ঢাকা, বৃহস্পতিবার 21 December 2017, ৭ পৌষ ১৪২৪, ২ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দুই গঞ্জের লড়াইয়ে জয় পেলো ফরাশগঞ্জ

 

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের রেলিগেশন এড়ানোর চেষ্টায় দুই গঞ্জের লড়াইয়ে জয় পেলো ফরাশগঞ্জ। গতকাল বুধবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত অষ্টাদশ রাউন্ডের খেলায় ফরাশগঞ্জ ৩-০ গোলে হারিয়েছে রহমতগঞ্জকে। বিজয়ী দলের পক্ষে আক্রমনভাগের ফুটবলার মিনহাজুল আবেদিন, নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড চিনেদু ম্যাথিও ও মুন্না গোল করেন।প্রথমার্ধে ফরাশগঞ্জ ১-০ গোলে এগিয়ে ছিলো।পয়েন্ট টেবিলের অবস্থান অনুযায়ী ফরাশগঞ্জ আর রহমতগঞ্জ দুই দলেরই অবস্থাটা খুব করুণ। তাদেরকে লড়াই করতে হচ্ছে রেলিগেশন এড়াতে। জায়ান্ট কিলার হিসেবে পরিচিত রহমতগঞ্জ এ ম্যাচে ফরাশগঞ্জের বিপক্ষে আশানুরূপ খেলা উপহার দিতে পারেনি। ম্যাচে দাপিয়ে বেড়িয়েছে তলানীর দল ফরাশগঞ্জই। ৮ মিনিটেই সেটপিস  থেকে ম্যাচে এগিয়ে যায় ফরাশগঞ্জ। টপ ডি এর সামনে চিনেদো ম্যাথিওকে ফাউল করেন রহমতগঞ্জের এক ডিফেন্ডার। ফলে বিপদজনক স্থানে ফ্রি কিক পেয়ে যায় ফরাশগঞ্জ। মিনহাজুল আবেদিন দারুণ এক শট করেন যা রহমতগঞ্জের মানব দেয়াল টপকে বারে লেগে আশ্রয় নেয় জালে ১-০। ৩২ মিনিটে সমতায় ফেরার দারুণ একটা সুযোগ আসে রহমতগঞ্জের। কিন্তু সুযোগ হাতছাড়া করেন গাম্বিয়ান মিডফিল্ডার জাত্তা মোস্তফা। ৪৩ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে জাত্তা মোস্তফার দূরপাল্লার ফ্রি কিক অল্পের জন্য জড়ায়নি জালে। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে আরো একটা শট নেন জাত্তা। তবে এবারো বল আশ্রয় নেয়নি জালে। প্রথমার্ধ ১-০ গোলের লিড নিয়েই বিশ্রামে গিয়েছে ফরাশগঞ্জ।

দ্বিতীয়ার্ধেও অব্যাহত থাকে আক্রমণ পাল্টা আক্রমণের ধারা। তবে বেশিরভাগই ছিলো মাঝ মাঠে সীমাবদ্ধ। ৭১ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে সাদ্দামের ক্রস পোস্টের খুব কাছে পেয়েও দাউদা সিসে হেড করতে ব্যর্থ হন। দুই মিনিট পার্থক্যে মুন্নার সেন্টার থেকে পোস্টের কাছে বল বুঝে নিয়ে ঠান্ডা মাথায় প্লেসিং করেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড চিনেদু ম্যাথিও (২-০)। ৮৫ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে রহমতগঞ্জের রাশেদুল ইসলাম শুভ ডান পায়ে শট নিলেও বল চলে যায় বারের উপর দিয়ে। ইনজুরি টাইমে (৯০+৫) মুন্না রহমতগঞ্জের জালে বল ঠেলে দিলে (৩-০) গোলে জয় নিশ্চিত হয় ফরাশগঞ্জের। লিগের ১৮ ম্যাচ শেষে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তলানীতেই থাকলো ফরাশগঞ্জ। অপরদিকে সমান পয়েন্ট নিয়ে গোল গড়ে এগিয়ে থাকায় একধাপ উপরেই রইলো রহমতগঞ্জ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ