ঢাকা, সোমবার 4 December 2017, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চলনবিলে শামুক ঝিনুক নিধন পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব

তাড়াশ : নৌকাযোগে সংগ্রহ করা হয়েছে ঝিনুক-শামুক

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ)  থেকে শাহজাহান : সিরাজগঞ্জ,নাটোর,পাবনার মধ্যবর্তী তাড়াশ, ভাঙ্গুড়া, সিঙড়া, গুরুদাসপুর, আত্রাই, বড়াইগ্রাম, শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া, সলঙাগা, চাটমোহরসহ চলনবিল অঞ্চলে অবাধে শামুক নিধন হচ্ছে।
এতে হুমকির মুখে পড়েছে জীববৈচিত্র্য। মৎস্য সংরক্ষণ আইনে শামুক নিধন সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কোনো কিছু উল্লেখ না থাকায় মত্স্য অধিদপ্তরও এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না।
চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, তাড়াশ, সিংড়া, বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলার বিভিন্ন খাল-বিলে শামুক নিধন ও বিক্রি চলছে। শামুক ধরে সেগুলো বস্তাবন্দি করে বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে।
পরিবেশবাদীদের অভিমত- শামুক চলনবিলাঞ্চলের জলজ প্রাণীর জীবনচক্রের সঙ্গে সম্পর্কিত। এভাবে শামুক আহরণ করা হলে চলনবিলাঞ্চলের জীববৈচিত্র্য নষ্ট হবে।
শামুকের সংকট দেখা দিলে মাছেরও আকাল হবে। এখন চলনবিলের পানি নামতে শুরু করেছে। শামুক আহরণকারীরা খাল-বিলে সকাল থেকেই শামুক সংগ্রহে নেমে পড়ছে। বস্তায় ভরে নসিমন, করিমন, মিনি ট্রাক ও ভটভটিতে করে এই শামুক চলে যাচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। শামুক নিধনরোধে প্রশাসনিক পদক্ষেপ জরুরি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ