ঢাকা, বৃহস্পতিবার 14 December 2017, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গোদাগাড়ী সীমান্তে নিহত যুবকের লাশ অবশেষে ফেরত দিল বিএসএফ

গোদাগাড়ী (রাজশাহী) সংবাদদাতা : রাজশাহী সীমান্তে গুলীতে নিহত বাংলাদেশী যুবকের লাশ অবশেষে ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ। নিহত ওই যুবকের নাম নাশরাফ হোসেন ওরফে আবু। তিনি রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার ভারতীয় সীমান্ত এলাকার চরআষড়িয়াদহ ইউনিয়নের চরভুবনপাড়া গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে।
ঘটনার তিনদিন পর মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে বিএসএফের ৪ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের ডিএমসি সীমান্ত ফাঁড়ির সদস্যদের কাছে আবুর লাশ হস্তান্তর করে। ডিএমসি সীমান্ত ফাঁড়ির কোম্পানি কমান্ডার নায়েক সুবেদার ফরিদ আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, লাশ পাওয়ার পর রাতেই তা পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বুধবার সকালে লাশ দাফন করা হয়। ভারতে লাশের ময়নাতদন্ত এবং আইনগত প্রক্রিয়া শেষ করতে দেরি হওয়ায় লাশটি ফেরত পেতেও দেরি হয়েছে বলে তিনি জানান।
গোদাগাড়ীতে দুটি বাসের
মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন
নিহত ॥ আহত ২০
রাজশাহীর গোদাগাড়ী দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার সকাল ৭টার দিকে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কে উপজেলার মাটিকাটা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের সামনে এই দুঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার সোনামসনা গ্রামের আবদুল আজিজ মোল্লার স্ত্রী আশিয়া খাতুন (৬২) ও নওগাঁর সাপাহার উপজেলার তিলনা দীঘিপাড়া গ্রামের মো. আলিমুদ্দীনের ছেলে হারুন-অর-রশীদ (৫০)। নিহত অপরজন একটি বাসের হেলপার হতে পারেন বলে ধারণা করছে পুলিশ। এই দুর্ঘটনায় আরো অন্তত ২০ যাত্রী আহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধার করে গোদাগাড়ী ৩১ শয্যা হাসপাতাল ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার মাটিকাটা ডিগ্রি কলেজের সামনে ঘনকুয়াশার কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী একতা ট্রান্সপোর্ট (ঢাকা মেট্রো ব ১৪- ৮৫৭৫) কোচের সাথে রাজশাহী হতে নওগাঁর দিঘিরহাট গামী রিদয় পরিবহন (রাজ মেট্রো জ ১১-০০৮১) বাসটির মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে একজন মারা যায়। গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ হিপজুর আলম মুন্সি জানান, গোদাগাড়ী ৩১ শয্যা হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক হারুন-অর-রশীদ নামের ওই যাত্রীকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতদের মধ্যে এখনো কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ