ঢাকা, মঙ্গলবার 2 January 2018, ১৯ পৌষ ১৪২৪, ১৪ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনায় কলেজ ছাত্রীকে গণধর্ষণ গ্রেফতার ১

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর আলীর ক্লাব দারুস সালাম মহল্লার একটি ঘরে আটকে রেখে হাত পা মুখ বেঁধে এক কলেজ ছাত্রী (১৮) কে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোনাডাঙ্গা মডেল থানা পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত ইমরান হাওলাদার (২০) নামের অভিযুক্ত এক যুবককে গ্রেফতার করেছে। রোববার তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ আদালতে সোপর্দ করা হলে মুখ্য মহানগর হাকিম এম এল বি মেছবাহ উদ্দিন আহমেদ কারাগারে প্রেরণের আদেশ দিয়েছেন। এছাড়া রিমান্ড আবেদনের শুনানীর জন্য ২৬ ডিসেম্বর মঙ্গলবার দিন নির্ধারণ করেছেন।
সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় দায়ের হওয়া মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী থেকে জানা গেছে, পূর্ব পরিচয়ের জের ধরে ইমরান গত ২৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় নগরীর মজিদ সরণীস্থ কফি হাউজের সামনে থেকে ওই কলেজ ছাত্রীকে মোটরসাইকেলে করে নিয়ে যায়। এরপর আলীর ক্লাব দারুস সালাম মহল্লার সাগরের ভাড়া বাসার কক্ষে নিয়ে আটকে রেখে হাত পা বেঁধে ওই ছাত্রীকে গণধর্ষণ করা হয়। পুনরায় তাকে গণধর্ষণের চেষ্টাকালে চিৎকার চেচামেচীতে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন। ঘটনাস্থলে এসে এলাকাবাসী কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করে তাদের বাড়িতে পাঠায়। এ সময় ঘটনার সাথে জড়িত যুবকরা পালিয়ে যায়।
এ ঘটনায় রোববার সকালে ওই ছাত্রী বাদি হয়ে পাঁচ জনের নাম উল্লেখ করে সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধিত ২০০৩’র ৯(১)/৩০ ধারায় মামলা দায়ের করেছেন (নং-৩৭)। মামলার এজাহারভুক্ত আসামীরা হলো-নবপল্লী কবি নজরুল ইসলাম সড়কের শাহীনদের বাড়ির ভাড়াটিয়া মো. শাহজাহান হাওলাদারের ছেলে ইমরান হাওলাদার (২০), সোনাডাঙ্গা মধ্য বউ বাজার এলাকার আরমান (২১), সোনাডাঙ্গা ২২ তলা ভবনের পাশে মাসুম (২৩), রাব্বি ওরফে টেটু রাব্বি (২২) ও দারুল আমান মহল্লার সাগর (২৩)।
সোনাডাঙ্গা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মমতাজুল হক জানান, পূর্ব পরিচয়ের জের ধরে মেয়েটিকে ডেকে নিয়ে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পরিদর্শন ও অভিযুক্ত প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ভিকটিমের ডাক্তারী পরিক্ষা সম্পন্ন করে তাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ