ঢাকা, বৃহস্পতিবার 4 January 2018, ২১ পৌষ ১৪২৪, ১৬ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা ঢাবি’র মর্যাদা ফিরিয়ে আনতে চাই -শওকত মাহমুদ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে নির্বাচনে প্রার্থীদের চাঁদপুরে পরিচিতি সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ

চাঁদপুর সংবাদদাতা : চাঁদপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস্’ প্রতিনিধি নির্বাচন-২০১৭ জাতিয়তাবাদী পরিষদের প্যানেল পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল ৩ জানুয়ারি বুধবার বিকেলে শহরের মুনিরা ভবন মিলনায়তনে জাতিয়তাবাদী পরিষদ প্রার্থী ও স্থানীয় ভোটারদের উপস্থিতিতে এই পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে জাতিয়তাবাদী পরিষদ প্যানেলের প্রার্থী সাংবাদিক শওকত মাহমুদ তার বক্তব্যে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস্’ প্রতিনিধি নির্বাচনে দুটি পরিষদ অংশ গ্রহণ করছে। এর একটি হচ্ছে বর্তমান জালিম সরকারের প্যানেল আর অপরটি জাতিয়তাবাদী পরিষদের মজলুমের প্যানেল। আওয়ামী জালিম সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে দুঃশাসন কায়েম করেছে। তাই যেখানেই আওয়ামী জালেমের প্যানেল পাবো সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তুলবো।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস্’ প্রতিনিধি নির্বাচনে জাতিয়তাবাদী পরিষদ প্যানেলের প্রার্থী ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির ভাইচ চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ (ব্যালট নং ৭৩) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সুপার নিউম্যারারী প্রফেসর ড. সদরুল আমিন (ব্যালট নং ৭৭), আবুজর গিফারী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যাপক এবিএম ফজলুল করিম (ব্যালট নং ১৪), জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মো. সাইফুল ইসলাম ফিরোজ (ব্যালট নং ৬৬), বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন (ব্যালট নং ১৬)। সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও দৈনিক চাঁদপুর দিগন্তে সম্পাদক ও প্রকাশক অ্যাড. মো. শাহজাহান মিয়া,
প্রধান অতিথি বলেন,  দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ২০১৮ সালকে গণতন্ত্রের বছর বলেছেন। গণতন্ত্র রক্ষার এই আন্দোলন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট নির্বাচন দিয়ে শুরু করবো। এই জালিম সরকারের আমলে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তার খ্যাতি হারিয়েছে। আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্জাদাকে ফিরিয়ে আনতে চাই। তাই আগামী সিনেট নির্বাচনে আপনাদের ২৫টি ভোট সযতেœ দিবেন। হাদিসে আছে জালিমকে যারা সমর্থন করবে তাদের বিচার মহান আল্লাহ করবেন। আগামী সংসদ নির্বাচনে বাংলার জনগণ জালিম সরকারের বিচার করবে।
তিনি আরো বলেন, গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোল করতে গিয়ে আমরা মামলা খেয়েছি। এখনো প্রতিদিন কোটে হাজিরা দিচ্ছি, তবুও আপোশ করেনি। শেখ হাসিনার অধিনে বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচনে যাবে না।
চাঁদপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাড. সলিম উল্যাহ সেলিমের সভাপতিত্বে ও সিনেট নির্বাচনে চাঁদপুরের সমন্বয়কারীর সদস্য সচিব অ্যাড. আব্দুল্লাহীল বাকীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, আরো জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মাহাবুব আনোয়ার বাবলু, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. জহির উদ্দিন বাবর, সাবেক স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. মোবারক হোসেন, জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী অ্যাড. মুনিরা বেগম চৌধুরী, জেলা শিক্ষক-কর্মচারি ঐক্যজোটের সভাপতি অধ্যাপক মোশারফ হোসেন লিটন, হাজিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ড. আলমগীর কবির পাটওয়ারী, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক জাহাঙ্গির হোসেন খান।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সেলিমুস সালাম, মুনির চৌধুরী, ফেরদৌস আলম বাবু, ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শরীফ মো. ইউনুছ, সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. শামসুল ইসলাম মন্টু, জেলা যুবদলের সভাপতি শাহজালাল মিশন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব হযরত আলী ঢালী, জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক ফয়সাল গাজী বাহার, জেলা সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি মোবারক হোসেন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. হারুনুর রশিদ, জেলা জামাত নেতা মো. হোসেন বিএসসি, শহর জামাতের আমির আরিফ উল্যাহ।
উল্লেখ: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস্’ প্রতিনিধি নির্বাচনে -২৫জন নির্বাচন করবেন। এই নির্বাচিত ২৫জন বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার মূল কেন্দ্র সিনেটে দায়িত্ব পালন করবেন। এ নির্বাচনের আগমী ৬ জানুয়ারি শুরু হয়ে ১৩ ও ২০ জানুয়ারি তিন দফায়  ভোটগ্রহণ হবে। এবার রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে সারা বাংলাদেশে ভোটার প্রায় ৫৮ হাজার। এর মধ্যে চাঁদপুরে প্রায় ৪শ’ ভোটার রয়েছে। আগামী ৬ জানুয়ারী চাঁদপুর সরকারি কলেজ কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে।
এবারের নির্বাচনে জাতিয়তাবাদী পরিষদ প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন ড. আ ফ ম ইউসুফ হায়রাদ (ব্যালট নং ২), ড. উম্মে কুলসুম রওজাতুর রোম্মান (ব্যালট নং৭), একেএম ফজলুল হক মিলন (ব্যালট নং ১১), এটিএম আবদুল বারী ড্যানী (ব্যালট নং ১৩), অধ্যাপক এবিএম ফজলুল করিম (ব্যালট নং ১৪), এবিএম মোশারফ হোসেন (ব্যালট নং ১৬), ডা. এসএম রফিকুল ইসলাম বাচ্চু (ব্যালট নং ২৩), কেএম আমিরুজ্জামান শিমুল (ব্যালট নং ২৫), ড. চৌধুরী মাহমুদুল হাসান (ব্যালট নং ২৭), ড. জিন্নাতুন নেছা তাহমিদা (ব্যালট নং ২৯), অ্যাড. তৈমুর আলম খন্দকার (ব্যালট নং ৩১), ডা. প্রভাত চন্দ্র বিশ্বাস (ব্যালট নং ৩৫), ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার (ব্যালট নং ৩৬), ড. মোহাম্মদ আবদুর রব (ব্যালট নং ৪৩), ড. মোহাম্ম আলমোজাদ্দেদী আলফেছানী (ব্যালট নং ৪৬), ডা. মোহাম্মদ রফিকুল কবির লাবু (ব্যালট নং ৪৮), অধ্যক্ষ মো. আশরাফুল হক (ব্যালট নং ৫৭), অ্যাড. মো. মাসুদ আহমেদ তালুকদার (ব্যালট নং ৬১), ডা. মো. মোয়াজ্জেম হোসেন (ব্যালট নং ৬২), ড. মো. শরীফুল ইসলাম দুলু (ব্যালট নং ৬৫), মো. সাইফুল ইসলাম ফিরোজ (ব্যালট নং ৬৬), অধ্যক্ষ মো. সেলিম ভূইয়া (ব্যালট নং ৬৭), মো. সেলিমুজ্জামান মোল্লা সেলিম (ব্যালট নং ৬৮), শওকত মাহমুদ (ব্যালট নং ৭৩) প্রফেসর ড. সদরুল আমিন (ব্যালট নং ৭৭)।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ