ঢাকা, শনিবার 6 January 2018, ২৩ পৌষ ১৪২৪, ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

৫ জানুয়ারি বিএনপির আত্মহত্যা দিবস -ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঠেকানোর চেষ্টা করলে শেখ হাসিনার নেতৃত্ব জনগণ তা প্রতিহত করবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র রক্ষা দিবস উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর বনানী মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি একে এম রহমতুল্লাহ সভাপতিত্বে জনসভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য সাহারা খাতুন, ফারুক খান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য হাবিবুর রহমান সিরাজ, ঢাকা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ।
ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকে বিএনপির রাজনৈতিক আত্মহত্যা দিবস। একদিকে জনগণের গণতন্ত্রের বিজয় দিবস, অন্যদিকে সাম্প্রদায়িক শক্তির আত্মহত্যা দিবস। আগামী নির্বাচনে অংশ না নিলে আরেকবার আত্মহত্যা দিবস পালন করতে হবে।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, সময় ও স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না। নির্বাচনও বিএনপি বা কারো জন্য বসে থাকবে না। সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আপনাদের (বিএনপি) ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখান। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণ আপনাদের প্রতিহত করবে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বহুরূপী ব্যারিস্টার সাহেব, আপনাদের সকলে চেনে। দেশে একটু ঝড়-ঝঞ্ঝা দেখলে বিদেশে গিয়ে পালিয়ে থাকেন। ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে বাড়ি দখল করতে গিয়ে আদালতে ধরা খেয়ে রাস্তায় কান্না করেছেন। এই লোক যদি দেশের আইনমন্ত্রী হয়, দেশের বারোটা বেজে যাবে।’
তিনি বলেন, সংবিধান সুরক্ষা দিবস, আজ ঢাকা শহর মিছিলের নগরী। সব রাস্তায় মিছিল আর মিছিল। গণতন্ত্র রক্ষা দিবসে আজ আমাদের শপথ-অঙ্গীকার বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হলে, আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হলে, স্বাধীনতার চেতনাকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে হলে, আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে হবে। দেশে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে শেখ হাসিনাকে আরেকবার ক্ষমতায় আনতে হবে।
এ সময় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে পরাজিত করে মুক্তিযুদ্ধের ধারায় নৌকা বিজয়ী হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ওবায়দুল কাদের।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণের দিনটিকে বিএনপি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করলেও এটি দলটির জন্য ‘রাজনৈতিক আত্মহত্যা দিবস’ বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি আবার ভোট বর্জন করলে তাদেরকে দিবসটি আবার পালন করতে হবে।
ক্ষমতাসীন দল মনে করে, সেদিন ভোট না হলে দেশে আবার অসাংবিধানিক সরকার চেপে বসত।
চতুর্থ বছর পূর্তিতে  গতকাল আওয়ামী লীগ দেশজুড়ে সমাবেশ ও শোভাযাত্রা করেছে। রাজধানীতে বনানী ছাড়াও বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সমাবেশ করেছে দলটি।
বনানীর সমাবেশে কাদের বলেন, ‘আজকে বিএনপির রাজনৈতিক আত্মহত্যা দিবস। একদিকে জনগণের গণতন্ত্রের বিজয় দিবস, অন্যদিকে সাম্প্রদায়িক শক্তির আত্মহত্যা দিবস। আগামী নির্বাচনে অংশ না নিলে আরেকবার আত্মহত্যা দিবস পালন করতে হবে।’
বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঠেকানোর চেষ্টা করলে ২০১৪ সালের মতো আবার তা প্রতিহতের ঘোষণা দেন কাদের। বলেন, ‘সময়, স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না।  নির্বাচন বিএনপি বা কারো জন্য বসে থাকবে না। সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’
‘আপনাদের (বিএনপি) ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখান। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণ আপনাদের প্রতিহত করবে।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা শহর মিছিলের নগরী। সব রাস্তায় মিছিল আর মিছিল। গণতন্ত্র রক্ষা দিবসে আমাদের শপথ-অঙ্গীকার বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হলে, আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে।’
 দেশে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনাকে আরেকবার ক্ষমতায় আসতে হবে বলে জানান আওয়ামী লীগ নেতা। তিনি বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে পরাজিত করে মুক্তিযুদ্ধের ধারায় নৌকা আবার বিজয়ী হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ