিন ও ওফাত দিবস পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উপলক্ষে আজ শনিবার বাদ জোহর বঙ্গভবনের দরবার হলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এক মিলাদ মাহফিল আয়োজন করেছেন।

মিলাদ মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন- ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আব্দুল ওয়াহ্হাব মিয়া, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা, বিভিন্ন মুসলিম দেশের কূটনীতিকগণ, সংসদ সদস্যগণ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং উর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাগণ।

মিলাদ মাহফিলের পর মোনাজাত পরিচালনা করেন বঙ্গভবন জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা সাইফুল কবীর।

বিশেষ মোনাজাতে মহান আল্লাহর দরবারে দেশের অব্যাহত শান্তি ও সমৃদ্ধি, জনগণের কল্যাণ এবং সারাবিশ্বের মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্য বজায় রাখার জন্য দোয়া করা হয়। সূত্র: বাসস। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ