ঢাকা, শনিবার 6 January 2018, ২৩ পৌষ ১৪২৪, ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে অনশন ভাঙলেন নন এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা

গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এমপিওভুক্তির দাবিতে অনশনরত শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে অনশন ভঙ্গ করেন -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : আমরণ অনশনের টানা ষষ্ঠ দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্বাসে আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা। এদিন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনশনস্থলে আসেন প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান। তিনি আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে এই আশ্বাসের কথা জানান। এরপর শিক্ষকরা তাদের আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা দেন। ফলে শিক্ষকদের টানা ১১ দিনের আন্দোলনের অবসান ঘটলো। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে আনন্দ ছড়িয়ে পড়ে শিক্ষকদের মধ্যে।
সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার জানান, প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ সাজ্জাদুল হাসান অনশনস্থলে এসে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের বিষয়টি জানালে তারা কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। তিনি বলেন, জননেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা আমাদের মানবিক বিষয়টি বিবেচনা করে ওনার একান্ত সচিব সাজ্জাদ সাহেবকে পাঠিয়েছেন। সাজ্জাদ সাহেব আমাদেরকে মেসেজ দিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো এমপিওভুক্ত করার প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে আমরা অনশনভঙ্গ করে কর্মসূচি প্রতাহার করেছি।
জানা গেছে, গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে শিক্ষকদের কাছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বার্তা পৌঁছে দেন তার একান্ত সচিব সাজ্জাদুল হোসেন। তার সঙ্গে ছিলেন শিক্ষা সচিব সোহরাব হোসাইন ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।
শিক্ষা সচিব জানান, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ নন-এমপিও শিক্ষকদের অনশনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেছেন। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে এমপিওভুক্তি প্রক্রিয়া শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন। নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা বলছেন, দীর্ঘ ১০ থেকে ১৫ বছর বিনা বেতনে শিক্ষাদান কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন তারা। এ কারণে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে তাদের। একই সঙ্গে ধরে রাখা যাচ্ছে না শিক্ষার মান।
 ঘোষণা শোনার পর শিক্ষকদের মধ্যে আনন্দ ছড়িয়ে পড়ে। তারা প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে নানা স্লোগান দিতে থাকেন। সেই সঙ্গে মিডিয়াকেও ধন্যবাদ জানান। খুলনা থেকে আসা শিক্ষক আবদুল জলিল ও কামরুল ইসলাম দৈনিক সংগ্রামকে জানান, ভাই আনন্দের কথা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না! প্রধানমন্ত্রী আমাদের কথা শুনেছেন। এর চেয়ে বড় ব্যাপার আর কী হতে পারে! তিনি আশ্বাস দিয়েছেন, তাই আমরা বাড়ি ফিরে যাবো। একটু আগে ফোনে মেয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। তাকে জানিয়েছি, বাড়ি ফিরছি।
তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের কথা শুনেছেন। আমাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়েছেন। এজন্য তাকে ধন্যবাদ। আমরা তার আশ্বাস নিয়ে বাড়ি ফিরে যাবো।
সংগঠনটির সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলারের ভাষ্য, আমাদের বিশ্বাস ছিল, প্রধানমন্ত্রী আমাদের কথা শুনবেন। এমপিওভুক্ত করার জন্য আমাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। তাই আমরা কর্মসূচি স্থগিত করছি। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। এরপর নন-এমপিও শিক্ষকদের পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙান শিক্ষা সচিব।
সরকারি অনুমোদনে কার্যক্রম চালানো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর এমপিওভুক্তির দাবিতে গত ২৬ ডিসেম্বর থেকে প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন দেশের বিভিন্ন এলাকার কয়েকশ’ শিক্ষক। গত ৩১ ডিসেম্বর থেকে তারা আমরণ অনশন শুরু করেন। টানা অনশনের এই ৬ দিনে শতাধিক শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েন।
গতকাল আমরণ অনশন কর্মসূচি প্রত্যাহারের পর নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহামুদুন্নবী ডলার ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ বিনয় ভূষণ রায়কে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
প্রেসক্লাবের সামনে খোলা আকাশের নীচে শীতের মধ্যে টানা ১১দিন অতিবাহিত করায় অনেকে ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন। টানা ছয়দিনের এই অনশনে ১১৪ শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদের মধ্যে গুরুতর ১৬ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করাও হয়েছিল। আন্দোলনকারী সুব্রত কুমার সানা বলেন, শীতের মধ্যে রাস্তায় থাকায় প্রচুর কষ্ট হয়েছে। অনেকে না খেয়ে থেকেছে। সর্বশেষে প্রধানমন্ত্রী আশ্বস্ত করেছেন এটাই আমাদের জন্য বড় পাওয়া।
পটুয়াখালীর শিক্ষক কিশোর কুমার জানান, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করার আশ্বাস দেওয়ার কথা শোনার পর পরই আমরণ অনশন কর্মসূচি ভাঙার ঘোষণা দেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহামুদুন্নবী ডলার। এসময় অসুস্থ হয়ে ঢলে পড়েন তিনি। পরে পুলিশের সহযোগিতায় শিক্ষক নেতা গোলাম মাহামুদুন্নবী ডলার ও বিনয় ভূষণ রায়কে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।
প্রসঙ্গত, এমপিওভুক্তির দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা। আমরণ অনশন ও অবস্থান ধর্মঘটের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন সময়ে স্মারকলিপি দিয়েছেন তারা। তবুও ২০১৬-১৭ আর ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে নন-এমপিও শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি অথবা বাড়তি ভাতার ব্যবস্থা করতে কোনও বরাদ্দ রাখা হয়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ