ঢাকা, শুক্রবার 29 December 2017, ১৫ পৌষ ১৪২৪, ১০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হলে নবীকুল শিরোমণি রাসূলে করীম (সা.) আদর্শের বিকল্প নেই

 

বায়তুশ শরফের পীর বাহরুল উলুম শাহ মাওলানা মুহাম্মদ কুতুব উদ্দিন বলেছেন, রাসূলে করিম (সা.) ছিলেন পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোৎকৃষ্ট মহাপুরুষ, নবী কুলের শিরোমণি এবং বিশ্ববাসীর জন্য রহমত। তাঁর  উন্নত  চরিত্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো তিনি যেমন ছিলেন বিনয়ী তেমন ছিলেন মিষ্টভাষী। তিনি জীবনে কোন দিন কাউকে রুঢ় ব্যবহার বা কটু কথা দ্বারা কষ্ট দেননি। দাসদাসী থেকে শুরু করে সকল অধীন মানুষদের প্রতি তিনি সর্বাধিক মানবোচিত আচরণ করতেন। রাসূলে করীম (সা.) সত্য ও ন্যায়ের খাতিরে সেই ইয়াহুদীর পক্ষে রায় দিয়ে সুবিচার কায়েম করার ক্ষেত্রে এক অনুপম আদর্শ স্থাপন করেছেন।

প্রধান আলোচক মাওলানা মামুনুর রশীদ নুরী বলেছেন, পৃথিবীতে যখন মানবিক মূল্যবোধের বিকাশ এবং ব্যক্তির গঠনে সহায়ক কোন উপাদান বিদ্যমান ছিল না। তখনই মদিনার সনদের সাথে সংশ্লিষ্ট শ্রেণীর জনগোষ্টিকে একটি স্বতন্ত্র  উম্মাহ রুপে চিহ্নিত করা হয়েছে এর মাধ্যমে আরবের গোত্র ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থার আমুল সংস্কার সাধান করে একে জাতিগত পর্যায়ে নিয়ে আসেন এবং জাতি, ধর্ম, গোত্র নির্বিশেষে সকল জনগোষ্টির সমন্বয়ে একটি বৃহত্তম জাতি গঠন করেছিলেন। মাওলানা নূরী আরো বলেন, রাসুলের (স:) প্রতিষ্ঠিত মদিনা রাষ্ট্রটি ছিল ইসলাম আদর্শ, মূল্যবোধ, নীতিমালা ও দর্শনের আলোকে গঠিত একটি জনকল্যাণ মূলক আদর্শ রাষ্ট্র। তাই বর্তমান ঝঞ্জা বিক্ষুদ্ধ পৃথিবীতে রাসুলের (সা.) প্রদর্শিত পন্থা অনুস্মরণ করেই কেবল এই ধরনের জনকল্যাণ মূলক আদর্শ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা সম্ভব।

গতকাল রাতে চট্টগ্রাম নগরীর মাদারবাড়ী  লোহা মার্কেট চত্বরে বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ যুব সংঘের উদ্যোগে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিলে প্রধান অতিথি ও প্রধান আলোচকের বক্তব্যে বায়তুশ শরফের পীর শাহ মাওলানা কুতুব উদ্দিন ও মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা মামুনুর রশীদ নূরী উপরোক্ত কথা বলেন। বিশিষ্ট সমাজ সেবক হাজী মুহাম্মদ জমির আহমদ সর্দারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে বিশেষ অতিথি ছিলেন মাওলানা কাজী শিহাব উদ্দিন। আলোচনা পেশ করেন মাওলানা রবিউল আলম, মাওলানা নুরুন্নবী ও মাওলানা হাফেজ মহি উদ্দিন প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ