ঢাকা, মঙ্গলবার 2 January 2018, ১৯ পৌষ ১৪২৪, ১৪ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইন্দুরকানীতে আ’লীগের দুই গ্রুপ মুখোমুখি

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) সংবাদদাতা : ইন্দুরকানীতে ইউনিয়ন আ’লীগের বর্ধিত সভা ও সদস্য সংগ্রহকে কেন্দ্র করে উপজেলা আ’লীগের দু’ গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। স্থানীয় ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, এমপি আউয়ালের অনুসারীরা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে উপেক্ষা করে পত্তাশী ইউনিয়ন আ’লীগ উপজেলা কার্যালয়ের সামনে আজ বর্ধিত সভা ও সদস্য সংগ্রহের প্রচার চলছে। বর্ধিত সভা ও সদস্য সংগ্রহে প্রধান অতিথি থাকবেন জেলা আ’লীগের সভাপতি ও পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য একেএমএ আউয়াল। বর্ধিত সভা ও সদস্য সংগ্রহ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এমপি আউয়াল গ্রুপ বৃহস্পতিবার বিকালের সভা অনুষ্ঠানের জন্য উপজেলার ইন্দরকানী বাজারের পত্তাশী ইউনিয়ন পরিষদের সামনের সড়কের উপর মঞ্চ করে প্রচারণা চালাচ্ছে। অপরদিকে জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র মোঃ হাবিবুর রহমান মালেক ও জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউল আহসান গাজীর অনুসারীরা উপজেলা আ’লীগ কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীদের নিয়ে অবস্থান করছেন। মোটরসাইকেল মহড়াসহ তারা ইন্দুরকানী বাজারে শোডাউন দিচ্ছেন। এনিয়ে সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। অপরপক্ষে এমপি আউয়ালের অনুসারীরা তাদের প্রোগ্রাম সফল করার জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছে।
পত্তাশী ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মনিরুজ্জামান সিকদার জানান, আজ ২৮ ডিসেম্বর বিকালে জেলা আ’লীগের সভাপতি ও পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য একেএমএ আউয়াল ইউনিয়ন আ’লীগের বর্ধিত সভা ও সদস্য সংগ্রহ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন। সাংগঠনিক নিয়ম মেনেই প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়েছে। আমাকে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মৃধা মনিরুজ্জামান সহ বিভিন্ন ব্যক্তি হুমকি দিয়েছে। তারপরও আমরা শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠান চালিয়ে যাব।
উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মৃধা মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, জেলা আ’লীগের সভাপতি কোন বর্ধিত সভা করতে হলে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে জানাবেন। কিন্তু এই বিষয়ে আমাদেরকে কোন কিছু জানানো হয়নি। গঠনতন্ত্র পরিপন্থি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি তোবারেক আলী হাওলাদার ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ মনিরুজ্জামান সিকদার উপজেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দকে না জানিয়ে এ সভার আয়োজন করেছে। তাদের আয়োজিত এই সভা সম্পূর্ণ অবৈধ। আমরা উপজেলা আ’লীগ ও সহযোগী সংগঠন এর তীব্র নিন্দা জানাই।
জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউল আহসান গাজী জানান, জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে উপেক্ষা করে ইউনিয়ন আ’লীগ বর্ধিত সভা ও সদস্য সংগ্রহ আয়োজন করা সংগঠন বিরোধী। দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার জন্য এ ধরণের কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ