ঢাকা, মঙ্গলবার 2 January 2018, ১৯ পৌষ ১৪২৪, ১৪ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সাব্বির-তামিমের শাস্তি দিয়ে নতুন বছর শুরু

 

স্পোর্টস রিপোর্টার : ক্রিকেটে নতুন বছরের শুরুটা হলো দুই ক্রিকেটারের শাস্তি দিয়ে।  বছরের প্রথম দিনেই কঠিন শাস্তি পেতে হলো জাতীয় দলের ক্রিকেটার সাব্বির রহমানকে। সেই সাথে জরিমানা শাস্তি পেতে হয়েছে ওপেনার তামিম ইকবালকেও। কয়েকদিন আগের মাঠের বাইরের এক বিতর্কিত ঘটনায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সাব্বির রহমানকে কঠিন শাস্তি দিল। জাতীয় ক্রিকেট লিগের শেষ রাউন্ডে রাজশাহী-ঢাকা মেট্রো ম্যাচ চলার সময় এক কিশোরকে মারধর করে বিতর্কিত ঘটনার জন্ম দেন সাব্বির। এই ঘটনায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়ার পাশাপাশি ঘরোয়া ক্রিকেটে ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা আর ২০ লাখ টাকা জরিমানাও দিতে হবে। এর আগে বিপিএলের পঞ্চম আসরে আম্পায়ারের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে দেড় লাখ টাকা জরিমানা দিয়েছিলেন সাব্বির।  গতকাল বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান জানিয়েছেন,‘ডিসিপ্লিনারি কমিটি সাব্বিরের এসব শাস্তির সুপারিশ করেছে। আর বোর্ড তা বহাল রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ একই সঙ্গে এবারই তাকে শেষ সুযোগ দেয়া হচ্ছে বলে সুপারিশ করা হয়। ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ করলে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ করা হতে পারে। শৃঙ্খলা কমিটির এসব সুপারিশ মিডিয়ার মাধ্যমে সবাইকে সভাপতি জানালেও তা পাস হবে বিসিবির আগামী কার্যনির্বাহী কমিটির সভায়। তবে কিশোরকে মারধরের অভিযোগ অবশ্য স্বীকার করেননি সাব্বির। সাব্বির বলেন,‘ছেলেটা আমার এলাকার ছোট ভাই, আমি তাকে চিনি। আমি মজা করে তাকে কয়েকটা চড় দিয়েছিলাম। যেভাবে খবর প্রকাশ হয়েছে, বিষয়টি মোটেও তেমন নয়।’ গত ২১ ডিসেম্বর ঘটনার দিনই ম্যাচ রেফারি মৌখিকভাবে বিষয়টি রিজার্ভ আম্পায়ারকে অবহিত করেন। পরদিন সাব্বির ও তার দল রাজশাহীর ম্যানেজারকে ডেকে তাদের বক্তব্য  শোনেন ম্যাচ রেফারি। তখনও নাকি ম্যাচ রেফারি শওকাতুর রহমান হুমকি দিয়েছিলেন সাব্বির। এ বিষয়ে সাব্বির বলেন,‘সেদিন আমার মেজাজ খারাপ ছিল। আমি ম্যাচ  রেফারির সঙ্গে বাজে ব্যবহার করেছি। আমার এমন করা উচিত হয়নি। আমি ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করে স্যরিও বলেছি।’ রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে ২১ ডিসেম্বর লাঞ্চ বিরতির সময় ১২ বছরের এক কিশোর গ্যালারি থেকে মজা করে কিছু একটা বলেছিল সাব্বিরকে। আর তাতে খেপে যান জাতীয় দলের এই ব্যাটসম্যান। পরিচিত এক ছেলেকে দিয়ে গ্যালারি থেকে ওই কিশোরকে ধরে এনে সাইটস্ক্রিনের পেছনে মারধর করেন তিনি। পরদিন সাব্বিরের বিরুদ্ধে গুরুতর শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ এনে বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগে ম্যাচ রেফারি শওকাতুর রহমান প্রতিবেদন জমা দেন। 

তামিমের ৫ লাখ টাকা জরিমানা

এছাড়া বিপিএল চলাকালিন উইকেট নিয়ে বাজে মন্তব্য করায় তামিম ইকবালকে ৫ লাখ টাকার জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এ  ঘোষণা দেন। শুধু জরিমানা করাই নয়, তামিম ইকবালকে একই সঙ্গে ভবিষ্যতের জন্য সতর্কও করে দেয়া হয়েছে। উইকেট নিয়ে তামিম যেসব কথা বলেছেন,সেগুলোকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ক্ষতিকর হিসেবে উল্লেখ করেন বিসিবি সভাপতি। নাজমুল হাসান পাপন বলেন,‘তামিমের কথাবার্তা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ক্ষতিকর।’ গত ২ ডিসেম্বর রংপুর রাইডার্স ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ম্যাচে অসমান বাউন্সের জন্য মিরপুরের উইকেটের সমালোচনা করেছিলেন দুই দলের অধিনায়কই। ঢাকা পর্বে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে এক ম্যাচে খুবই স্লোা এবং লো উইকেটে খেলেন তামিম-মাশরাফিরা। ৯৭ রানে অলআউট হয়ে গিয়েছিল রংপুর। এরপর ওই ম্যাচ জিততে তামিমের কুমিল্লাকেও  বেশ বেগ পেতে হয়েছিল। ম্যাচ শেষে উইকেটের সমালোচনা করেন তামিম-মাশরাফি দু’জনই। তবে, তামিম ইকবাল ছিলেন বেশি আক্রমণাত্মক। তার বক্তব্যই বিসিবির খেলোয়াড় আচরণবিধির লঙ্ঘণ বলে তখন থেকেই আলোচিত হচ্ছিল। উইকেটকে ‘জঘন্য’ বলতেও দ্বিধা করেননি দেশসেরা ওপেনার। মিরপুরের উইকেট নিয়ে ‘বাজে ভাষায়’ মন্তব্য করায় তামিম ইকবালকে শোকজ করেছিল বিসিবি। ১৪ ডিসেম্বর শৃঙ্খলা কমিটির মুখোমুখি হন তামিম। শুনানিতে তামিমের উপলব্ধি, আরেকটু মার্জিত শব্দ ব্যবহার করা উচিত ছিল তার। এজন্য দুঃখ প্রকাশ করতেও দ্বিধা করেননি  দেশসেরা ওপেনার। শৃঙ্খলা কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে তামিমকে জরিমানা করা হয়েছে। তবে শুনানিতে তামিমের বক্তব্য নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন বিসিবির পরিচালক ও কর্মকর্তারা। শুনানি থেকে বের হয়ে মিরপুরে সেদিন তামিম বলেছিলেন, ‘আমার হয়তো বা আরেকটু ভালো শব্দ ব্যবহার করা উচিত ছিল। ভবিষ্যতে আমি আরেকটু সতর্ক থাকব। তারাও এটা ভালোভাবে নিয়েছেন। উইকেট ভালো না হলে বলতে পারব না যে, তা না। অবশ্যই বলতে পারব। আমি জিনিসটা আরো সুন্দরভাবে বলতে পারতাম।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ