ঢাকা, রোববার 14 January 2018, ১ মাঘ ১৪২৪, ২৬ রবিউস সানি ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সড়ক দুর্ঘটনায় গত বছরে মারা গেছে ৭ হাজার ৩৯৭ ॥ আহত ১৬১৯৩

স্টাফ রিপোর্টার: গত বছর ১৮ নবেম্বর ঢাকা থেকে মাইক্রোবাসে করে স্বপরিবারে নিজ নির্বাচনী এলাকা গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ যাচ্ছিলেন সরকারদলীয় সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা আহম্মেদ। পথে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের নাটিয়াপাড়া এলাকায় বাস ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। ১০ জুলাই রাত ২টায় বগুড়ার নন্দীগ্রামে নিজ ঘরে মা-বাবার সাথে ঘুমাচ্ছিলেন একমাত্র মেয়ে রিতা খাতুন (১১)। আম  বোঝাই ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বেড়ার ঘরে ঢুকে চাপা দেয় ঘুমন্ত রিতাকে। ভাগ্যক্রমে বাবা রাজু ও মা সনেকা বেঁচে গেলেও সেই ট্রাকের চাপায় আর জেগে উঠতে পারেনি ঘুমন্ত রিতা। ০৬ ডিসেম্বর  মাগুরার রাঘবদাইড় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী মিনু খাতুন পরীক্ষা শেষে রাস্তার দিয়ে হেঁটে বাড়ি ফেরার পথে চলন্ত  ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়।
এভাবে প্রতিদিন অসংখ্য দুর্ঘটনায় কখনও একজন বা কখনও পুরোপরিবার মৃত্যুর মিছিলে শামিল হচ্ছে। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, বিদায়ী ২০১৭ সালে সারাদেশে ৪,৯৭৯ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭,৩৯৭ জন নিহত এবং ১৬,১৯৩ জন আহত হয়েছে।
গতকাল  শনিবার সকালে ঢাকা রির্পোটার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী উপরোক্ত তথ্য তুলে ধরেন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড.হোসেন জিল্লুর রহমান, পিএসসির সাবেক চেয়ারম্যান ও দুর্ঘটনা প্রতিরোধ সংগঠন ফুয়ারার সভাপতি ইকরাম আহম্মেদ, বুয়েট এর দুর্ঘটনা গবেষণা কেন্দ্রের সহকারী অধ্যাপক কাজী সাইফুন নেওয়াজ, সাবেক সংসদ সদস্য এড. হুমায়ন কবির হিরু, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ খোকন প্রমুখ।

মাস    দুর্ঘটনা    নিহত    আহত
জানুয়ারি    ৪৫০    ৫২০    ১১০৩
 ফেব্রুারি    ৪৬৬    ৫৩৫    ১৬০৬
মার্চ    ৪৭২    ৫০৬    ১০৪৮
এপ্রিল    ৩৭৭    ৪১৮    ৯১০
মে    ৪৩১    ৫৩৯    ১০৪৫
জুন    ৪০২    ৫০৩    ১০৫৪
জুলাই    ৩৮০    ৪২৫    ১৪৩২
আগস্ট    ৩৪৪    ৩৯১    ৬৯৮
 সেপ্টেম্বর    ৩৯৪    ৪৬৬    ১৩৭১
অক্টোবর    ৪২৬    ৪৬৫    ৭৮৬
নবেম্বর    ৪০৭    ৪৩৭    ৬৭০
ডিসেম্বর    ৪৩০    ৫০০    ১১৪৮
সর্বমোট    ৪৯৭৯
৫৭০৫
১২৮৭১
হাসপাতালে মরেছে    ১৬৯২    ৩৩২২
সর্বমোট    ৪৯৭৯    ৭৩৯৭    ১৬১৯৩
সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিবেদন - ২০১৭

দেশের জাতীয়, আঞ্চলিক ও অনলাইন সংবাদপত্র সমূহে প্রচারিত সড়ক দুর্ঘটনার সংবাদ মনিটরিং করে এই প্রতিবেদন তৈরি করে সংগঠনটি। এতে দেখা গেছে বিদায়ী ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১২ মাসে ছোট-বড় ৪,৯৭৯ টি সড়ক দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। এতে সর্বমোট ২৩,৫৯০ জন যাত্রী, চালক ও পরিবহন শ্রমিক সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহত হয়েছে। এসব দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে সর্বমোট ৭,৩৯৭ জন, আহত হয়েছে ১৬,১৯৩ জন। এর মধ্যে হাত, পা বা অন্য কোন অঙ্গ হারিয়ে চিরতরে পঙ্গু হয়েছে ১,৭২২ জন। এইসব দুর্ঘটনায় ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে জিডিপি’র প্রায় দেড় থেকে দুই শতাংশ।
এসময় ১২৪৯টি বাস, ১৬৩৫টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ২৭৬ টি হিউম্যান হলার, ২৬২ টি কার, জীপ, মাইক্রোবাস, ১০৭৪ টি অটোরিক্সা, ১৪৭৫টি মোটরসাইকেল, ৩২২ টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৮২৪টি নছিমন করিমন দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।
সংগঠিত দুর্ঘটনার ৪২.৫ শতাংশ পথচারীকে চাপা, ২৫.৭ শতাংশ মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১১.৯ শতাংশ খাদে পড়ে, ২.৮ শতাংশ চাকায় ওড়না পেছিয়ে সংগঠিত হয়।
বিদায়ী ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে ৪৫০ টি সড়ক দুর্ঘটনায়, ১,১০৩ জন আহত ও ৫২০ জন নিহত হয়, এ মাসে ১১০ টি বাস, ১৮৩ টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ১৫ টি হিউম্যান হলার, ১৬ টি কার ও মাইক্রোবাস, ৭৮ টি অটোরিক্সা, ১৩৫ টি মোটরসাইকেল, ২০ টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৭৬টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।  এসব দুর্ঘটনার ১৪৮টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ২৯টি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে, ৮টি ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া চাকায় ওড়না পেছিয়ে ১১ জন, গাড়ী চাপায় ১৯৬ জন পথচারী সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়েছে।
 ফেব্রুয়ারি মাসে ৪৬৬ টি সড়ক দুর্ঘটনা সংগঠিত হয়। এতে ১৬০৬ জন আহত ও ৫৩৫ জন নিহত হয়। এই মাসে ১২৬ টি বাস, ১৫৫ টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ২১টি হিউম্যান হলার, ৭২টি অটোরিক্সা, ৩০টি কার ও মাইক্রোবাস, ১৪৬টি মোটরসাইকেল, ২৯টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৭৮টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসব দুর্ঘটনায় ১৩৪টি মুখোমুখি সংঘর্ষ ও ৭২টি খাদে পড়ে ঘটনা ঘঠেছে। এছাড়াও চাকায় উড়না পেছিয়ে ১৫জন ও ১৮১ জন পথচারী সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়েছে।
মার্চ মাসের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে এ মাসে ৪৭২ টি সড়ক দুর্ঘটনায়, ১০৪৮ জন আহত, ৫০৬ জন নিহত হয়েছে। এ মাসে ৯৯টি বাস ১৬৬ টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান ২৮টি হিউম্যান হলার ৯১ টি অটোরিক্সা ১৬টি কার ও মাইক্রোবাস ১১৫টি মোটরসাইকেল ২৩টি ব্যাটারি  চালিত রিক্সা ৬৫টি নছিমন করিমন দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসব দুর্ঘটনায় ১০৫ টি মুখোমুখি সংঘর্ষ ৩৮টি খাদে পড়ে ও ১টি ট্রেন- যানবাহনের সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও চাকায় ওড়না পেছিয়ে ১১ জন ও দ্রুত গাড়ির চাপায় ২৩৭ জন সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়েছে।
এপ্রিল মাসে ৩৭৭ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৯১০ জন আহত, ৪১৮ জন নিহত হয়। এই মাসে ৯৭ টি বাস ১৪৪টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান ২৬ টি হিউম্যান হলার ৯৪ টি অটোরিক্সা, ২৫টি কার ও মাইক্রোবাস, ১০৯টি মোটরসাইকেল, ২৩টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৬৭টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ১০৫টি সংঘর্ষ, ৮০টি খাদে পড়ে ০১ টি বাস-ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও চাকায় ওড়না পেছিয়ে ৯ জন ও গাড়ির চাপায় ১২৬ জন সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়।
মে মাসে ৪৩১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১০৪৫ জন আহত ৫৩৯ জন নিহত  হয়। এসময় ৯৯টি বাস, ১৪২ টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৯ টি হিউম্যান হলার, ৮৫টি অটোরিক্সা, ২১ টি কার ও মাইক্রোবাস, ১১৬টি মোটরসাইকেল, ১১টি ব্যাটারী চালিত রিক্সা, ৫৪টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এছাড়াও চাকায় ওড়না পেছিয়ে ১৫ জন ও ২০০ জন পথচারী সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়।
জুন মাসে ৪০২ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১০৫৪ জন আহত ও ৫০৩ জন নিহত হয়েছে। জুন মাসে ৯৯টি বাস, ১৫৩ টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৩১টি হিউম্যান হলার, ১০১ টি অটোরিক্সা,৩২টি কার ও মাইক্রোবাস, ১২২টি মোটরসাইকেল, ৩৫টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৬৮টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ১২৪ টি সংর্ঘষ, ৬৪ খাদে পড়ে। গাড়ী চাপায় ১৫৮ জন পথচারী এমাসে সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়।
জুলাই মাসে ৩৮০টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৪৩২ জন আহত ও ৪২৫ জন নিহত হয়। এই মাসে ১২৫টি বাস, ১০৫টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ২০ টি হিউম্যান হলার, ২৩টি কার ও মাইক্রোবাস, ৯৭টি অটোরিক্সা, ১১৩টি মোটরসাইকেল, ২১টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৭৬টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ৯৮টি সংর্ঘষ, ৫০াট বাস খাদে পড়ে। গাড়ীর চাপায় ১৫৬ জন পথচারী, চাকায় ওড়না পেছিয়ে ০৯ জন এমাসে সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়।
আগষ্ট মাসে ৩৪৪টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৯১ জন নিহত ও ৬৯৮ আহত হয়। এইমাসে ৭৪টি বাস, ১০১টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ২২টি হিউম্যান হলার, ৯৭টি অটোরিক্সা, ১৫টি কার ও মাইক্রোবাস, ১১৮টি মোটরসাইকেল, ১৩টি ব্যাটারি চালিতরিক্সা, ৬২টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ট্রেনের সাথে যানবাহন সংঘর্ষের ৪ টি ঘটনা, ৩২ টি খাদে পড়ে ও ৬৬টি যানবাহনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া গাড়ি চাপায় ১৩৯ জন পথচারী নিহত হয়।
সেপ্টেম্বর মাসে ৩৯৪টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৬৬ জন নিহত ও ১৩৭১ আহত হয়। এইমাসে ১১৪টি বাস, ১২৩টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৩৩টি হিউম্যান হলার, ৯২টি অটোরিক্সা, ২৭ টি কার ও মাইক্রোবাস, ১৪২টি মোটরসাইকেল, ৬৯টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৬৮টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। গাড়ির চাপায় ১৯৫ জন পথচারী সড়ক দূর্ঘটনার নিহত হয়।
অক্টোবর মাসে ৪২৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৬৫ জন নিহত ও ৭৮৬ আহত হয়। এইমাসে ৯৯টি বাস, ৯২টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ২৫টি হিউম্যান হলার, ৭৮টি অটোরিক্সা, ০৯ টি কার ও মাইক্রোবাস, ১১৮টি মোটরসাইকেল, ১৮টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৬৪টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ৪৭টি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খাদে পড়ে, ৮৭টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ২টি ট্রেন-যানবাহনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও চাকায় ওড়না পেছিয়ে ১১ জন ও ১৪৩ জন পথচারী সড়ক দুর্ঘটনার নিহত হয়।
নভেম্বর মাসে ৪০৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৩৭ জন নিহত ও ৬৭০ আহত হয়। এইমাসে ৮৯টি বাস, ১৩৫টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ১৬টি হিউম্যান হলার, ৯০টি অটোরিক্সা, ২৩ টি কার ও মাইক্রোবাস, ১২৭টি মোটরসাইকেল, ২৯টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৭৭টি নছিমন করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ৩টি ট্রেন ও যানবাহনের সংঘর্ষ, ১০৫টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ৩৪টি খাদে পড়ে ঘটনা ঘঠেছে। এছাড়া চাকায় ওড়না পেছিয়ে ৯ জন ও গাড়ির নিচে চাপা পড়ে ১৯৭ জন পথচারী নিহত হয়েছে।
ডিসেম্বর মাসে ৪৩০টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৫০০ জন নিহত ও ১১৪৮ আহত হয়। এইমাসে ১১৮টি বাস, ১৩৬টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৩০টি হিউম্যান হলার, ৯৯টি অটোরিক্সা, ২৫ টি কার ও মাইক্রোবাস, ১১৪টি মোটরসাইকেল, ৩১টি ব্যাটারি চালিত রিক্সা, ৬৯টি নছিমন  করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ১২৩ টি সংঘর্ষ, ৫৫ টি খাদে পড়ে, লেবেল ক্রসিংএ ট্রেনের সাথে যানবাহনের সংঘর্ষের ২টি ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও চাকায় উড়না পেছিয়ে ১৩ জন, গাড়ীর নিচে চাপা পরে ১৮৮ জন পথচারী নিহত হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ