ঢাকা, মঙ্গলবার 19 December 2017, ৫ পৌষ ১৪২৪, ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানিতে পদপিষ্ট হয়ে ১০ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু

মহিউদ্দীন চৌধুরীর কুলখানীতে পদপিষ্ট হয়ে ১০ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে

চট্টগ্রাম অফিস: চট্টগ্রামে সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানি উপলক্ষে আয়োজিত জেয়াফতে পদদলিত হয়ে ১০ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো অনেকে। নিহতদের সবাই সনাতন ধর্মালম্বী বলে জানা গেছে। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আহতদের চিকিৎসা দেয়া হচেছ।
গতকাল সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে চট্টগ্রাম মহানগরীর আসকারদীঘি এলাকায় রীমা কমিউনিটি সেন্টারে অতিরিক্ত ভীড় ও আগত লোকজন হুড়াহুড়ি করে ঢুকতে গিয়ে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন বলে প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান। সেখানে কর্তব্যরত পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, নিরাপত্তার অভাব হয়নি, অতিরিক্ত মানুষের কারণে এবং ঢোকার সময় হুড়োহুড়ির কারণে অনেকে পড়ে গিয়ে পদদলিত হয়েছেন। দুর্ঘটনার পরপর পুলিশ,ফায়ার সাভির্স ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করেন এবং হতাহতদের হাসপাতালে পাঠায়।
এ ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান মহিউদ্দিন চৌধুরীর বড় ছেলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী মহিবুল হাসান নওফেল। সেখানে গিয়ে তিনি নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়লে পরে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।
দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় পদতলে পিষ্ট মানুষের স্যান্ডেলের ছড়াছড়ি। হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় শোকাবহ অবস্থা। সেখানে হাজার হাজার মানুষ। আহত ও নিহতদের স্বজন ছাড়াও হাসপাতলে ভিড় করছেন সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা। নিহতদের স্বজনদের আহাজারীতে বাকরুদ্ধ সবাই। মেজাবান খেতে এসে পদদলিত হয়ে এতো লোকের মৃত্যু তা মেনে নিতে পারছেননা অনেকে। স্বজন হারানো মানুষের আর্তনাদ। বিলাপ করে কাদঁতে দেখা যায় নিহতদের পরিবার পরিজনদের।
নিহতদের মধ্যে যাদের নাম পাওয়া গেছে তারা হলেন -কৃষ্ণ দাশ (৪৫),পিতা রায় মোহন দাশ, উত্তর কাট্টলী,পাহাড়তলী, সুধীর দাশ(৫০) পিতা লাল মোহন দাশ, পাথরঘাটা, কোতোয়ালী, প্রদীপ তালুকদার (৫৪) পিতা মনোরঞ্জন তালুকদার, ফতেয়াবাদ, ঝন্টু দাশ (৪৬) পিতা বিনোদ বিহারী, ফতেয়াবাদ, ধনাশীল (৪৫) পিতা অজ্ঞাত, বাঁশখালী, অলক ভৌমিক (৩৬) পিতা ননী গোপাল ভৌমিক, ছোট কুমিরা, সীতাকুন্ড, লিটন দেব (৫০) পিতা প্রকৃতি রঞ্জন দেব, মোহসেন আউলিয়া, আনোয়ারা, দিপংকর রাহুল দাশ (২৬) পিতা অজ্ঞাত, বড়ইতলী, চকরিয়া কক্সবাজার।
সূত্র জানায়, চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানি উপলক্ষে গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম নগরীর ১৪টি কমিউনিটি সেন্টারে জেয়াফতের আয়োজন করা হয়। এতে প্রায় ৮০ হাজার মানুষের অ্যাপায়নের ব্যবস্থা করা হয়। এর মধ্যে মুসলামানদের জন্য দি কিং অব চিটাগং কনভেনশন হল , কে স্কয়ারে, চকবাজারস্থ কিশালয় ক্লাবে, সøুইচ পার্কে, লাভ লেইনস্থ স্মরণিকা ক্লাব, মুরাদপুরস্থ এন মো: কনভেনশন সেন্টার, কালামিয়া বাজারস্থ কে বি কনভেনশন হল, কাজির দেউরীস্থ ভি আই ব্যাংকুইটে, আগ্রাবাদ এক্সেস রোডস্থ গোল্ডেন টাচ, বড়পোলস্থ কিংস পার্ক, পোর্ট কানেকটিং রোডস্থ সাগরিকা কমিউনিটি সেন্টার, স্টীল মিলস্থ মুনভিউ কমিউনিটি সেন্টার, বহদ্দারহাট মৌলভী পুকুর পাড়স্থ চান্দগাঁও কমিউনিটি সেন্টারে গরু দিয়ে জেয়াফতের ব্যবস্থা করা হয়। এছাড়া আসকার দিঘীর পাড়স্থ রীমা কমিউনিটি সেন্টারে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়। পরিবারের পক্ষ থেকে রোববার মরহুম এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী’র কুলখানী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য নগরবাসীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। এর প্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার সকাল ১১টার পর থেকে প্রতিটি কমিউনিটি সেন্টারে ভীড় পরিলক্ষিত হয়।
সনাতন ধর্মালম্বীদের জন্য নির্দিষ্টি করা আসকারদিঘীপাড়স্থ রীমা কমিউনিটি সেন্টার দুপুর ১২টা থেকে ভীড় জমে মানুষের। সেখানে প্রায় ১০ হাজার মানুষের খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। কমিউনিটি সেন্টারের ঢুকার পথটি ঢালু। রাস্তা থেকে প্রায় ১০ ফুট ঢালু। খাওয়ার জন্য আগত মানুষের জন্য গেইট খুলে দেয়ার পরই সেখানেই ভিড়ের মধ্যে দুপুরে পদদলনের ঘটনা ঘটে। সেখানে দায়িত্বরত স্বেচ্ছাসেবক অনুপ দাস সাংবাদিকদের জানান, ফটকের বাইরে ছিল অনেক মানুষের ভিড়। ঢোকার সময় পেছনের চাপে সামনে ওই ঢালু জায়গায় থাকা অনেকে পড়ে যান। তখন তাদের ওপর দিয়েই পেছনের লোকজন হুড়মুড় করে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে। ফলে অনেক মানুষ হতাহত হয়। হুড়োহুড়ির ঘটনায় তিনি নিজেও পায়ে ব্যথা পেয়েছেন। চট্টগ্রামের পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের বলেন, অতিরিক্ত ভীড়ের চাপে অনেকে পড়ে পদদলিত হয়েছেন।
রীমা কমিউনিটি সেন্টারের দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন আন্দরকিল্লার ওয়ার্ড কাউন্সিলর নগর আওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক জহরলাল হাজারী। তিনি জানান, নিরাপওা ব্যবস্থার কমতি ছিল না। পরিবারের পক্ষ থেকে নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে এক লাখ টাকা এবং শেষকৃত্যের জন্য পাঁচ হাজার টাকা দেওয়া হবে। এছাড়া আহতদের চিকিৎসা ব্যয়ও পরিবারের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী, নগর বিএনপির সভাপতি ডা শাহাদাত হোসেন, রাউজানের সাংসদ ফজলে করিম চৌধুরী এবং নগর আওয়ামী লীগের অধিকাংশ শীর্ষ নেতা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মেজবানে অনাকাংক্ষিত মৃত্যুর ঘটনায় ডাঃ শাহাদাত হোসেন এর শোক প্রকাশ-সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মেজবানে পদদলিত হয়ে অনাকাংক্ষিত ভাবে ১০ জন সনাতন ধর্মাম্বলম্বি ভাইদের প্রাণহানী ও আহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর কিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন। তিনি ১৮ ডিসেম্বর দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেজবানে পদদলিত হয়ে মৃত্যুবরণ করা লাশগুলো দেখতে যান এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকদের সাথে নিহত ও আহতদের সার্বিক খোঁজ খবর নেন। ধর্মীয় অনুষ্ঠান মেজবানে এসে ভিড়ের মধ্যে চাপা পড়ে ও পদদলিত হয়ে নিহত ও আহত হওয়ার এই আকশ্বিক দুর্ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ কেরছেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। এই সময় অন্যাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আলমগীর নূর প্রমুখ।
=

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ