ঢাকা, শুক্রবার 5 January 2018, ২২ পৌষ ১৪২৪, ১৭ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রাখাইনে সেনারা পেট্রোল বোমা দিয়ে জ্বালিয়ে দেয় রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ি

রাখাইনে সেনাদের দেওয়া আগুনে জ্বলছে রোহিঙ্গাদের বাড়ি ঘর                                       -ছবি এএফপি

৪ জানুয়ারি, এপি : মিয়ানমারের রাখাইনে সেনা সদস্যরাই পেট্রোল বোমা দিয়ে জ্বালিয়ে দেয় রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ি। আগুন নেভানোর চেষ্টা করলে খুলারবিল এবং বর্গিয়াবিলে গ্রামবাসীর উপর নিবির্চার গুলিও চালায় তারা। এসবের ভিডিও এসেছে বার্তা সংস্থা এপির হাতে। এসব ভিডিও ফুটেজ মিলেছে কতুপালং শরণার্থী শিবিরে থাকা বেশ কয়েকজন তরুণের কাছে।

বহমান নাফ নদীর উপর রোহিঙ্গাদের ফেলে আসা নিবাস। মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন থেকে বাঁচতে যারা ঠাঁই নিয়েছে বাংলাদেশে। তবে এখনো বন্ধ হয়নি জন¯্রােত। যদিও শুরু থেকে সু চি সরকার বলে আসছে রোহিঙ্গারা নিজেরাই ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে পালিয়েছে। মিয়ানমারের স্থানীয় গণমাধ্যমও অপ্রচার চালিয়েছে তাদের সর্বশক্তি দিয়ে। কিন্তু বার্তা সংস্থায় এপির অনুসন্ধান বলছে ভিন্ন কথা।

রাখাইনের খুলারবিল এবং বর্গিয়াবিল নামে দুইটি গ্রামে সেনা নিপিড়নের নির্মমতার সাক্ষী ভিডিওতে ধারণ করেছে ২২ বছরের রোহিঙ্গা তরুণ মুজিবুল্লাহ। এখন তার আশ্রয় কুতুপালং শরণার্থী শিবিরে। মুজিবুল্লাহ বলেন, সেনা সদস্যরা গ্রামে ঢুকে বোমা ও পেট্রোল বোমা দিয়ে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়। খবর শুনে পাশের গ্রামে যাই, ফিরে দেখি আমার গ্রামও জ্বলছে। সেই সময় আমার পরিবারের লোকজন ঘর ছেড়ে বেড়িয়ে আসে। তাদের এলোপাতাড়ি গুলী ছোঁড়ে সেনারা। এতে আমার ভাই নিহত হয়।

বিশেষ সফটওয়্যারের মাধ্যমে মুজিবুল্লাহের ধারণ করা ভিডিওটির স্থানের সত্যতা নিশ্চিত করেছে এপি।

বার্তা সংস্থাটি বলছে, রাখাইনে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় যে রোহিঙ্গা নিধন চলছে এই ভিডিওটা তারই প্রমাণ।

রোহিঙ্গাদের একজন বলেন, যখন এসব দৃশ্য দেখি, তখন দেশের কথা মনে পড়ে যায়। স্কুলে যেতাম, বন্ধুদের সাথে কত আনন্দেই না ছিলাম। এখন শুধু বেঁচে আছি। যখন এই ভিডিও দেখি, তখন অনেক খারাপ লাগে। নিজ দেশ, গ্রাম আর মাতৃভূমির টানে মন কাঁদে সব সময়। নতুন বছরে জীবন জীবিকা নিয়ে ক্রমেই দুশ্চিন্তা বাড়ছে ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গার। শরণার্থী শিবিরের স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশ ছেড়ে ফিরতে চায় জন্ম ভিটায় রোহিঙ্গারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ