ঢাকা, সোমবার 8 January 2018, ২৫ পৌষ ১৪২৪, ২০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হামদর্দের বার্ষিক বিক্রয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত

হামদর্দ ল্যাবরেটরীজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশ-এর বার্ষিক বিক্রয় সম্মেলন-২০১৭ গতকাল রোববার ঢাকাস্থ ফার্মগেট অবস্থিত “কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ কমপ্লেক্রে” অনুষ্ঠিত হয়। হামদর্দের মোতাওয়াল্লী ও সিনিয়র পরিচালক বিপণন ড. হাকীম রফিকুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হামদর্দ ল্যাবরেটরীজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশ-এর চীফ মোতাওয়াল্ল¬ী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ-এর প্রতিষ্ঠাতা ড. হাকীম মোঃ ইউছুফ হারুন ভূঁইয়া।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হামদর্দের পরিচালক অর্থ ও হিসাব মোঃ আনিসুল হক, পরিচালক প্রশাসন অধ্যাপক হাকীম শিরী ফরহাদ, পরিচালক হামদর্দ ফাউন্ডেশন লেঃ কর্ণেল মাহবুবুল আলম চৌধুরী (অবঃ), পরিচালক উৎপাদন  মিহির চক্রবর্তী, মোতাওয়াল্লী এবং পরিচালক পরিকল্পনা ও উন্নয়ন মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন ভূঁইয়া রাসেল, মোতাওয়াল্লী ও পরিচালক এইচ আর ডি ডাঃ নার্গিস মারজান শিল্পী, পরিচালক বিক্রয় হাকীম সাইফ উদ্দিন মুরাদ ভূঁইয়াসহ হামদর্দের কর্মকর্তা, মেডিকেল প্রতিনিধি ও বিক্রয় প্রতিনিধিবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে হামদর্দ ল্যাবরেটরিজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশ-এর চীফ মোতাওয়াল্ল¬ী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ-এর প্রতিষ্ঠাতা ড. হাকীম মোঃ ইউছুফ হারুন ভূঁইয়া বলেন, ভেষজ চিকিৎসা শুধু আমাদের এই অঞ্চলেই জনপ্রিয়তা পাচ্ছেনা বরং সমগ্র বিশ্বব্যাপি আজ ভেষজ তথা হার্বাল চিকিৎসার জয়যাত্রা সুচিত হয়েছে। কেননা এই ওষুধের তুলনামুলক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনেক কম। তিনি এই ওষুধের জনপ্রিয়তাকে ধরে রাখতে হামদর্দের ন্যায় সকল উৎপাদকদের উৎপাদনের ক্ষেত্রে কঠোরভাবে মান নিয়ন্ত্রণের পরামর্শ দেন। সরকারও এই চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নয়নে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।  তিনি আরো বলেন হামদর্দ আর্ত পীড়িত ও দুঃস্থ মানুষের কল্যাণে, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও মানব সেবায় কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে হামদর্দ ৩টি ইউনানী মেডিকেল কলেজ, হামদর্দ পাবলিক কলেজ ও হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে দেশের গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদেরকে শিক্ষাগ্রহণে বিশেষ সহযোগিতা করা হচ্ছে। এছাড়া প্রতিবছর হজ্ব ক্যাম্পে মাসব্যাপী এবং বিশ্ব ইজতেমায় আগত সকল মুসুল্লীদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা ও ওষুধ প্রদান করা হয়ে থাকে। সভাপতির বক্তব্যে মোতাওয়াল্লী ও সিনিয়র পরিচালক বিপণন ড. হাকীম রফিকুল ইসলাম ২০১৭ সালের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য সবাইকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ২০১৮ সালের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য আমাদের আরো কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। তিনি আশা প্রকাশ করেন প্রতিষ্ঠানের উন্নতির জন্য সবাই আন্তরিকভাবে কাজ করে যাবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ