ঢাকা, সোমবার 8 January 2018, ২৫ পৌষ ১৪২৪, ২০ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বরিশালে পর্যটন হোটেল নির্মাণের জায়গা দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: বরিশালে একটি পর্যটন হোটেল এবং পর্যটন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করবে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন। এলক্ষ্যে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) পর্যটন কর্পোরেশনকে এক একর জমি ‘লাইসেন্স প্রদত্ত সম্পত্তি’ হিসাবে প্রদান করবে। কীর্তনখোলা নদী সংলগ্ন এলাকায় একটি আধুনিক দৃষ্টিনন্দন পর্যটন হোটেল নির্মাণ করা হলে তা  বরিশাল  অঞ্চলের পর্যটন কার্যক্রমের প্রসারতা ও উন্নয়নসহ জাতীয় অর্থনীতিতে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

পর্যটন হোটেল নির্মাণের যাবতীয় ব্যয়ভার বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন কর্তৃক নির্বাহ করা হবে। হোটেল নির্মাণ ও নির্মাণ পরবর্তী মেরামত ও উন্নয়ন সংক্রান্ত সকল কাজ পর্যটন কর্পোরেশন নিজ দায়িত্বে ও অর্থায়নে সম্পাদন করবে। যেখানে পর্যটন হোটেল এবং পর্যটন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপিত হবে সেটি বিআইডব্লিউটিএ’র বরিশালস্থ বিলুপ্ত নৌ-কারখানা এলাকার উত্তর-পশ্চিম অংশের জমি। বরিশাল সদরের বগুড়া-আলেকান্দা মৌজায় জে, এল নং ৫০ এর প্লট নং: ৪৯৮৯ (অংশ) এর ০.১৫৫ একর, ৪৯৯০  এর ০.৮৪৫ একর একুনে এক একর।
গত মঙ্গলবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারকপত্র স্বাক্ষরিত হয়। বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হক এবং বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজজামান খান কবির নিজ নিজ পক্ষে স্বাক্ষর করেন।
এসময় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব এস এম গোলাম ফারুক এবং নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মোঃ আবদুস সামাদ উপস্থিত ছিলেন।
সমঝোতা স্মারকপত্র/চুক্তিনামা স্বাক্ষরের পর থেকে ‘লাইসেন্স প্রদত্ত সম্পত্তির’ মেয়াদ হবে ত্রিশ বছর। পর্যটন কর্পোরেশন নির্ধারিত লাইসেন্স ফি বাৎরিক ভিত্তিতে পরিশোধ করবে। প্রতি ১০ বছর পর লাইসেন্স ফি উভয় পক্ষের সম্মতিতে বৃদ্ধি পাবে। ৩০ বছর পর উভয় পক্ষের সম্মতিতে পুনরায় চুক্তিনামা সম্পাদিত হবে। তবে কোন পক্ষ ৩০(ত্রিশ বছর) মেয়াদ শেষান্তে পুনঃচুক্তিনামা সম্পাদনের আগ্রহী না হলে বর্ণিত সম্পত্তি ১ম পক্ষের সম্পত্তি হিসেবে গন্য হবে।
পর্যটন কর্পোরেশন বিআইডব্লিউটিএ’র অনুকূলে জমি ব্যবহারের জামানত বাবদ ৫,০০,০০০/-(পাঁচ লক্ষ) টাকা ফেরতযোগ্য জামানত হিসাবে জমা দিয়েছে।
বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক জারিকৃত শুল্ক হার-২০১৬ অনুযায়ি বাৎসরিক লাইসেন্স ফি ভ্যাটসহ ২,৩০,০০০/- (দুই লক্ষ ত্রিশ হাজার)  টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। বিআইডব্লিউটি-এর ভূমি ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি/ বিআইডব্লিউটিএ‘র বিদ্যমান শুল্ক হার অনুযায়ী প্রতি বছর লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে পূর্ববর্তী বছরের লাইসেন্স ফি‘র উপর ২% মূল্য বৃদ্ধি পাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ