ঢাকা, বৃহস্পতিবার 21 December 2017, ৭ পৌষ ১৪২৪, ২ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

৯৯৯-এ ফোন অতঃপর

রাঙ্গুনিয়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা : পুলিশ সেবা কেন্দ্রে গত বুধবার গভীর রাতে ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে রাঙ্গুনিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ মোহাম্মদ আহসানুল কাদের ভূঁঞা’র নেতৃত্বে একদল পুলিশ হোচনাবাদ ইউনিয়নের নিশ্চিন্তাপুর গ্রামে ১৩ বছরের বিয়ের পিঁড়িতে মেহেদী অনুষ্টানে বসা আঁখি আক্তারকে উদ্ধার করেন। বর ও কণের পরিবারের সম্মতিতে বৃহষ্পতিবার (১৪ ডিসেম্বর) বিয়ে হওয়ার কথা ছিল।
পুলিশের হস্তক্ষেপে বিয়ে পন্ড হওয়ার ঘটনাটি রাঙ্গুনিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুকে) আপলোড করার পর রাঙ্গুনিয়া জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। বাংলাদেশ পুলিশে সদ্য যুক্ত হওয়া "৯৯৯" সার্ভিসের কল্যানে রাঙ্গুনিয়ায় বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেয়ার ঘটনায় সাধারন মানুষ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়েছে।
রাঙ্গুনিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ মোহাম্মদ আহসানুল কাদের ভূঁঞা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেজবুকে জানান, গভীর রাত। হঠাৎ ৯৯৯ হতে একটি ফোন রিসিভ করি। সংবাদাতা তাঁর পরিচয় গোপন রেখে একটি বাল্যবিবাহের সংবাদ প্রদান করেন। সাথে সাথে পুলিশের একটি মোবাইল টীম ঘটনাস্থল দক্ষিণ নিশচিন্তাপুর গ্রামে কামাল উদ্দিনের বাড়ীতে প্রেরণ করি এবং মাননীয় পুলিশ সুপার জনাব নুওে আলম মিনা পিপিএম মহোদয় থেকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা গ্রহন করি। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুলিশ দেখে যে কামাল উদ্দিনের ১২/১৩ বৎসরের মেয়ে আখি আক্তার কে পাশের বাড়ীর নুরুল আফসারের সাথে বিয়ে দেয়ার জন্য মেহেদী অনুষ্টান এর আয়োজন চলছে। আখি আক্তার কে জিজ্ঞাসাবাদে সে বিবাহ নামক সামাজিক ও ধর্মীয় পবিত্র এই সম্পর্কটি কি তা এখনও জানে না বলে জানায়। ঘটনার সত্যতা পেয়ে পুলিশ উক্ত বাল্যবিবাহের মেহেদি অনুষ্টান বন্ধ করে দেয়। অত:পর আখি আক্তারের বাবা তার মেয়ে কে পরিণিত বয়স না হলে আর বিয়ে দেবে না এবং উক্ত বর ও এ রকম কোন শিশু কন্যা কে আর বিয়ে করবে না বলে লিখিত ভাবে অংগীকার করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ