ঢাকা, শনিবার 23 December 2017, ৯ পৌষ ১৪২৪, ৪ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগে খুলনার সরকারি কমার্স কলেজের সেই অফিস সহকারী আবুল হাসান সাময়িক বরখাস্ত

 

খুলনা অফিস : খুলনার আযম খান সরকারি কমার্স কলেজে প্রশ্ন ফাঁসের শর্তে ছাত্রীদের সাথে অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগে কম্পিউটার অপারেটর কাম অফিস সহকারী আবুল হাসানকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ সময় অভিযোগ তদন্তে ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবুল ফজলকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে দেয়া হয়েছে। এদিকে, প্রশ্ন ফাঁসের শর্তে অনৈতিক সম্পর্কের প্রতিবেদনটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে। এছাড়া সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে এটিই ছিল খুলনার অন্যতম আলোচনা-সমালোচনার বিষয়বস্তু।

আযম খান সরকারি কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর কালিপদ মজুমদার জানান, পত্রিকায় সংবাদ দেখে অফিস সহকারী আবুল হাসানকে তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এসব অভিযোগ তদন্তে ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. আবুল ফজলকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে দেয়া হয়েছে। কমিটির সদস্য হলেন ফিনান্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. নূর আলম ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এস এম কবির আহমেদ। আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময়সীমা দেয়া হয়েছে। তবে এসব ব্যাপারে কোন মন্তব্যই করতে রাজি হননি মার্কেটিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক মো. জিল¬ুর রহমান।

সরেজমিন দেখা গেছে, শীতকালীন ছুটি চলায় আযম খান সরকারি কমার্স কলেজে শিক্ষার্থী উপস্থিতি থাকার কথা নয়, তবে কলেজ সম্পর্কে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশের খবর শুনে অনেকেই বিষয়টি জানতে এসেছিলেন প্রিয় ক্যাম্পাসে। এসেছিলেন মিডিয়া কর্মীরা। একাধিক বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলকে এ সম্পর্কে কলেজ কর্তৃপক্ষের বক্তব্য নিতে দেখা গেছে। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ৭১’ দুপুরে অভিযুক্ত আবুল হাসানের পুটিমারিস্থ বাড়িতে গিয়েছিল, তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে। তার ব্যবহৃত নম্বরটিও বন্ধ পাওয়া যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ