ঢাকা, শুক্রবার 22 December 2017, ৮ পৌষ ১৪২৪, ৩ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনায় এলজিইডি’র নকশার ভুলে-

খুলনা অফিস : খুলনায় প্রাথমিক শিক্ষার বিভাগীয় উপ-পরিচালকের নিজস্ব কোন কার্যালয় নেই। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার ভবনে অফিসিয়াল কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হয়। 

এদিকে সরকারিভাবে ভবনের অনুমোদন পেলেও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এর নকশায় ভুলের কারণে তাও নির্মাণ নিয়ে টালবাহানা শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, খুলনা বিভাগীয় প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের নিজস্ব কোন কার্যালয় নেই। এ কারণে এ বিভাগের যাবতীয় কার্যক্রম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কার্যালয়ে সম্পন্ন করতে হয়। 

সরকারিভাবে ভবন নির্মাণের অনুমোদন পাওয়ার পরেই স্থানীয় নির্বাহী প্রকৌশলীর দপ্তর বিষয়টি নজরে আনেন। 

এর ফলে উক্ত দপ্তর কর্তৃক পরিকল্পিত নকশা (ডিজাইন) ও প্রস্তুতকৃত প্রাক্কলন অনুযায়ী ভবন নির্মাণের জন্য প্রাপ্ত বরাদ্দ দুই কোটি ৮৪ লাখ ২৯ হাজার টাকার আলোকে লে আউট নিতে আসেন। প্রাপ্ত বরাদ্দের আলোকে লে আউট দেয়ার সময় বিভাগীয় উপ-পরিচালক বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত হন। 

এর পরে তিনি স্থানীয় নির্বাহী প্রকৌশল দপ্তরকে নির্ধারিত জমি ও জমির চৌহদ্দীর বাস্তবতা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেন। এসময় এলজিইডি কর্মকর্তারা ভবনের জন্য প্রস্তুতকৃত নকশা (ডিজাইন) ত্রুটিপূর্ণ হয়েছে বলে স্বীকার করেন। 

একই সাথে ভবনের জন্য পুনরায় নকশা ও প্রাক্কলন প্রস্তুত করে অনুমোদনের জন্য এলজিইডি’র ঢাকাস্থ কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। 

এদিকে বিভাগীয় উপ-পরিচালকের ভবন নির্মাণের জন্য পুনরায় প্রেরিত প্রস্তুতকৃত নকশার অনুমোদন ও প্রস্তুতকৃত প্রাক্কলন অনুযায়ী কার্যক্রম গ্রহণও করা হয়নি। 

অপরদিকে ভবনটি কার্যাদেশ অনুযায়ী গত ৫ ডিসেম্বর যথাযথভাবে নির্মাণের কথা রয়েছে। তবে এলজিইডি’র ত্রুটিপূর্ণ নকশা ও টালবাহানার কারণে তা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্ভব হয়নি। 

এদিকে নকশা অনুযায়ী বিভাগীয় উপ-পরিচালকের কার্যালয়ের সাইটের পেছনে বাউন্ডারি ওয়ালের বাইরে একটি পুকুর রয়েছে। যার কারণে ডিজাইন ইউনিটের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ভবনের স্থানে গভীরভাবে মাটি খনন করে লোড সেটেলমেন্ট পদ্ধতি বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলেও জানা গেছে। 

এদিকে গত ২৫ অক্টোবর ভবন নির্মাণের জন্য নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স জিয়াউল ট্রেডার্সের সাথে এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী চুক্তিপত্র বাতিল করেছেন বলেও জানা গেছে।

খুলনা বিভাগীয় প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের উপ-পরিচালক মো. ওয়ালিউল ইসলাম বলেন, তাদের অফিসিয়াল কার্যসম্পাদনের জন্য নিজস্ব কোন কার্যালয় নেই। নিজস্ব কার্যালয়ের ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দের পরেও এলজিইডি’র নকশার ত্রুটির কারণে তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না। 

এলজিইডি পুনরায় নকশা প্রস্তুত করে অনুমোদনের জন্য ঢাকায় পাঠিয়েছে বলেও জানান তিনি।

এলজিইডি খুলনা অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আফজাল হোসেন বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগীয় উপ-পরিচালকের ভবনের নকশায় ত্রুটির কারণে তা বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে না। 

এজন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তিপত্রও বাতিল করা হয়েছে। তবে পুনরায় নকশার অনুমোদনের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। 

তাদের কাছে নকশা অনুমোদন হয়ে না আসা পর্যন্ত তাদের কোন কিছু করার নেই। 

এ ব্যাপারে তাদের খোঁজ খবর নেয়ার তেমন কোন প্রয়োজন নেই বলেও জানান এ কর্মকর্তা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ