ঢাকা, মঙ্গলবার 19 December 2017, ৫ পৌষ ১৪২৪, ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আওয়ামী লীগ চোরের দল ভোট চুরি করে

স্টাফ রিপোর্টার : ২১ ডিসেম্বর ভোট কেন্দ্র পাহারা দেয়ার জন্য দলের নেতাকর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ২১ তারিখ সবাই ধৈর্য্যরে সঙ্গে নিয়ম-শৃঙ্খলার সঙ্গে ধানের শীষে ভোট দেবেন। ভোট কেন্দ্রগুলো পাহারা দেবেন। আওয়ামী লীগ চোরের দল। এরা ভোট চুরি করে। ভোট চুরি করতে দেবেন না। গতকাল সোমবার রংপুরে ধানের শীষের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
গতকাল সোমবার সকালে ইউএস বাংলা ফ্লাইটে  সৈয়দপুর এসে বেলা ১টার দিকে সিও বাজার থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন বিএনপি মহাসচিব। এরপর তিনি কাচারি বাজার ও পায়রা চত্বরসহ বেশ কয়েকটি স্থানে গণসংযোগ ও পথসভায় বক্তব্য রাখেন।
রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এইচ এম এরশাদের বিরুদ্ধে ‘প্রভাব বিস্তার’ এর অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই রংপুরে আপনাদের একজন নিজস্ব ছাওয়াল আছেন। তিনি আপনাদের রংপুরে কিছুই করেন নাই। আজকে এই ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে একমত হয়ে, এক জোট হয়ে তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে তিনি কাজ করছেন। তিনি (এরশাদ) আজকে (সোমবার) আমার সঙ্গে এসেছেন (একই বিমানে), পতাকা নিয়ে এসেছেন। পতাকা নিয়ে অর্থাৎ এই সরকারের সঙ্গে এক হয়েছেন। যে সরকার আমার ছেলেদের খুন করে, যে সরকার আমার মায়ের বুক খালি করেছে তাদের সাথে কোনো আপোষ নাই।
এই বক্তব্য দেয়ার সময়েই এরশাদ সিও বাজার সড়ক দিয়ে পুলিশ প্রটোকলে পতাকাবাহী গাড়িতে চলে শহরে যাচ্ছিলেন। এরশাদ সকালে ঢাকা থেকে ইউএস বাংলা ফ্লাইটে সৈয়দপুর আসেন। একই বিমানে বিএনপি মহাসচিবও ছিলেন। তাদের মধ্যে কুশল বিনিময় হলেও কোনো কথা হয়নি।
ধানের শীষের প্রার্থী কাওসার জাহান বাবলাকে ভোট দেয়ার আাহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ধানের শীষে বাবলা ভাইকে দেবেন। ২১ তারিখ সকলে ধানের শীষে ভোট দেবেন। ২১ ডিসেম্বর ভোট কেন্দ্র পাহারা দেয়ার জন্য দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিলেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ২১ তারিখ সবাই ধৈর্য্যরে সঙ্গে নিয়ম-শৃঙ্খলার সঙ্গে ধানের শীষে ভোট দেবেন। ভোট কেন্দ্রগুলো পাহারা দেবেন। আওয়ামী লীগ চোরের দল। এরা ভোট চুরি করে। ভোট চুরি করতে দেবেন না।
সিটি নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমার বাড়ি ঠাকুরগাঁও। আমাদের মধ্যে রংপুরের আত্মার সম্পর্ক আছে, সেজন্য আমি এতো অসুবিধা সত্ত্বেও ফ্লাইট বিলম্বের পরেও এখানে এসেছি। এই নির্বাচন শুধু রংপুর সিটি নির্বাচন নয়, এটি সারাদেশে দেশের রাজনীতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন।
এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে সরকার পরিবর্তন হবে না। কিন্তু এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আমরা আজকে যে ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার আমাদের বুকের ভেতর চেপে বসেছে, সেই সরকারকে আমরা একটা ম্যাসেজ দিতে পারি, বাণী দিতে পারি- তোমাদেরকে এদেশের জনগণ আর চায় না। এখন রংপুরের মানুষকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনারা কী শান্তির পক্ষে থাকবেন না ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকারের যাঁতাকলে থাকবেন।
দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, বিদ্যুৎ-গ্যাস-জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি, দুর্নীতি-অপশাসনসহ সরকারের নানা ব্যর্থতার চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘‘ এই সরকার আমাকে বুকের ওপর পাথর চাপা দিয়ে বসে আছে। পত্রিকা খুললে দেখবেন খুন-জখম এবং রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে বিনা বিচারে হত্যা করা হচ্ছে মানুষকে, গুম করা হচ্ছে, খুন করা হচ্ছে। এটা শুধু আমার কথা নয়, গতকালই ঢাকা মহানগরের পশ্চিমের ডেপুটি কমিশনার পুলিশ বিপ্লব সরকার স্বীকার করেছেন যে, আমরা গুম করি। কিন্তু আমরা এটা বলতে পারি না।
তিনি বলেন, আমরা (বিএনপি) যে অভিযোগে করে আসছি বার বার, এই সরকার রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে যারা ভিন্নমত পোষণ করছেন, যারা অন্যায়ের প্রতিবাদ করছেন, তাদের গুম করা হচ্ছে। কিছুদিন আগে ফরহাদ মজহারের মতো পন্ডিত মানুষকে গুম করা হয়েছিলো পরে অনেক কষ্টে রেহাই পেয়েছেন। সাবেক একজন রাষ্ট্রদূতকে গুম করা হয়েছে। আসিফ নজরুলকে ভয় দেখানো হয়েছে, এখন পর্যন্ত মামলা ২৬টা করা হয়েছে। ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনামের বিরুদ্ধে ১৮৫ টা মামলা চলছে। কেনো তারা ভিন্নমত পোষণ করেন। মাহমুদুর রহমানকে পাঁচ বছর জেল খাটিয়েছে, শফিক রেহমানকে জেল খাটিয়েছে। তাদের একমাত্র অপরাধ তারা অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছিলো, সত্য কথা বলেছিলো।
পদ্মাসেতু, রুপপুর আণবিক প্রকল্পসহ বিভিন্ন ‘মেগা প্রকল্প’ এর নামে ‘মেগা লুট’ হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব। রংপুর সিটি নির্বাচনকে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার নির্বাচন হিসেবে অভিহিত করে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, এই ডিসেম্বর মাসে আমরা বিজয় অর্জন করেছিলাম। পাকিস্তান হানাদারদের বিরুদ্ধে ৯ মাস যুদ্ধ করে এদেশে স্বাধীন করেছিলাম, স্বাধীন করেছিলাম কেনো? আমি আমার অধিকারকে প্রয়োগ করতে পারবো, আমি আমার বাসস্থান পাবো, অন্য পাবো, আমার বস্ত্র পাবো, স্বাস্থ্য সেবা পাবো। আজকে কোথাও কোনো সুযোগ নাই। পয়সা না দিলে ঘুষ না দিলে।
সিও বাজার থেকে রিকশায় চড়ে প্রার্থীকে নিয়ে গণসংযোগ করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। কাঁচারি বাজারে এসে তিনি এক পথসভায় বক্তব্য রেখে প্রার্থী বাবলার হাতে ধানের শীষের প্রতীক তুলে দেন বিএনপি মহাসচিব। এ সময়ে সিটি নির্বাচন পরিচালনা কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক দলের ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু‘র সভাপতিত্বে পথ সভায় মেয়র প্রার্থী বাবলা ছিলেন।
অনুষ্ঠানে দলের চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নাল আবদিন ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব মাহ্বুবউদ্দিন খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুজ্জামান, জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্র দলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল খালেক, চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান, কেন্দ্রীয় নেতা আনোয়ার হোসেইন, আমিনুল ইসলাম, ফরহাদ হোসেন আজাদ, সাইয়েদা রহমান জ্যোৎস্না, নুর মোহাম্মদ মন্ডল, জেলা সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক রইস আহমেদ, মহানগর সভাপতি মোজাফফর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম মিজু, অঙ্গসংগঠনের মধ্যে আবদুস সালাম, আনিসুর রহমান লাকু, নাজমুল আলম নাজু, শামসুল হক ঝন্টু, শাহনাজ পারভিন শাহিন, মাহফুজ উন নবী ডন, মনিরুজ্জামান হিযবুল, নুর হাসান সুমন, জাকারিয়া ইসলাম জিম, ছাইফুর রাজ চৌধুরী, জসিম উদ্দিন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। নির্বাচনী প্রচারণা শেষ করে গতকাল বিকালের ফ্লাইটে মির্জা ফখরুল ঢাকায় ফেরেন বলে জানান চেয়ারপার্সনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ