ঢাকা, মঙ্গলবার 9 January 2018, ২৬ পৌষ ১৪২৪, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো আলামত নেই -মির্জা ফখরুল

গতকাল সোমবার নয়াপল্টন বিএনপি কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে সাংবাদিক সম্মেলন করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: নতুন বছরের শুরু থেকেই ব্যাপক ধড়পাকড়ের অভিযোগ তুলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো আলামত নেই। গতকাল সোমবার সকালে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের এক যৌথসভা শেষে প্রেস ব্রিফিঙে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এই মন্তব্য করেন। মির্জা ফখরুল বলেন, নিশ্চয় লক্ষ্য করছেন যে, গত কয়েকদিনে অন্যায়ভাবে বেআইনিভাবে গ্রেফতারের সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। সেদিনই আমাদের দেশনেত্রীর কোর্টে যান, সেদিনেই কোনো কারণ ছাড়াই পুলিশ আমাদের ১০০/১৫০ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করছে। গ্রেফতার করে আসামী দেয়া হচ্ছে কাদেরকে? আসামী দেয়া হয়েছে সুপ্রিম কোর্ট বারের প্রেসিডেন্ট ও সেক্রেটারিকে যারা প্রত্যেকটি মামলায় ম্যাডামের সাথে কোর্টে থাকেন ওই সময়ে, আসামী দেয়া হয়েছে সাবেক ক্যাবিনেট সেক্রেটারি আবদুল হালিমকে। এই পরিস্থিতিতে আমরা এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো আলমত দেখতে পারছি না।
সরকারের প্রতি ফের আহ্বান রেখে মির্জা ফখরুল বলেন, এরপরও বলছি সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হওয়া উচিত। অতিদ্রুত পদত্যাগ করে একটা নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকারের হাতে নির্বাচনকালীন ক্ষমতা দিয়ে সকলের অংশগ্রহণে একটা সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করার জন্যে। এটাই একমাত্র উপায়।
জনগণের ভোটের চার বছর অতিক্রম করছি-প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন কী হয়েছে সেটা তো আপনারা পত্র-পত্রিকায়, টেলিভিশনে-মিডিয়াতে দেখিয়েছেন। এখন নামও হয়ে গেছে যে, কুত্তা মার্কা নির্বাচন। কেন না কুকুর ছাড়া আর কেউ ছিলো না কেন্দ্রের মধ্যে এবং কেনো কেন্দ্রে ৫% এর বেশি লোক যায়নি। ১৫৪ জনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। প্রায় সমস্ত কেন্দ্রে ভোটার ছিলো না। এই অবস্থায় উনি(শেখ হাসিনা) বলেন যে, তাকে ভোট দিয়েছে। ভোট দিয়েছে বলেই উনি নির্বাচিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী আছেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী আছেন শুধুমাত্র জোর করে, দখলদারিত্বে। রাষ্ট্রের সমস্ত যন্ত্রগুলোকে ব্যবহার করে, জনগণের সমস্ত আশা-আকাক্সক্ষাকে চূর্ণ করে দিয়ে একেবারে জবরদস্তি ক্ষমতা দখল করে আছেন। তার(শেখ হাসিনা) যদি এতোটুকু গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ থাকতো, তাহলে তিনি পদত্যাগ করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের কাছে দায়িত্ব দিয়ে ক্ষমতা ছেড়ে দিতেন ।  গত কয়েকদিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান, চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ও বিএনপি সম্পর্কে ‘রাজনৈতিক শিষ্ঠাচার বিবর্জিত’ বক্তব্য রাখছেন মন্তব্য করে তার নিন্দা জানিয়ে এরকম বক্তব্য প্রদান থেকে বিরত থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান মহাসচিব।
 সংসদের অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের দেয়া বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, রাষ্ট্রপতি যে বক্তব্য দিয়েছেন সংসদে এর নিয়মটা হচ্ছে- প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে  তৈরি করে দেবে, সেটা উনি পাঠ করবেন। ঠিক আছে। কিন্তু ন্যূনতম কতগুলো জিনিস তো আছে। দেশে যে গণতন্ত্র নেই- এটা তো সত্যিকথা। দেশের মানুষ যে এখানে লাঞ্ছিত হচ্ছে, নির্যাতিত হচ্ছে, নিপীড়িত হচ্ছে- এটাও সত্যি কথা। একই সঙ্গে এখানে মানুষের অধিকার হরণ করা হচ্ছে-এটাও সত্যি কথা। এসব তার(রাষ্ট্রপতি) বক্তব্যে আসেনি। আমরা নাগরিক হিসেবে অত্যন্ত ব্যথিত যে, আমাদের রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রের প্রয়োজনে সঠিক ভূমিকা নিতে পারছেন না-এটাতে আমরা ব্যথিত হচ্ছি।
উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা এই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবো এটা দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এটা সবাইকে আমরা জানিয়ে দিয়েছি। তবে এখনো প্রার্থী আমাদের চূড়ান্ত করা হয়নি। চূড়ান্ত হলে আপনাদের জানিয়ে দেয়া হবে।
ব্রিফিংয়ে দলের চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা ফজলুল হক মিলন, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শামা ওবায়েদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
নিন্দা ও প্রতিবাদ: ফেনী পৌর জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ফরহাদ উদ্দিন চৌধুরী মিল্লাতকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশব্যাপী সন্ত্রাস সৃষ্টি করে জনগণকে ভীতি ও আতঙ্কের মধ্যে রেখে চিরদিন রাষ্ট্রক্ষমতা আঁকড়ে রাখতেই বর্তমান সরকার বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আর এই উদ্দেশ্য পূরণে তারা দেশব্যাপী বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতার, রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন এবং কারান্তরীণ অব্যাহত গতিতে চালিয়ে যাচ্ছে। দেশব্যাপী প্রায় প্রতিদিনই বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে, নতুন নতুন মামলা দায়ের করা হচ্ছে। কিন্তু বর্তমান সরকারের সকল অপকর্ম ও ভয়াবহ দুঃশাসনের জবাব জনগণ একদিন কড়ায় গন্ডায় আদায় করে নিবে। ফেনী পৌর জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ফরহাদ উদ্দিন চৌধুরী মিল্লাত সরকারের প্রতিহিংসাপরায়ণ রাজনীতির শিকার। আমি তাকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা প্রত্যাহার করে নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ