ঢাকা, মঙ্গলবার 2 January 2018, ১৯ পৌষ ১৪২৪, ১৪ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

৫ জানুয়ারি মার্কা প্রার্থী ও ভোটারবিহীন কোন নির্বাচন বাংলাদেশে আর হতে দেয়া হবে না

চট্টগ্রাম অফিস : বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, সরকার মিথ্যা মামলা দিয়ে এবং জেল, জুলুম ও নির্যাতনের মাধ্যমে ক্ষমতাকে পুনরায় দীর্ঘ মেয়াদে কুক্ষিগত করার জন্য ষড়যন্ত্র করছে কিন্তু সরকারের সেই নীল নকশা বুমেরাং হয়ে যাবে। বিএনপি জনগণকে সম্পৃক্ত করে আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে বিএনপির সাথে রাজনৈতিক সংলাপে বসতে বাধ্য করবে। ৫ জানুয়ারি মার্কা প্রার্থী ও ভোটারবিহীন কোন নির্বাচন বাংলাদেশে আর হতে দেয়া হবে না।
গতকাল বুধবার সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম মহানগরীর মুসলিম ইনস্টিটিউট হলে সাবেক জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল ফোরামের উদ্যোগে সদ্য প্রয়াত চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলীর স্মরণে আয়োজিত শোক সভায় আবদুল্লাহ আল নোমান প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।
আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, দেশে দুর্নীতি ও লুটপাটের মহোৎসব চলছে। চাল, পেঁয়াজ, বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানিসহ সব নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। সরকার জনবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এই অবস্থায় জাতীয় সংসদ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ ৩০টির বেশি আসন পাবে না।
আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, বিএনপির রাজনীতি হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের রাজনীতি। যেখানে মুক্তিযুদ্ধের রাজনীতি থাকবে না, সেখানে সংগঠন হবে না। জেল, জুলুম, মিথ্যা মামলা ও হামলা রাজনৈতিক নেতাদের নিত্য সঙ্গী, এগুলোকে যারা আলিঙ্গন করতে পারবে না, তারা নেতৃত্ব দিতে পারবে না।
আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, সরকার মিথ্যা ও ভিত্তিহীন মামলায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে। এটি হচ্ছে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। এই ষড়যন্ত্র আমাদের রুখে দিতে হবে। প্রয়াত ছাত্রদল নেতা মোহাম্মদ আলীকে একজন দক্ষ ও শ্রেষ্ঠ সংগঠক উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রয়াত মোহাম্মদ আলীর আদর্শকে ধারণ করে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথের আন্দোলন জোরদার করতে পারলে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার অনেক সহজ হবে।
চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি নাজিমুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাবেক সদস্য সচিব ইয়াছিন চৌধুরী লিটনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শোক সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক  রাষ্ট্রদূত গোলাম আকবর খোন্দকার। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচার সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসাইন। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে চট্টগ্রাম মহানগর, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম উত্তর ও দক্ষিণ জেলায় নেতৃত্বদানকারী নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে আবু সুফিয়ান, চাকসু ভিপি নাজিম উদ্দিন, এস.এম. ইকবাল হোসেন, জসীম উদ্দিন শিকদার, নুরুল আমিন, শাখাওয়াত জামাল দুলাল, মোশারফ হোসেন দিপ্তী, আহমেদুল আলম রাসেল প্রমুখ।
প্রধান বক্তার বক্তব্যে বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী বলেন, প্রয়াত ছাত্রদল নেতা মোহাম্মদ আলী তৃণমূল থেকে উঠে আসা একজন বলিষ্ট সংগঠক ছিল। সাংগাঠনিক দক্ষতার মাধ্যমে সে সবার কাছে স্থান করে নিয়েছিল। এ্যানী বলেন, আমরা একটা কঠিন সময় পার করছি। ১০ বছর ধরে আমরা ক্ষমতার বাইরে আছি। শেখ হাসিনা যে প্রক্রিয়ায় ১০ বছর ধরে ক্ষমতা ভোগ করছেন ঠিক একইভাবে আগামী ৫ বছর পুনঃরায় ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করার জন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে। এই ষড়যন্ত্র রুখে দেয়ার জন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়ার আগেই আমাদেরকে মাঠে নামতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ