ঢাকা, বৃহস্পতিবার 21 December 2017, ৭ পৌষ ১৪২৪, ২ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আদমদীঘিতে চলছে খাল দখলের মহোৎসব

আদমদীঘি (বগুড়া) সংবাদদাতাঃ বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের বশিপুর গ্রামের ভিতর দিয়ে বয়ে যাওয়া সরকারি ইরামতি খাল মাটি দিয়ে ভরাট করে দখলের মহোৎসব চলছে। বশিপুর, খাড়িরপুল ও তিয়রপাড়া এলাকার এক শ্রেনীর প্রভাবশালী মহল সরকারি খালটিতে মাটি ভরাট করে জবর দখল করে নেওয়ায় খাল সংকুচিত ও পানি নিষ্কাশন বন্ধ হতে চলেছে। এদিকে পুলিশ খালে মাটি ভরাট করা কাজ বন্ধ করে দেওয়া এবং ভরাট করা মাটি অপসারণের জন্য সান্তাহার পৌরসভা নোটিশ প্রদান করলেও দখলকারিরা সেদিকে কোন ভ্রƒক্ষেপ করছেন না। এলাকাবাসি অবিলম্বে এই খাল ভরাট বন্ধের দাবী জানিয়েছেন।
জানা গেছে, সান্তাহার পাশের জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুরের ছোট যমুনা নদীর উপর রেলওয়ের হলহলিয়া ব্রীজের নিকট বহু বছর পুর্বে সৃষ্টি হওয়ার পর থেকে এই খালটি দিয়ে বর্ষা মৌসুমে আক্কেলপুর, তিলকপুর, ও অন্তাহার গ্রাম হয়ে সান্তাহার পৌর শহরের বশিপুর, পৌঁওতা খাড়িরপুল, তিয়রপাড়া ও সান্তাহার ইউনিয়ন এলাকার দমদমা গ্রামের পাশ দিয়ে প্রবাহিত খালটির পানি ঐতিহাসিক রক্তদহ বিলে নিষ্কাশন হয়ে আসছে। এক সময় পলি পড়ে খালটিতে নাব্যতা সৃষ্টি হলে, প্রায় দুই বছর আগে সরকারী ভাবে খনন করা হয়েছে। বর্ষা মৌসুমে পানি নিস্কাশন ছাড়াও রবি মৌসুমে কৃষকরা এই খালের পানি সেচ দিয়ে নানা ফসলের চাষাবাদ করে থাকেন। কিন্তু বেশ কিছু দিন যাবৎ এলাকার এক শ্রেণীর প্রভাবশালী মহল বশিপুর গ্রামের খালের উপর ব্রিজের পাশে ট্রাক্টর দিয়ে মাটি ফেলে ভরাট এবং খাড়িরপুলের দক্ষিণ পাশে চালকলের বিপুল পরিমান ছাই ফেলে ভরাট করে চলেছে। এভাবে ভরাট করায় খাল সংকুচিত ও স্বাভাবিক পানি প্রবাহ বন্ধ ও জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।
এ ব্যাপারে এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সান্তাহার টাউন ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মুসা মিয়া খালে মাটি ভরাট কাজ বন্ধ করে দেন। কিন্তু গোপনে মাটি ভরাট কাজ চলছেই। সান্তাহার পৌরসভা কর্তৃপক্ষ খালে ভরাট করা মাটি অপসারণের জন্য নোটিশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন পৌর মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু। কিন্তু কোন কিছুই মানছেন না ওই প্রভাবশালী মহল। ফলে এলাকাবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ