ঢাকা, রোববার 24 December 2017, ১০ পৌষ ১৪২৪, ৫ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইভিএম চালুর আগে আরও সময় নেয়ার পরামর্শ নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর

 

স্টাফ রিপোর্টার : রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনের পর্যবেক্ষণকৃত তথ্যউপাত্ত বিশ্লেষণ করে ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি) মনে করছে, বাংলাদেশের ইতিহাসে স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোর মধ্যে এটি সেরা নির্বাচন। যা নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশীজনদের আস্থা আরও বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করবে। তবে জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার চালুর আগে আরও সময় নেয়া উচিত বলে মনে করেন রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ। তিনি বলেন, গ্রামের মানুষ এখনো ইভিএম বিষয়টি সম্পর্কে অজ্ঞ। গ্রামে যারা কাজ করেন তাদের আঙুলের টিস্যুর কারণে ইভিএমে চাপ দিলে বরাবর পড়ে না। তখন দেখেছি টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে দিলে আবার ঠিকই নেয়। তাই বলছি ব্রাজিলেও ইভিএম চালু করতে ২৬ বছর সময় নিয়েছে। আমাদেরও সময় নেয়া উচিত।

গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে তাদের পর্যবেক্ষণকৃত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে সংগঠনটি এ মতামত তুলে ধরেন।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিএনপি বলছে, সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে ইসি ব্যর্থ হয়েছে।

ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের পরিচালক ড. মো. আব্দুল আলীম বলেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন কোনো ধরনের সহিংসতা ও নির্বাচনী অনিয়ম ছাড়াই উৎসব-আমেজে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচন ছিল সামগ্রিকভাবে শান্তিপূর্ণ ও বিশ্বাসযোগ্য। ভোটাররাও ভয়ভীতির ঊর্ধ্বে থেকে সুশৃঙ্খলভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পেরেছেন।

সংস্থাটির পরিচালক বলেন, ২০১৩ সাল থেকে আমরা বরিশাল, সিলেট, রাজশাহী নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছি। সর্বশেষ ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জ, এরপর কুমিল্লা। কুমিল্লায়ও আমরা ১২টির মতো ঘটনা পেলেও রংপুরে তেমন কিছুই পাইনি।

সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, নির্বাচনে ভোট প্রদানের হার শতকরা ৭০ ভাগ। তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে আমরা মনে করি, বাংলাদেশের ইতিহাসে অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম।

ড. মো. আব্দুল আলীম জানান, ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ মোট ১শ’ ৯৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ২৬টি ভোট কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেছে। পর্যবেক্ষণকৃত ভোট কেন্দ্রের ৯৩ দশমিক ৬ ভাগ ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট, ৯৫ দশমিক ১ ভাগ কেন্দ্রে বিএনপি প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট ও ৯২ দশমিক ৯ ভাগ কেন্দ্রে জাতীয় পার্টি প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট ছিল। ভোট গণনা চলাকালে কোনো প্রকার সহিংসতা দেখা যায়নি। সেই সঙ্গে কোনো ভোট কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত করা হয়নি কিংবা কোনো পোলিং এজেন্টের পক্ষ থেকে কোনো প্রকার অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্য ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ বলেন, প্রতিটি রাজনৈতিক দল আলাদা প্রতিষ্ঠান দলগুলো তাদের দলীয় দৃষ্টিকোণ থেকে বিভিন্ন বক্তব্য দিতে পারে। কিন্তু বাস্তব অবস্থা বিবেচনা করবে জনগণ।

তিনি বলেন, নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করার পূর্বে জনগণকে ইভিএম সম্পর্কে আরও জানাতে হবে। আমি দেখেছি রংপুর সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজে ইভিএম ব্যবহার করা হয়েছে, সেখানে কোনো প্রকার গাফিলতি ছিল না। দুই বার সমস্যা দেখা দিয়েছে তাৎক্ষণিকভাবে তার সমাধান করা হয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার ১৩ মিনিটের মধ্যে আমরা রেজাল্ট পেয়েছি।

সাংবাদিক সম্মেলনে ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্য মো. আব্দুল আউয়াল ও মো. হারুন অর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ