ঢাকা, বুধবার 3 January 2018, ২০ পৌষ ১৪২৪, ১৫ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

২০১৮ সাল হবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়কে সম্পূর্ণ সেশনজটমুক্ত ঘোষণার বছর  -----ভিসি প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ

 

গাজীপুর সংবাদদাতা : জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ে ২৮দিন ব্যাপী শিক্ষকদের বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ মঙ্গলবার শুরু হয়েছে। গাজীপুরস্থ ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্ত্বাবধানে কলেজ এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (ঈঊউচ)-এর আওতায় অধিভুক্ত  স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর কলেজে পাঠদানকারী শিক্ষকগণের জন্য এ প্রশিক্ষণ (২য় ব্যাচের) কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ।

জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেন, ২০১৮ সালের মধ্যভাগ থেকে জাতীয় বিশ^বিদ্যালয় হবে সম্পূর্ণ সেশনমুক্ত। তাই এ বছরটি হবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালকে সম্পূর্ণ সেশনজট মুক্ত ঘোষণার বছর। জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের জন্য সেশনজট ছিল বড় চ্যালেঞ্জ। ২০১৫ সালে বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সেশনজট মুক্ত করার উদ্দেশ্যে ‘ক্রাশ প্রোগ্রাম’ নামে এক বিশেষ একাডেমিক প্রোগ্রাম চালু করে। এ প্রোগ্রাম অনুযায়ী বর্তমানে বিশ^বিদ্যালয়ের সকল একাডেমিক কার্যক্রম নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২০১৩-২০১৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের কোনো সেশনজট নেই। ২০১৩ সালের পূর্বে যারা ভর্তি হয়েছিল তাদের জীবনে ছিল দুর্বিষহ সেশনজট। প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য প্রফেসর ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু, প্রফেসর ড. মোঃ মশিউর রহমান, ইংরেজি, পদার্থবিজ্ঞান, সমাজকর্ম ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ের সম্মানিত কোর্স এডভাইজার প্রফেসর ড. তাজিন আজিজ চৌধুরী, প্রফেসর শাকের আহমেদ, প্রফেসর ড. মোঃ আবুল হোসেন ও প্রফেসর ড. মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ¯œাতকোত্তর শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত ডিন প্রফেসর ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন।

ইংরেজি, পদার্থবিজ্ঞান, সমাজকর্ম ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ের ২৮ দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণে ১৬০ জন শিক্ষক অংশগ্রহণ করছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ