ঢাকা, শুক্রবার 5 January 2018, ২২ পৌষ ১৪২৪, ১৭ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জিনাতের বন্ধু ফুলমতি

 

 রুহুল আমিন রাকিব : ছোট্ট খুকি জিনাত,  খুব ফুট ফুটে দেখতে, নরম তুলতুলে গাল, মায়াবী হাসি, তবে আজ কয়েক দিন ধরে জিনাতের মন খুব খারাপ, কারণ একটাই আর তা হলো, ছোট্ট খুকি জিনাতের প্রজাপতি বন্ধু ফুলমতির জন্য, ফুলমতি নামটা জিনাতই রাখছে,

কারণ প্রজাপতি সারাদিন ফুলে ফুলে উড়ে বেড়ায় বলেই,আদর করে প্রজাপতিকে ফুলমতি বলেই ডাকে জিনাত।

আর এই প্রজাপতিই হলো জিনাতের সব চাইতে কাছের বন্ধু,জিনাত যখন সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে এসে বাসার বেলকনিতে বসে,ঠিক তখনি ছোট্ট জিনাতের বন্ধু ফুলমতিও তার রঙিন ডানা মেলে উড়ে এসে জিনাতের ফুলের টবে বসে, আহা! কতো সুন্দর না দেখতে ফুলমতি, ফুলমতিকে দেখলে জিনাতের মন একদম ভালো হয়ে যায়,

রোজ সকালে আর বিকেলে ফুলমতি জিনাতের সাথে খেলা করতে আসে, দেখতে দেখতে ফুলমতি আর জিনাতের মাঝে খুব ভাব হয়ে যায়, জিনাত ভুলে যায় তার বাবা মা তাকে একা রেখে  রোজ অফিসে যায়। তবে আজ তিন দিন হতে চললো ফুলমতির কোন খোঁজ খবর নেই, তবে কি ফুলমতি জিনাতের  সাথে আঁড়ি দিয়েছে? না কি জিনাতের আম্মুর মতো করে ফুলমতির আম্মুও তাকে বকে দিয়েছে, জিনাত মনে মনে ভাবে পৃথিবীর সব আম্মুগুলোই কি জিনাতের আম্মুর মতো পচাঁ? আচ্ছা আম্মুরা এতো পচাঁ হয় ক্যান? ছোট্ট জিনাত মনের অজান্তে কতো প্রশ্ন যে করে চলে নিজেকে। নাহ কোন প্রশ্নের সঠিক উত্তর খুঁজে পাচ্ছে না জিনাত, তবে কি ফুলমতি সত্যি আর কোনদিনও আসবে না জিনাত এর কাছে, ফুলমতির জন্য জিনাত এর মন ছটফট করতে থাকে, সারাদিন মন খারাপ করে একা একা বসে থাকে, এদিক ওদিক হাঁ করে তাকিয়ে থাকে, মনে মনে ভাবে এই বুঝি তার প্রিয় বন্ধু ফুলমতি এসে গেছে, নাহ তা আর কখনো হয়ে উঠে না, জিনাত কে কতো কথাই না বলছে ফুলমতি, ওদের দেশে একদিন সে জিনাত কে নিয়ে যাবে, তার সব বন্ধুদের সাথে জিনাতকে পরিচয় করে দিবে, জিনাতকে নিয়ে তার দেশ ঘুরে দেখাবে, আর ফিরে আসার সময় ছোট্ট জিনাতকে মিষ্টি দু’টি,ডানাও উপহার দিবে, আজ সব কিছুই যেন শুধু স্মৃতি জিনাতের কাছে। 

     গোধূলির শেষ বিকেল, যেন জিনাতের কষ্টের ভাগ নিতেই,আজ আকাশ এর মেঘগুলো একটু বেশি কালো হয়ে ছড়িয়ে আছে আকাশময়। বেলকনির ওপারে তাকিয়ে আনমনা হয়ে বসে আছে জিনাত, আর এমন সময় সে শুনতে পায় কে যেন তার কানের কাছে এসে কাঁন্না ভিজা কণ্ঠে বলতেছে বন্ধু, এই যে বন্ধু! আরে তুমি এমন মন খারাপ করে বসে আছো ক্যান? এই যে আমার দিকে তাকাও, এই তো আমি এসেছি তোমার কাছে, তবে এটাই তোমার সাথে শেষ দেখা বন্ধু, আমাকে ক্ষমা করে দিও তুমি, আমার বাবা মা বলছে আর এই দেশে থাকবে না, কারণ তোমাদের কিছু জাতি ভাই, বন জঙ্গল কেটে আগুন জ্বালিয়ে দিতেছে, শুনতেছি কিছু দিন এর মাঝে আমরা যেখানে থাকি ওখানেও না কি  আগুন ধরিয়ে দিবে, বন জঙ্গল কেটে, সেখানে না কি ঘর বাড়ি তৈরি করবে, জানো বন্ধু সেদিনের সেই আগুনে আমার অনেক বন্ধুও পুড়ে মরছে,অনেকে ওদের মা,বাবা,ভাই বোনদের হারিয়েছে, তাই আমার বাবা মা বলছে আমরা আর এই দেশে থাকব না, বিদায় বন্ধু বিদায়, ভালো থাক সব সময়, আর বড় হয়ে অবশ্যই তুমি এই বন জঙ্গল রক্ষা করার আন্দোলন করবে, তোমার সহপাঠীদের বলবে এই সবুজ শ্যামল এর দেশকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে, অবশ্যই তোমাদের মায়া করতে হবে এই পশু,পাখি,আর উপকারি বন্ধু পোকাদের প্রতি। তা না হলে একদিন তোমাদের দেশ থেকে এ ভাবেই হারিয়ে যাবে সকল প্রজাপতি ও পাখ-পাখালি। ফুলমতির কথায় জিনাত অনেক কষ্ট পেলো

আর মনে মনে শপথ করলো একদিন সে অনেক বড় হবে আর রুখে দাঁড়াবে এই মানুষরূপি বন-খেঁকো হায়ানাদের বিরুদ্ধে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ