ঢাকা, রোববার 14 January 2018, ১ মাঘ ১৪২৪, ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কনকনে শীতে কাঁপছে দেশ

গতকাল শনিবার রাজধানীসহ দেশের অধিকাংশ এলাকা ছিল কুয়াশার চাঁদরে ঢাকা। ছবিটি গতকাল দিয়াবাড়ি চৌরাস্তা থেকে তোলা -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : মৃদু ও মাঝারি শৈত্যপ্রবাহে অনেকটাই বিপর্যস্ত জনজীবন। শীতবস্ত্রের অভাবে কনকনে ঠান্ডায় ভুগছেন হতদরিদ্ররা। ঠান্ডাজনিত রোগ বালাইয়ে নাকাল শিশু ও বৃদ্ধরা। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকবে। ফলে বিরাজমান শৈত্যপ্রবাহ দেশের কোনো কোনো এলাকা থেকে প্রশমিত হতে পারে। এ দিকে চলতি মাসেই আরেকটি শৈত্যপ্রবাহ আসতে পারে বলে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।
আবহাওয়া অফিস বলছে, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, যশোর, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, বরিশাল, সীতাকু- ও রাঙামাটি অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং বিরাজমান শৈত্যপ্রবাহ দেশের কোনো কোনো এলাকা থেকে প্রশমিত হতে পারে।
এতে বলা হয়, মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারা দেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং দেশের কোথাও কোথাও তা দুপুর পর্যন্ত অব্যহত থাকতে পারে।
আবহাওয়া চিত্রের সংক্ষিপ্তসারে বলা হয়, উপমহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মওসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।
আবহাওয়ার স্বল্প মেয়াদী পূর্বাভাস বলছে, শীত আরো দুই দিন বাড়বে। জানুয়ারির শেষদিকে আসতে পারে আরেকটি শৈত্যপ্রবাহ। যা বয়ে যাবে ঢাকা, রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে।
জানুয়ারি মাসে সব মিলিয়ে দুই থেকে তিনটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এছাড়া, ফেব্রুয়ারি মাসে বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। বৃষ্টির কারণে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথমদিকে একটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ