ঢাকা, সোমবার 4 December 2017, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধি আরও এক সপ্তাহ সময় পেল সরকার

স্টাফ রিপোর্টার : নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাবিধি গেজেট প্রকাশে আরও এক সপ্তাহ সময় পেয়েছে সরকার। সময় আবেদনের প্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ আগামী ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দিয়েছেন।
গতকাল রোববার ভারপ্রাপ্ত বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
আদালতে সময় চেয়ে আবেদন করেন সরকারের এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।
গেজেট প্রকাশে দফায় দফায় সময় নিয়েছে সরকার। গত ৫ নবেম্বর সরকারের আবেদনে আপিল বিভাগ ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দিয়েছিল সরকারকে। এর মধ্যে গত ১৬ নবেম্বর ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা ও আপিল বিভাগের বিচারপতিদের সঙ্গে বৈঠক করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক
গত ২১ নবেম্বর আইনমন্ত্রী জানান, নিন্ম আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা বিধিমালার চূড়ান্ত খসড়া তৈরি করে সুপ্রিম কোর্টে পাঠানো হয়েছে। রাষ্ট্রপতির আদেশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা এ গেজেট প্রকাশ করবো। আশা করছি ৩ ডিসেম্বরের আগে এই গেজেট প্রকাশ করতে পারবো। ওইদিন রাজধানীর বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে বিচারকদের ৩৭তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।
গত ৮ অক্টোবর সরকারের ৪ সপ্তাহের সময়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে ৫ নবেম্বর পর্যন্ত গেজেট প্রকাশের সময় বাড়ায় আপিল বিভাগ।
১৯৯৯ সালের ২ ডিসেম্বর মাসদার হোসেন মামলায় ১২ দফা নির্দেশনা দিয়ে রায় দেয়া হয়। ওই রায়ের আলোকে নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা বিধিমালা প্রণয়নের নির্দেশনা ছিল। ১২ দফার মধ্যে ইতোমধ্যে কয়েক দফা বাস্তবায়ন করেছে সরকার। এজন্য বারবার আদেশ দিতে হয়েছে আপিল বিভাগকে। এমনকি, ২০০৪ সালে আদালত অবমাননার মামলাও করতে হয়েছে বাদীপক্ষকে। এরপর ২০০৭ সালের ১ নবেম্বর জরুরি অবস্থার তত্ত্বাবধায়ক সরকার বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগ থেকে পৃথক ঘোষণা করেন।
এ অবস্থায় ২০১৫ সালের ১৫ মার্চ আপিল বিভাগ চার সপ্তাহ সময় দেন সরকারকে। এরপর গত বছরের ৭ মে আইন মন্ত্রণালয় থেকে একটি খসড়া শৃঙ্খলা বিধিমালা তৈরি করে সুপ্রিম কোর্টে পাঠায়। কিন্তু তা মাসদার হোসেন মামলার রায়ের আলোকে না হওয়ায় সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃপক্ষ একটি কমিটি গঠন করে আলাদা একটি শৃঙ্খলাবিধি তৈরি করে দেন। এই খসড়া নিয়ে সদ্য পদত্যাগ করা প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার সঙ্গে সরকারের মতবিরোধ দেখা দিয়েছিল। সরকারের করা খসড়া নিয়ে তীব্র অসন্তোষ দেখা দিলে এই নিয়ে তখন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার সঙ্গে আইনমন্ত্রীর বৈঠকও হয়েছিল। কিন্তু শৃঙ্খলাবিধি চূড়ান্ত হওয়ার আগে বিদায় নিয়েছেন বিচারপতি এস কে সিনহা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ