ঢাকা, সোমবার 8 January 2018, ২৫ পৌষ ১৪২৪, ২০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে জন্ম নিয়েছে দ্বিতীয় হস্তিশাবক

গাজীপুর সংবাদদাতা: গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে শুক্রবার বেলকলি এবং স্যাল বাহাদুরের ঘরে এক মাদি শাবক জন্ম নিয়েছে। এনিয়ে ওই পার্কে হাতি পরিবারে দুইটি শাবক জন্ম নিল। গত আগস্ট মাসে মুক্তিরাণী-স্যাল বাহাদুর প্রথম মাদি শাবক জন্ম দেয়। এনিয়ে হাতি পরিবারে মোট সদস্য সংখ্যা ৮এ দাঁড়িয়েছে।
সাফারি পার্কের বন্যপ্রাণী সুপারভাইজার মো. সারোয়ার আলম জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে হাতি বেষ্টনীতে বেলকলি তার ওই বাচ্চা প্রসব করেছে। বর্তামানে বেলকলি ও তার বাচ্চা সুস্থ রয়েছে। বর্তমানে দুই শাবকসহ আটটি হাতির মধ্যে ২টি পুরুষ ও ৬টি মাদি হাতি রয়েছে। সাফারি পার্কে ২০১৩ সাল থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে আনা এশিয়াটিক হাতির মধ্যে ২টি পুরুষ ও ৪টি মাদি হাতি ছিল।
পার্কের ভেটেরিনারী সার্জন মো. নিজাম উদ্দিন চৌধুরী জানান, বাচ্চা জন্মের ২৫-৩০মিনিটের ওঠে দাঁড়ায়। জন্মের সময় শাবকের ওজন ৫৫ কেজির মত হয়। তিন-চার বছর পর্যন্ত হস্তিশাবকরা মায়ের দুধপান করে থাকে। তবে এক বছর পর থেকে দুধের পাশাপাশি অন্য খাবার চেষ্টা করে। মা হাতিটি জন্মের পর একটি হিংস্র হয়ে উঠে। বাচ্চার কাছে কাউকে ভিড়তে দেয় না। মা হাতির প্রতিদিন খাবার তালিকায় রয়েছে গাজর-৪০ কেজি, মিষ্টি কুমড়া- ২০ কেজি, আখ-৪০ কেজি, কলা গাছ- ২০০ কেজি, সবুজ ঘাস-১০০ কেজি, আতপ চালে ঝাউ কেজি। নতুন এ শাবকটির নাম মায়ের সঙ্গে মিল রেখে ফুলকলি রাখার প্রস্তাব করা হবে।
পার্কের সুপারভাইজার মো. আনিসুর রহমান জানান, বাচ্চাটিসহ মা হাতিটিকে আলাদা করে রাখা হয়েছে।
যাতে মা ও শাবকটিকে দর্শনার্থীরা বিরক্ত না করে তার জন্য দর্শনার্থীদের তাদের বেষ্টনীর কাছে যেতে দেয়া হচ্ছে না।
তিনি আরো জানান, আফ্রিকান হাতির চেয়ে এশিয়াটিক হাতি আকার আকৃতিতে ছোট ও কম হিংস্র হয়।
এশিয়াটিক পুরুষ হাতির লম্বা দাত হলেও মাদি হাতির সাধারণত দাঁত হয় না, হলেও তা আকৃতিতে অনেক ছোট হয়। আর আফ্রিকান পুরুষ ও মাদি হাতি উভয়ের বড় বড় দাঁত হয়। তবে এ ক্ষেত্রে মাদি হাতির দাঁত পুরুষ হাতির চেয়ে ছোট থাকে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ