ঢাকা, মঙ্গলবার 9 January 2018, ২৬ পৌষ ১৪২৪, ২১ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

প্রাচীন মহকুমা শহর রামগড়কে জেলা ঘোষণার দাবি

গুইমারা (খাগড়াছড়ি) সংবাদদাতা : খাগড়াছড়ির প্রাচীন মহকুমা শহর রামগড়কে জেলা করার দাবি জানিয়ে শহরের বিভিন্ন জায়গায় ফেস্টুন-ব্যানার প্রচারণা চালনা হয়েছে। বর্তমান সময়ের এই দাবিকে যৌক্তিক বলে জানিয়েছেন উপজেলার সর্বস্তরের মানুষ। সকলের একই কথা সাবেক মহকুমা রামগড়রকে জেলা ঘোষণার  দাবিতে আন্দোলনের মাঠে নামানো।
সময়ের সাথে সাথে পিছিয়ে পড়ছে ১৯২০ সালের সাবেক মহকুমা রামগড়। ৪টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা রামগড় উপজেলা বর্তমানে ২টি ইউনিয়নে আসায় রামগড় তার জৌলস হারাতে বসেছে।
অথচ যে চারটি উপজেলা মহকুমা হওয়ার পরেও জেলায় উন্নতি হয়নি তাদের মধ্যে রামগড় জেলার অন্যতম দাবিদার। কারণ একটি উপজেলায় যে প্রশাসনিক কার্যালয়গুলি থাকার কথা তার সবগুলি থাকার পরও রয়েছে কিছু অতিরিক্ত শাখা। যার কারণে রামগড়কে জেলা করা হলে সরকারকে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে হবে না বলে মনে করে সংশ্লিষ্টরা।
রামগড়ে আজকের  বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি’র) জন্ম। রামগড়ে রয়েছে পৌরসভা, তথ্য অফিস, জেলখানা, পানি উন্নয়ন বোর্ড, কাস্টমস অফিস, পিডব্লিউডি অফিস, টিএন্ডটি অফিস, মৎস্য হ্যাচারী, কৃষি গবেষণা কেন্দ্র, হর্টিকালচার সেন্টার, সার্কেল পুলিশ কার্যালয়, স্টেডিয়াম, সরকারি-বেসরকারি ৫টি ব্যাংক, ফাজিল মাদরাসা, সরকারি ডিগ্রি কলেজ ও ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল। সর্বশেষ বর্তমান সরকারের ঘোষিত রামগড় স্থলবন্দর। যার কার্যক্রম ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে।
শহরে জেলার দাবিতে ফেস্টুন ব্যানার দেয়ার কারণ সম্পর্কে এর উদ্যোক্তা উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, রামগড়কে জেলা করা সময়ের দাবি এবং এ ব্যাপারে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার এখনই সময়। রামগড়ের এক সময়কারের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে এর কোন বিকল্প নেই বলেও তিনি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ