ঢাকা, শুক্রবার 15 December 2017, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বার্মায় প্রত্যাবর্তনে ৮ দফা দাবিতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মানববন্ধন

কক্সবাজার সংবাদদাতা : বাংলাদেশ-বার্মার মধ্যে স্বাক্ষরিত দ্বিপাক্ষিক চুক্তির আওতাধীন আরাকানে প্রত্যাবর্তনের ৮টি শর্তের কথা জানিয়ে ক্যাম্পে মানববন্ধন করেছে রোহিঙ্গারা। কক্সবাজারের কুতুপালং ক্যাম্পের মধুরছড়া ইরানী ব্লকে বৃহস্পতিবার সকালে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে ৮টি দাবির কথা জানান আশ্রিত রোহিঙ্গারা।
প্রত্যাবাসনের আগে আরাকানে জাতিসংঘ মিশনের সেনা প্রেরণ, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘসহ মানবাধিকার সংস্থার অংশগ্রহণ, বার্মার অন্যান্য সম্প্রদায়ের মতো রোহিঙ্গাদের অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা প্রদান, রোহিঙ্গাদের উপর চলমান গণহত্যা অবিলম্বে বন্ধকরণ, সেনাতা-বে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের সম্পদের ক্ষতিপূরণ প্রদান, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বার্মিজ প্রশাসনের আনিত সব বানোয়াট অভিযোগ প্রত্যাহার করে কারাবন্দিদের নিঃশর্ত মুক্তি প্রদান, মানবতা বিরোধী কর্মকান্ডে দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান এবং সম্পদ-সম্পত্তি ও জান-মালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সাপেক্ষে আরাকানে ফেরত যাওয়ার কথা বলেন রোহিঙ্গারা।
মোঃ ইয়াসির (২৮) নামের এক রোহিঙ্গা জানান, “আমাদেরকে ফেরত নিয়ে গিয়ে আবারো নির্যাতন করবে সৈন্যরা। অতীতে যেসব রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়েছিল সরকার, তাদেরকেও নির্যাতন চালিয়েছে। তাই আমরা শর্ত সাপেক্ষে ফেরত যাবো। আমাদের দাবি পূরণ না হলে আমরা কখনও ফিরে যাবো না।”
ইয়াসির আরো বলেন, “প্রয়োজনে আমাদেরকে বাংলাদেশে মেরে ফেলুন। অন্তত জানাযা-দাফন-কাফনটা পাবো। কিন্তু বার্মাতে তাও পাবো না। দয়াকরে আমাদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিবেন না।”
প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে নব্বই দশকে করা চুক্তির আদলে গত মাসে বাংলাদেশ ও বার্মার মধ্যে একটি চুক্তিসই হয়েছে। সে চুক্তি অনুযায়ী জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করতে বার্মার প্রতিনিধি দল আগামী ১৯ ডিসেম্বর ঢাকা আসবেন। এ চুক্তিতে রোহিঙ্গাদের অধিকার ও আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন সংক্রান্ত বিষয় বাদ পড়ে যাওয়ায় সমালোচনা ও সংশোধনীর প্রয়োজনীয়তার কথা জানাচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ