ঢাকা, মঙ্গলবার 19 December 2017, ৫ পৌষ ১৪২৪, ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খান জাহান আলী দিঘি রক্ষায় হাইকোর্টের নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার : খুলনার খান জাহান আলী দিঘি রক্ষার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দিঘি সুরক্ষা, পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণে খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এবং পরিবেশ অধিদফতরসহ সংশ্লিষ্টদের ব্যর্থতা কেন বেআইনি ও জনস্বার্থের পরিপন্থী ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছে। এ ছাড়া ঐতিহাসিক দিঘিটি ভরাটের কবল থেকে সংরক্ষণ করা ও ভরাট করা অংশ আগের অবস্থায় কেন ফিরিয়ে আনার নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়েও রুল জারি করা হয়েছে।
জনস্বার্থে মামলার বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) দায়ের করা রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে গত বৃহস্পতিবার বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি জে বি এম হাসান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।
দিঘিটির আকার ও আকৃতি পরিবর্তন করা থেকে বিরত থাকতে ভরাটকারীদের ওপর ছয় মাস পর্যন্ত অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন আদালত। তা ছাড়া ভরাটকারীদের চিহ্নিত করে তাদের কার্যক্রম কঠোরভাবে তদারকি করে দিঘিটির বর্তমান অবস্থা ও অবস্থান সম্পর্কিত তথ্যসংবলিত একটি প্রতিবেদন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, পরিবেশ অধিদদফতরের মহাপরিচালক, খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এক মাসের মধ্যে আদালতে দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
আদালতে বেলার পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন আইনজীবী মিনহাজুল হক চৌধুরী। তাকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী সাঈদ আহমেদ কবীর ও আলী মোস্তফা খান।
দিঘিটি ব্যক্তিমালিকানাধীন দাবি করে তা ভরাটের উদ্যোগ নেন এর মালিকেরা। গত বছর একবার ভরাটের উদ্যোগ নিলে এলাকাবাসীর আন্দোলনের মুখে তা বন্ধ হয়। কিন্তু দুই মাস আগে পাইপলাইনের মাধ্যমে ভৈরব নদ থেকে বালু এনে পুকুরের চার ভাগের প্রায় এক ভাগ ভরাট করা হয়। পরে খুলনা পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে ভরাট বন্ধ করে দ্রুত পাইপ সরিয়ে নিতে নির্দেশ দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ