ঢাকা, রোববার 31 December 2017, ১৭ পৌষ ১৪২৪, ১২ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সংস্কারের এক মাসের মধ্যেই সড়কে ফাটল

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) : তাড়াশ হইতে সলঙ্গা পর্যন্ত রাস্তা ফাটল খানা-খন্দে ভরপুর সংগ্রাম

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) : তাড়াশে ছয় কিলোমিটার সড়কের কাজ শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যেই সড়কের বিভিন্ন অংশে ফাটল ও পিচ উঠে গিয়ে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। মূলত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিম্নমানের ইট, বালু, খোয়া, বিটুমিন ব্যবহার করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। তারা ওই সড়কটির মেরামতের, দাবি, জানিয়েছেন।
নির্বাহী প্রকৌশলী এলজিইডি সিরাজগঞ্জের তত্ত্বাবধানে ও সরকারি অর্থায়নে মেসার্স পদ্মা কনস্ট্রাকশন নামের এক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তাড়াশ থেকে সলঙ্গা সংযোগ সড়কের তাড়াশ হাসপাতাল এলাকা থেকে প্রায় ছয় হাজার ২০ মিটার পর্যন্ত সড়কটি নতুনভাবে প্রশস্তকরণ ও সংস্কার করার জন্য ২০১৬-১৭ অর্থবছরে কার্যাদেশ গ্রহণ করে। সংস্কার কাজ শেষ করার তারিখ ছিল ২০১৭ সালের আগস্ট পর্যন্ত। পরে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বর্ধিত সময় নিয়ে বর্তমানেও কাজ করে যাচ্ছে।
তাড়াশের কৃষ্ণাদীঘি বাজারের পশ্চিম পাশে মসজিদের সামনে সড়কে ফাটল ধরে পিচ উঠে গিয়ে খানাখন্দের সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়া নিম্নমানের বিটুমিন ব্যবহার করায় কার্পেটিং করার এক মাস অতিবাহিত হতে না হতেই সড়কের বিভিন্ন স্থানে ফাটল ও খানাখন্দের, সৃষ্টি, হচ্ছে।
স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, সড়কটির কাজ খুব নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে করায় এমন ঘটনা ঘটছে। বোয়ালিয়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আবদুল গফুর বলেন, আমরা এ বিষয়ে সড়কের তদারক কর্মকর্তা উপজেলা উপ-সহকারী প্রকৌশলী ইসমাইল হোসেনকে বার বার অনুরোধ করে বলার পরও কিছুই হয়নি। নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করা প্রসঙ্গে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স পদ্মা কনস্ট্রাকশনের স্বত্বাধিকারী লাকি আহমেদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
উপজেলা প্রকৌশলী হরশিৎ সাহা বলেন, আমি মাত্র এই কর্মস্থলে যোগদান করেছি। সড়কটি, পরিদর্শন, করে, প্রয়োজনীয়, ব্যবস্থা, নেওয়া, হবে।
এলজিইডি সিরাজগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, চূড়ান্ত বিল দেওয়া হয়নি। সড়কের কাজ পর্যবেক্ষণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ